কমান্ডারসহ তালেবানের ৪ সদস্য গ্রেফতার
jugantor
কমান্ডারসহ তালেবানের ৪ সদস্য গ্রেফতার

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৫ জুলাই ২০২১, ১৮:১৩:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

তালেবান

ঈদের নামাজ চলাকালে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে আফগান প্রেসিডেন্টের বাসভবন লক্ষ্য করে রকেট হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগ কমান্ডারসহ তালেবানের চার সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, পুলিশ রাজধানী কাবুলে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করেছে।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মীরওয়াইস স্তানিকজাই এক অডিও বার্তায় জানান, কমান্ডার মমিনসহ চার তালেবান সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

স্তানিকজাই আরও জানান, মমিন রকেট হামলার মূল পরিকল্পনাকারী ছিলেন। গ্রেফতার অন্যরাও হামলার সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

ঈদুল আজহার দিন স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে আফগান প্রেসিডেন্টের বাসভবনের পাশে রকেট হামলার ঘটনা ঘটে। আফগান প্রেসিডেন্টের বাসভবনের পাশেই মার্কিন দূতাবাসসহ বিভিন্ন দেশের দূতাবাস রয়েছে।

রকেট হামলার সময় প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি ঈদের নামাজ পড়ছিলেন বলে টেলিভিশনের ফুটেজে দেখা গেছে।

রকেট হামলার পরও নামাজ শেষে প্রেসিডেন্ট বাসভবনের চত্বরে দেশবাসীর উদ্দেশে বক্তব্য দেন আশরাফ ঘানি।

ঈদের দিন সকালে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে অন্তত তিনটি রকেট হামলা চালানো হয় বলে স্তানিকজাই জানিয়েছিলেন।তবে ঈদের দিনের রকেট হামলার দায় কেউ স্বীকার করেনি।

সাধারণ ঈদে যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দেয় তালেবার। তবে এবার আফগানিস্তানে অবস্থিত ১৫টি দেশের কূটনৈতিক মিশন এবং ন্যাটো তালেবানের কাছে ঈদে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানালে তা নাকচ করে দেয় তালেবান।

আফগানিস্তান থেকে মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনী প্রত্যাহারের ঘোষণার পর থেকেই দেশটির বিভিন্ন এলাকায় সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়ছে তালেবান যোদ্ধারা। চলমান অস্থিরতা কমাতে দেশটিতে রাত্রিকালীন কারফিউ জারি করেছে আফগান সরকার। শনিবার থেকে দেশটির ৩৪ প্রদেশের মধ্যে ৩১ প্রদেশে এই রাত্রিকালীন কারফিউ বলবৎ থাকবে।

এদিকে, আফগানিস্তানের ৪১৯টির মধ্যে প্রায় ২১২টি জেলা তালেবানের দখলে রয়েছে বলে মার্কিন সেনার জয়েন্ট চিফ অফ স্টাফ চেয়ারম্যান জেনারেল মার্ক মাইলি জানিয়েছিলেন।

তিনি জানান, কৌশলগতভাবে তালেবান ক্রমশ অগ্রসর হচ্ছে। তালেবানের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তবে আফগানিস্তানের সমগ্র পরিস্থিতির উপর যুক্তরাষ্ট্র নজর রাখছে বলেও জানান তিনি।

কমান্ডারসহ তালেবানের ৪ সদস্য গ্রেফতার

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৫ জুলাই ২০২১, ০৬:১৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
তালেবান
ছবি : প্রতীকী

ঈদের নামাজ চলাকালে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে আফগান প্রেসিডেন্টের বাসভবন লক্ষ্য করে রকেট হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগ কমান্ডারসহ তালেবানের চার সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, পুলিশ রাজধানী কাবুলে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করেছে। 

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মীরওয়াইস স্তানিকজাই এক অডিও বার্তায় জানান, কমান্ডার মমিনসহ চার তালেবান সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

স্তানিকজাই আরও জানান, মমিন রকেট হামলার মূল পরিকল্পনাকারী ছিলেন। গ্রেফতার অন্যরাও হামলার সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

ঈদুল আজহার দিন স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে আফগান প্রেসিডেন্টের বাসভবনের পাশে রকেট হামলার ঘটনা ঘটে। আফগান প্রেসিডেন্টের বাসভবনের পাশেই মার্কিন দূতাবাসসহ বিভিন্ন দেশের দূতাবাস রয়েছে।

রকেট হামলার সময় প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি ঈদের নামাজ পড়ছিলেন বলে টেলিভিশনের ফুটেজে দেখা গেছে।

রকেট হামলার পরও নামাজ শেষে প্রেসিডেন্ট বাসভবনের চত্বরে দেশবাসীর উদ্দেশে বক্তব্য দেন আশরাফ ঘানি। 

ঈদের দিন সকালে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে অন্তত তিনটি রকেট হামলা চালানো হয় বলে স্তানিকজাই জানিয়েছিলেন।তবে ঈদের দিনের রকেট হামলার দায় কেউ স্বীকার করেনি।

সাধারণ ঈদে যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দেয় তালেবার। তবে এবার আফগানিস্তানে অবস্থিত ১৫টি দেশের কূটনৈতিক মিশন এবং ন্যাটো তালেবানের কাছে ঈদে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানালে তা নাকচ করে দেয় তালেবান।

আফগানিস্তান থেকে মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনী প্রত্যাহারের ঘোষণার পর থেকেই দেশটির বিভিন্ন এলাকায় সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়ছে তালেবান যোদ্ধারা। চলমান অস্থিরতা কমাতে দেশটিতে রাত্রিকালীন কারফিউ জারি করেছে আফগান সরকার। শনিবার থেকে দেশটির ৩৪ প্রদেশের মধ্যে ৩১ প্রদেশে এই রাত্রিকালীন কারফিউ বলবৎ থাকবে।

এদিকে, আফগানিস্তানের ৪১৯টির মধ্যে প্রায় ২১২টি জেলা তালেবানের দখলে রয়েছে বলে মার্কিন সেনার জয়েন্ট চিফ অফ স্টাফ চেয়ারম্যান জেনারেল মার্ক মাইলি জানিয়েছিলেন।

তিনি জানান, কৌশলগতভাবে তালেবান ক্রমশ অগ্রসর হচ্ছে। তালেবানের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তবে আফগানিস্তানের সমগ্র পরিস্থিতির উপর যুক্তরাষ্ট্র নজর রাখছে বলেও জানান তিনি।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন