ধর্ষণের জন্য সহস্র বছরের কারাদণ্ড, চমকে দেওয়ার মতো সাজার বহর
jugantor
ধর্ষণের জন্য সহস্র বছরের কারাদণ্ড, চমকে দেওয়ার মতো সাজার বহর

  অনলাইন ডেস্ক  

৩১ জুলাই ২০২১, ০৪:১৫:১৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বিশ্বের অনেক দেশেই মৃত্যুদণ্ড নিষিদ্ধ। তাই অপরাধের মাত্রার ওপর নির্ভর করে বিভিন্ন মেয়াদের কারাদণ্ড দেওয়া হয় সেসব দেশে। কিন্তু কখনো যে এসব কারাদণ্ডের মেয়াদ হাজার থেকে লক্ষ বছর পর্যন্ত হতে পারে জানেন কী? এরকম লাখ লাখ বছর মেয়াদে সাজা দেওয়ার বহর সত্যি চমকে দেওয়ার মতো।

১৯৯৪ সালে অ্যালান ওয়েইন ম্যাকলুরিন নামে এক ব্যক্তিকে ধর্ষণ, অস্বাভাবিক যৌন সম্পর্ক স্থাপনসহ বিভিন্ন অপরাধে ২১ হাজার ২৫০ বছরের কারাদণ্ড দেন যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমার এক আদালত।

যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমার আদালত চার্লস স্কট রবিনসন নামে আরেক শিশু ধর্ষককে ১৯৯৪ সালেই ৩০ হাজার বছর কারাদণ্ড দেন। আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন চার্লস। মজার ব্যাপার হলো, ১০৮ বছর বয়স হলে চার্লস প্যারোলে মুক্তি পাবেন বলে রায় দেন আদালত।

এ পর্যন্ত বিশ্বের দীর্ঘতম দিনের সাজা পাওয়ার রেকর্ড চাময় থিপিয়াসো নামে এক ব্যক্তির। ১ লাখ ৬০ হাজার থাই নাগরিকের সাথে প্রতারণার অভিযোগে চাময় থিপিয়াসোকে এক লাখ ৪১ হাজার ৭৮ বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। থাইল্যান্ডের আইনে সর্বোচ্চ ২০ বছর কারাদণ্ডের বিধান থাকলেও বিপুল সংখ্যক মানুষের সাথে প্রচারণার দায়ে থিপিয়াসোকে এই সাজা দেওয়া হয়। যদিও ১৪ বছর কারাভোগ শেষেই মুক্তি পান তিনি।

গ্যাব্রিয়েল মার্চ গ্রানাডোস নামে স্পেনের এক পোস্টম্যানকে ১৯৭২ সালে ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৯১২ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল ৪০ হাজারেরও বেশি চিঠি প্রাপকের কাছে পৌঁছে না দেওয়ার। তবে পরবর্তীতে অবশ্য তার সাজা কমিয়ে ১৪ বছর করা হয়।

ধর্ষণের জন্য সহস্র বছরের কারাদণ্ড, চমকে দেওয়ার মতো সাজার বহর

 অনলাইন ডেস্ক 
৩১ জুলাই ২০২১, ০৪:১৫ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিশ্বের অনেক দেশেই মৃত্যুদণ্ড নিষিদ্ধ। তাই অপরাধের মাত্রার ওপর নির্ভর করে বিভিন্ন মেয়াদের কারাদণ্ড দেওয়া হয় সেসব দেশে। কিন্তু কখনো যে এসব কারাদণ্ডের মেয়াদ হাজার থেকে লক্ষ বছর পর্যন্ত হতে পারে জানেন কী? এরকম লাখ লাখ বছর মেয়াদে সাজা দেওয়ার বহর সত্যি চমকে দেওয়ার মতো।

১৯৯৪ সালে অ্যালান ওয়েইন ম্যাকলুরিন নামে এক ব্যক্তিকে ধর্ষণ, অস্বাভাবিক যৌন সম্পর্ক স্থাপনসহ বিভিন্ন অপরাধে ২১ হাজার ২৫০ বছরের কারাদণ্ড দেন যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমার এক আদালত।

যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমার আদালত চার্লস স্কট রবিনসন নামে আরেক শিশু ধর্ষককে ১৯৯৪ সালেই ৩০ হাজার বছর কারাদণ্ড দেন। আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন চার্লস। মজার ব্যাপার হলো, ১০৮ বছর বয়স হলে চার্লস প্যারোলে মুক্তি পাবেন বলে রায় দেন আদালত।

এ পর্যন্ত বিশ্বের দীর্ঘতম দিনের সাজা পাওয়ার রেকর্ড চাময় থিপিয়াসো নামে এক ব্যক্তির। ১ লাখ ৬০ হাজার থাই নাগরিকের সাথে প্রতারণার অভিযোগে চাময় থিপিয়াসোকে এক লাখ ৪১ হাজার ৭৮ বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। থাইল্যান্ডের আইনে সর্বোচ্চ ২০ বছর কারাদণ্ডের বিধান থাকলেও বিপুল সংখ্যক মানুষের সাথে প্রচারণার দায়ে থিপিয়াসোকে এই সাজা দেওয়া হয়। যদিও ১৪ বছর কারাভোগ শেষেই মুক্তি পান তিনি।

গ্যাব্রিয়েল মার্চ গ্রানাডোস নামে স্পেনের এক পোস্টম্যানকে ১৯৭২ সালে ৩ লাখ ৮৪ হাজার ৯১২ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল ৪০ হাজারেরও বেশি চিঠি প্রাপকের কাছে পৌঁছে না দেওয়ার। তবে পরবর্তীতে অবশ্য তার সাজা কমিয়ে ১৪ বছর করা হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন