স্টিভ জবসের চাকরির আবেদনপত্রের দাম আড়াই কোটি টাকা!
jugantor
স্টিভ জবসের চাকরির আবেদনপত্রের দাম আড়াই কোটি টাকা!

  অনলাইন ডেস্ক  

৩১ জুলাই ২০২১, ০৯:৩২:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ‘অ্যাপেল’ এর প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জোবসের প্রথম চাকরির আবেদনপত্রের নিলামে দাম ওঠেছে। যার দাম হাঁকা হয়েছে ৩ লাখ ৪৩ হাজার মার্কিন ডলার অর্থাৎ বাংলাদেশি মুদ্রায় আড়াই কোটি টাকা!

১৯৭৩ সালে জোবসের বয়স তখন মাত্র ১৮, তখন একটি কোম্পানিতে চাকরির জন্য আবেদন করেছিলেন তিনি। খবর সিএনবিসির।

স্টিভ জবসের জীবনে প্রথম এবং শেষ চাকরির আবেদনপত্র বলে কথা!

সম্প্রতি ওই পুরনো হলদেটে কাগজ নিলামে চড়তেই দাম ওঠল আড়াই কোটি টাকা।

হাতে লেখা ওই আবেদনপত্রে জোবস নিজেই জানিয়েছেন, সেই সময়ে তার কাছে ফোন ছিল না। তবে ড্রাইভিং লাইসেন্স ছিল।

শুধু স্টিভের চাকরির আবেদনপত্র বলেই নয়, ওই পুরনো কাগজটির মধ্যে কিছু অভিনব ব্যাপারও রয়েছে। যার জন্য এতো বিপুল অর্থ দিয়ে সেটি কেনা হয়েছে।

তবে স্টিভের চাকরির আবেদনপত্র নিলামে ওঠার ঘটনা প্রথম নয়। এর আগেও বেশ কয়েকবার নিলাম হয়েছে ওই কাগজটির।

গত মার্চেই একটি নিলামে তার দাম উঠেছিল এক কোটি ৭০ লাখ টাকা।

স্টিভ জবসের চাকরির আবেদনপত্রের দাম আড়াই কোটি টাকা!

 অনলাইন ডেস্ক 
৩১ জুলাই ২০২১, ০৯:৩২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ‘অ্যাপেল’ এর প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ জোবসের প্রথম চাকরির আবেদনপত্রের নিলামে দাম ওঠেছে। যার দাম হাঁকা হয়েছে ৩ লাখ ৪৩ হাজার মার্কিন ডলার অর্থাৎ বাংলাদেশি মুদ্রায় আড়াই কোটি টাকা!

১৯৭৩ সালে জোবসের বয়স তখন মাত্র ১৮, তখন একটি কোম্পানিতে চাকরির জন্য আবেদন করেছিলেন তিনি। খবর সিএনবিসির।

স্টিভ জবসের জীবনে প্রথম এবং শেষ চাকরির আবেদনপত্র বলে কথা!

সম্প্রতি ওই পুরনো হলদেটে কাগজ নিলামে চড়তেই দাম ওঠল আড়াই কোটি টাকা।

হাতে লেখা ওই আবেদনপত্রে জোবস নিজেই জানিয়েছেন, সেই সময়ে তার কাছে ফোন ছিল না। তবে ড্রাইভিং লাইসেন্স ছিল।

শুধু স্টিভের চাকরির আবেদনপত্র বলেই নয়, ওই পুরনো কাগজটির মধ্যে কিছু অভিনব ব্যাপারও রয়েছে। যার জন্য এতো বিপুল অর্থ দিয়ে সেটি কেনা হয়েছে।

তবে স্টিভের চাকরির আবেদনপত্র নিলামে ওঠার ঘটনা প্রথম নয়। এর আগেও বেশ কয়েকবার নিলাম হয়েছে ওই কাগজটির।

গত মার্চেই একটি নিলামে তার দাম উঠেছিল এক কোটি ৭০ লাখ টাকা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন