১৩ মাস আইসিইউতে থাকা বিশ্বের সবচেয়ে কম ওজনের শিশুটি বাড়িতে
jugantor
১৩ মাস আইসিইউতে থাকা বিশ্বের সবচেয়ে কম ওজনের শিশুটি বাড়িতে

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক  

১১ আগস্ট ২০২১, ১৪:১৪:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

১৩ মাস আইসিইউতে থাকার পর বাড়ি ফিরল বিশ্বের সবচেয়ে কম ওজনের শিশু

বিশ্বের সবচেয়ে কম ওজনের শিশুটি ১৪ মাস পর হাসপাতাল ছেড়েছে। সে এখন শঙ্কামুক্ত এবং সুস্থ আছে।

জন্মের সময় কিউয়েক ইউ জুয়ান নামের শিশুটির ওজন ছিল মাত্র ২১২ গ্রাম। জন্মের পর নানা জটিলতা দেখা দেওয়ায় তাকে ১৪ মাস হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা করা হয়। এর মধ্যে ১৩ মাসই ছিল নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিইউ)।

কিউয়েকের জন্ম হয়েছিল নির্দিষ্ট সময়ের প্রায় চার মাস আগে। ২০২০ সালের জুন মাসে সিঙ্গাপুরে জন্ম নেওয়া শিশুটির বাঁচার সম্ভাবনা খুব ক্ষীণ বলেই তখন জানিয়েছিলেন চিকিৎসকরা।

এর পর তাকে হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হয়। অবস্থার উন্নতি হলে এবছরের জুলাই মাসে তাকে তুলে দেওয়া হয় পরিবারের কাছে। এ সময় তার ওজন বেড়ে দাঁড়ায় ছয় কেজি ৩০০ গ্রাম। এত কম ওজনে জন্ম নিয়েও সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছে এমন ঘটনা এটিই প্রথম বলে মানা হচ্ছে।

শিশুটির বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে সিএনএনের খবরে বলা হয়েছে— কিউয়েক ইউ জুয়ানকে নিবিড় পরিচর্যায় রাখা হয়েছিল ১৩ মাস। বেঁচে থাকার জন্য তাকে নির্ভর করতে হয়েছে বিভিন্ন চিকিৎসা ও যন্ত্রের ওপরেই। তবে চিকিৎসা চলাকালীন সে খুব সক্রিয়, প্রফুল্ল ও প্রতিক্রিয়াশীল ছিল বলেও জানান তারা।

শিশুটির সুস্থ হয়ে ওঠার পেছনে হাসপাতালটির কর্মকর্তাদেরই মূল ভূমিকা ছিল বলে মনে করছেন শিশুটির বাবা-মা।

হাসপাতালটির সিনিয়র পরামর্শদাতা ও নিওটোলজি বিভাগের প্রধান ড. জুবায়ের আমিন জানান, ইউ জুয়ানের জন্য এটি একটি কঠিন যাত্রা ছিল। তার এ যাত্রায় হাসপাতালের চিকিৎসক, কর্মীসহ সম্পৃক্ত সহায়তার প্রশংসা করেন তিনি।

১৩ মাস আইসিইউতে থাকা বিশ্বের সবচেয়ে কম ওজনের শিশুটি বাড়িতে

 আন্তর্জাতিক ডেস্ক 
১১ আগস্ট ২০২১, ০২:১৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
১৩ মাস আইসিইউতে থাকার পর বাড়ি ফিরল বিশ্বের সবচেয়ে কম ওজনের শিশু
ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বের সবচেয়ে কম ওজনের শিশুটি ১৪ মাস পর হাসপাতাল ছেড়েছে।  সে এখন শঙ্কামুক্ত এবং সুস্থ আছে। 

জন্মের সময় কিউয়েক ইউ জুয়ান নামের শিশুটির ওজন ছিল মাত্র ২১২ গ্রাম। জন্মের পর নানা জটিলতা দেখা দেওয়ায় তাকে ১৪ মাস হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা করা হয়। এর মধ্যে ১৩ মাসই ছিল নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিইউ)।

কিউয়েকের জন্ম হয়েছিল নির্দিষ্ট সময়ের প্রায় চার মাস আগে। ২০২০ সালের জুন মাসে সিঙ্গাপুরে জন্ম নেওয়া শিশুটির বাঁচার সম্ভাবনা খুব ক্ষীণ বলেই তখন জানিয়েছিলেন চিকিৎসকরা।

এর পর তাকে হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হয়। অবস্থার উন্নতি হলে এবছরের জুলাই মাসে তাকে তুলে দেওয়া হয় পরিবারের কাছে। এ সময় তার ওজন বেড়ে দাঁড়ায় ছয় কেজি ৩০০ গ্রাম। এত কম ওজনে জন্ম নিয়েও সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছে এমন ঘটনা এটিই প্রথম বলে মানা হচ্ছে।

শিশুটির বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে সিএনএনের খবরে বলা হয়েছে— কিউয়েক ইউ জুয়ানকে নিবিড় পরিচর্যায় রাখা হয়েছিল ১৩ মাস।  বেঁচে থাকার জন্য তাকে নির্ভর করতে হয়েছে বিভিন্ন চিকিৎসা ও যন্ত্রের ওপরেই। তবে চিকিৎসা চলাকালীন সে খুব সক্রিয়, প্রফুল্ল ও প্রতিক্রিয়াশীল ছিল বলেও জানান তারা।

শিশুটির সুস্থ হয়ে ওঠার পেছনে হাসপাতালটির কর্মকর্তাদেরই মূল ভূমিকা ছিল বলে মনে করছেন শিশুটির বাবা-মা।

হাসপাতালটির সিনিয়র পরামর্শদাতা ও নিওটোলজি বিভাগের প্রধান ড. জুবায়ের আমিন জানান, ইউ জুয়ানের জন্য এটি একটি কঠিন যাত্রা ছিল। তার এ যাত্রায় হাসপাতালের চিকিৎসক, কর্মীসহ সম্পৃক্ত সহায়তার প্রশংসা করেন তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন