ব্রিটিশ ‘হরিণীদের’ ছেড়ে মার্কিন ‘বাঘিনীর’ ঘরে হ্যারি

  যুগান্তর ডেস্ক ০৬ মে ২০১৮, ০৯:০৭ | অনলাইন সংস্করণ

প্রিন্স হ্যারি

অবশেষে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক ও হলিউডের ‘বাঘিনী মেজাজের’ অভিনেত্রী মেগান মারকেলকে বিয়ে করছেন প্রিন্স চার্লস ও প্রয়াত প্রিন্সেস ডায়ানার ছোট ছেলে প্রিন্স হ্যারি।

চলতি মাসের ১৯ তারিখেই এ জুটির বিয়ে। ‘অবশেষে’ বলা হল এই কারণে যে, মেগানের আগে বহু তরুণীর প্রেমে পড়েছেন হ্যারি।

এসব তরুণীর বেশিরভাগই তার নিজের দেশের এবং অভিজাত ও ডাকসাইটে সুন্দরী। কিন্তু তাদের কারও সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধার কথা চিন্তা করেননি হ্যারি।

সারা ব্রিটেনে এখন একটিই প্রশ্ন- ব্রিটেনের অভিজাত নীলনয়না ‘হরিণীদের’ ছেড়ে ৩৩ বছরের হ্যারি কেন ৩৬ বছরের একজন মার্কিন অভিনেত্রীর প্রেমে মজলেন?

সুদর্শন হ্যারির এমন কাণ্ডজ্ঞান নিয়ে ইতিমধ্যে অনেক গবেষণাও করে ফেলেছেন রাজপরিবারের শীর্ষ ইতিহাস লেখকরা। তাদের মতে, এর পেছনে কাজ করেছে হ্যারির জটিল মনঃস্তত্ত্ব।

২০১৬ সালের জুলাই। এক মনোরম সন্ধ্যায় মেগানের সঙ্গে প্রথম সাক্ষাৎ হ্যারির। এ সাক্ষাতের ব্যবস্থা করেন উভয়ের বন্ধু ফ্যাশন ডিজাইনার মিশা নোনু।

সেই সন্ধ্যাবেলায় দুজনের ফোন নম্বরের বিনিময়। পরবর্তী কয়েক দিনে মেগানের ফোন হ্যারির টেক্সট মেসেজে সয়লাব হয়ে যায়। এর পর আরও দুবার দেখা করেন হ্যারি ও মেগান।

প্রথম তিনবারের সাক্ষাতেই হ্যারি বুঝে যান, তিনি এতদিন ধরে যাকে খুঁজছেন তাকেই পেয়ে গেছেন। এর পরই আফ্রিকার দেশ বতসোয়ানায় তার সঙ্গে ছুটি কাটাতে মেগানকে প্রস্তাব দেন হ্যারি।

এতদিনে একবারের তালাকপ্রাপ্ত মেগান বুঝে গেছেন, তিনি তার আদর্শ মানুষটিকে খুঁজে পেয়েছেন। তাই হ্যারির সঙ্গে বতসোয়ানায় ছুটি কাটাতে যান তিনি। সেই থেকে একসঙ্গেই সময় কাটাচ্ছেন এ জুটি। মেগানের সঙ্গে সাক্ষাতের কিছু দিন আগেই যে তরুণীর সঙ্গে হ্যারি প্রেম করেছেন, তিনি হচ্ছেন ব্রিটেনের রিচমন্ডের মেয়ে রেবেকা উডহেড।

২৬ বছর বয়সী এই তরুণী একজন স্কি মডেল। আরও যেসব তরুণীর সঙ্গে হ্যারি প্রেমে করেছেন বলে জানা যায়, তাদের মধ্যে রয়েছেন ২০০৩ সালে ব্রিটেনের শেয়ার ব্যবসায়ী কন্যা লরা জেরার্ড লেইগ।

২০০৯ সালে প্রিন্স উইলিয়ামের স্ত্রী কেট মিডলটনের এক বান্ধবী অস্ট্রিড হারবোর্ড। একই বছর টেলিভিশন উপস্থাপিকা ক্যারোলিন ফ্ল্যাক। ২০১২ সালে স্কি খেলোয়াড় মলি কিং, ২০১৪ সালে সাবেক মিস এডিনবার্গ ক্যামিলা থারলো এবং ২০১৬ সালে পপসংগীত শিল্পী এলি গোল্ডিংয়ের সঙ্গে। এর বাইরেও আরও অনেকের সঙ্গে হ্যারির সম্পর্ক ছিল বলে ধারণা করা হয়।

২০০৩ থেকে শুরু করে ২০১৬ পর্যন্ত প্রায় একডজন তরুণীর সঙ্গে প্রেম করলেও কারও প্রতি মন মজেনি হ্যারির। এর কারণ হিসেবে রাজপরিবারের এক পুরোহিত বলেন, ‘প্লেবয়ের মতো মেয়েদের নিয়ে পড়ে থাকলেও তার মধ্যে সবসময় অনিরাপত্তা কাজ করত। এ ছাড়া তিনি সর্বদা একটা স্থিতিশীল সম্পর্ক চাইতেন।’

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter