যে কারণে তৃণমূলে যোগ দিলেন বিজেপির দুইবারের মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়
jugantor
যে কারণে তৃণমূলে যোগ দিলেন বিজেপির দুইবারের মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়

  অনলাইন ডেস্ক  

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২০:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

বাবুল সুপ্রিয়। ফাইল ছবি

সবাইকে অবাক করে দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন বিজেপির দুইবারের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। হঠাৎ তার এ দলবদল পশ্চিমবঙ্গসহ ভারতীয় রাজনীতিতে ব্যাপক আলোচনা তৈরি করেছে। এ নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে হিন্দুস্তান টাইমস।

বিজেপি থেকে কেন তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন এ নিয়ে নিজেই জানিয়েছেন দুই বাংলার জনপ্রিয় এ সংগীত শিল্পী।

তিনি বলেছেন, সামনে ‘বড় সুযোগ’ এসেছে, তাই তৃণমূলে যোগ দিয়েছি।

বিজেপিতে কাজের সুযোগ কমে আসছিল। বাংলার হয়ে কাজ করার জন্য সামনে ‘বড় সুযোগ’ এসেছে। তাই তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন। এমনটাই জানালেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। সঙ্গে তিনি বলেন, ‘মমতাদিদি (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) ও অভিষেক যে দায়িত্ব আমায় দিচ্ছেন, তাতে আমি অত্যন্ত উত্তেজিত।’

হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, মাসকয়েক আগে নরেন্দ্র মোদির মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়ার থেকেই বাবুলের 'ক্ষোভ' নিয়ে জল্পনা বাড়ছিল। সেইসময় সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন। পরে সাফাই দিলেও জানিয়ে দেন, রাজনীতি ছেড়ে দিচ্ছেন। দিল্লিতে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নড্ডার সঙ্গে সাক্ষাতের পর বাবুল জানিয়েছিলেন, তিনি রাজনীতি ছাড়ছেন। তবে অমিত শাহ এবং নড্ডাদের অনুরোধ আসানসোলের সংসদ সদস্য পদ ছাড়ছেন না। কিন্তু সেই রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণার পর মাসখানেক কাটতে না কাটতেই সিদ্ধান্ত 'পরিবর্তন' করেন বাবুল।

কেন সেই সিদ্ধান্ত ‘পরিবর্তন’ করেছেন, সেই ব্যাখ্যাও দেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। তিনি দাবি করেন, রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ার বিষয়টি ঘোষণার পরই বহু মানুষের বার্তা পেয়েছেন। তারা বাবুলকে সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের আর্জি জানান। তারপরই সিদ্ধান্ত পালটেছেন বলে দাবি করেছেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী।

বাবুলের দাবি, রাজনীতি ছাড়ার কোনও সিদ্ধান্ত নাটক ছিল না। শেষ তিনদিনে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তার সামনে যে সুযোগ এসেছে, সেটাই তিনি দু'হাত ভরে গ্রহণ করেছেন।

বাবুল সুপ্রিয় বলেন, ‘রাজনীতি ছাড়ার কথা মন থেকেই বলেছিলাম। আমি অত্যন্ত গর্বিত। মমতাদিদি ও অভিষেক যে দায়িত্ব আমায় দিচ্ছেন, তাতে আমি অত্যন্ত উত্তেজিত। বাংলার মানুষের উন্নতির জন্য কাজ করব। আমি জানি, আমার বিরুদ্ধে অনেক কিছু ট্রেন্ডিং হবে। আমার মনে যেটা ট্রেন্ড করছে, সেটা হল যে আমার সামনে সুযোগ এসেছে, তার জন্যই কাজ করব মন দিয়ে।’

তবে দলবদলের ফলে আসানসোলের সংসদ সদস্য পদ ছেড়ে দেবেন কিনা, তা স্পষ্টভাবে জানাননি বাবুল। তিনি জানান, বিষয়টি নিয়ে দু'একদিনের মধ্যে জানানো হবে। সঙ্গে তিনি জানান, আগামী সোমবার মমতার সঙ্গে দেখা করবেন।

যে কারণে তৃণমূলে যোগ দিলেন বিজেপির দুইবারের মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়

 অনলাইন ডেস্ক 
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বাবুল সুপ্রিয়। ফাইল ছবি
বাবুল সুপ্রিয়। ফাইল ছবি

সবাইকে অবাক করে দিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন বিজেপির দুইবারের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। হঠাৎ তার এ দলবদল পশ্চিমবঙ্গসহ ভারতীয় রাজনীতিতে ব্যাপক আলোচনা তৈরি করেছে। এ নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে হিন্দুস্তান টাইমস। 

বিজেপি থেকে কেন তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন এ নিয়ে নিজেই জানিয়েছেন দুই বাংলার জনপ্রিয় এ সংগীত শিল্পী। 

তিনি বলেছেন, সামনে ‘বড় সুযোগ’ এসেছে, তাই তৃণমূলে যোগ দিয়েছি।

বিজেপিতে কাজের সুযোগ কমে আসছিল। বাংলার হয়ে কাজ করার জন্য সামনে ‘বড় সুযোগ’ এসেছে। তাই তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছেন। এমনটাই জানালেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। সঙ্গে তিনি বলেন, ‘মমতাদিদি (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) ও অভিষেক যে দায়িত্ব আমায় দিচ্ছেন, তাতে আমি অত্যন্ত উত্তেজিত।’

হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, মাসকয়েক আগে নরেন্দ্র মোদির মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়ার থেকেই বাবুলের 'ক্ষোভ' নিয়ে জল্পনা বাড়ছিল। সেইসময় সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন। পরে সাফাই দিলেও জানিয়ে দেন, রাজনীতি ছেড়ে দিচ্ছেন। দিল্লিতে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নড্ডার সঙ্গে সাক্ষাতের পর বাবুল জানিয়েছিলেন, তিনি রাজনীতি ছাড়ছেন। তবে অমিত শাহ এবং নড্ডাদের অনুরোধ আসানসোলের সংসদ সদস্য পদ ছাড়ছেন না। কিন্তু সেই রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণার পর মাসখানেক কাটতে না কাটতেই সিদ্ধান্ত 'পরিবর্তন' করেন বাবুল।

কেন সেই সিদ্ধান্ত ‘পরিবর্তন’ করেছেন, সেই ব্যাখ্যাও দেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। তিনি দাবি করেন, রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ার বিষয়টি ঘোষণার পরই বহু মানুষের বার্তা পেয়েছেন। তারা বাবুলকে সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের আর্জি জানান। তারপরই সিদ্ধান্ত পালটেছেন বলে দাবি করেছেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী।

বাবুলের দাবি, রাজনীতি ছাড়ার কোনও সিদ্ধান্ত নাটক ছিল না। শেষ তিনদিনে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তার সামনে যে সুযোগ এসেছে, সেটাই তিনি দু'হাত ভরে গ্রহণ করেছেন। 

বাবুল সুপ্রিয় বলেন, ‘রাজনীতি ছাড়ার কথা মন থেকেই বলেছিলাম। আমি অত্যন্ত গর্বিত। মমতাদিদি ও অভিষেক যে দায়িত্ব আমায় দিচ্ছেন, তাতে আমি অত্যন্ত উত্তেজিত। বাংলার মানুষের উন্নতির জন্য কাজ করব। আমি জানি, আমার বিরুদ্ধে অনেক কিছু ট্রেন্ডিং হবে। আমার মনে যেটা ট্রেন্ড করছে, সেটা হল যে আমার সামনে সুযোগ এসেছে, তার জন্যই কাজ করব মন দিয়ে।’

তবে দলবদলের ফলে আসানসোলের সংসদ সদস্য পদ ছেড়ে দেবেন কিনা, তা স্পষ্টভাবে জানাননি বাবুল। তিনি জানান, বিষয়টি নিয়ে দু'একদিনের মধ্যে জানানো হবে। সঙ্গে তিনি জানান, আগামী সোমবার মমতার সঙ্গে দেখা করবেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন