তালেবানের সঙ্গে যোগাযোগ নেই বিভিন্ন দেশের আফগান দূতাবাসের
jugantor
তালেবানের সঙ্গে যোগাযোগ নেই বিভিন্ন দেশের আফগান দূতাবাসের

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৩১:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

তালেবান

তালেবান গত ১৫ আগস্ট আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করায় অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে বিভিন্ন দেশে অবস্থিত আফগান দূতাবাসগুলোর ভবিষ্যত নিয়ে। কয়েকটি দেশে অবস্থিত আফগান দূতাবাস তালেবান সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করছে না বলে রোববার একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাবেক এক কর্মকর্তা জানান, আফগান দূতাবাসগুলো অনেকটা স্বাধীনভাবে কাজ করছে। এমনকি তাদের আয়ের উৎসও জানা যাচ্ছে না।

একই কথা জানা গেছে আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকেও। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, একটি দূতাবাস এখনো ব্যাংকে কোনো অর্থ জমা দেয়নি। অন্য চারটি দূতাবাস এ ব্যাপারে কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতেই অস্বীকার করেছে।

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশ না করার শর্তে আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আরেক কর্মকর্তা জানান, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ৮০ ভাগ কর্মীই আফগানিস্তান ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাজনৈতিক বিভাগ বিভিন্ন দেশে অবস্থিত দূতাবাসগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে। কিন্তু বর্তমানে এই বিভাগে কর্মী সংখ্যা একেবারেই হাতে গোনা।

এই মুহূর্তে অধিকাংশ আফগান দূতাবাসই কাবুল প্রসাশনের সঙ্গে যোগাযোগ করছে না বলে জানিয়েছেন তিনি।
এখনো কয়েকটি দেশের দূতাবাস সাবেক মন্ত্রী হানিফ আতমার এবং সাবেক ভাইস-প্রেসিডেন্ট আমরুল্লাহ সালেহের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে জানা গেছে।

কয়েকটা দূতাবাস নিরপেক্ষভাবে কাজ করছে। আবার কয়েকটা দূতাবাস নতুন তালেবান সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।

ওই কর্মকর্তা জানান, মোট খরচের ৮০ ভাগই পাসপোর্টসহ বিভিন্ন কাজের মাধ্যমে দূতাবাস থেকেই সংগ্রহ করা হয়।

তিনি আরও জানান, ফ্রান্স ও জার্মানিতে অবস্থিত আফগান দূতাবাসের কর্মীরা ওই দেশগুলোই আশ্রয় চেয়েছিলেন।

ওই কর্মী দাবি করেন, তালেবান সরকারের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি বেশ কয়েকবার বিভিন্ন দেশে অবস্থিত রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে অনলাইনে বৈঠক করার চেষ্টা করেছেন।

গত বুধবারও তিনি রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে একটি ভার্চুয়াল বৈঠক করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু অধিকাংশ রাষ্ট্রদূত অনুপস্থিত থাকায় তা বাতিল করা হয়।

তালেবানের সঙ্গে যোগাযোগ নেই বিভিন্ন দেশের আফগান দূতাবাসের

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৩১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
তালেবান
ছবি : প্রতীকী

তালেবান গত ১৫ আগস্ট আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করায় অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে বিভিন্ন দেশে অবস্থিত আফগান দূতাবাসগুলোর ভবিষ্যত নিয়ে।  কয়েকটি দেশে অবস্থিত আফগান দূতাবাস তালেবান সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করছে না বলে রোববার একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাবেক এক কর্মকর্তা জানান, আফগান দূতাবাসগুলো অনেকটা স্বাধীনভাবে কাজ করছে।  এমনকি তাদের আয়ের উৎসও জানা যাচ্ছে না। 

একই কথা জানা গেছে আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকেও। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, একটি দূতাবাস এখনো ব্যাংকে কোনো অর্থ জমা দেয়নি। অন্য চারটি দূতাবাস এ ব্যাপারে কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতেই অস্বীকার করেছে। 

এ ব্যাপারে নাম প্রকাশ না করার শর্তে আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আরেক কর্মকর্তা জানান, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ৮০ ভাগ কর্মীই আফগানিস্তান ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাজনৈতিক বিভাগ বিভিন্ন দেশে অবস্থিত দূতাবাসগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে।  কিন্তু বর্তমানে এই বিভাগে কর্মী সংখ্যা একেবারেই হাতে গোনা। 

এই মুহূর্তে অধিকাংশ আফগান দূতাবাসই কাবুল প্রসাশনের সঙ্গে যোগাযোগ করছে না বলে জানিয়েছেন তিনি।
এখনো কয়েকটি দেশের দূতাবাস সাবেক মন্ত্রী হানিফ আতমার এবং সাবেক ভাইস-প্রেসিডেন্ট আমরুল্লাহ সালেহের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে জানা গেছে।

কয়েকটা দূতাবাস নিরপেক্ষভাবে কাজ করছে। আবার কয়েকটা দূতাবাস নতুন তালেবান সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে। 

ওই কর্মকর্তা জানান, মোট খরচের ৮০ ভাগই পাসপোর্টসহ বিভিন্ন কাজের মাধ্যমে দূতাবাস থেকেই সংগ্রহ করা হয়। 

তিনি আরও জানান, ফ্রান্স ও জার্মানিতে অবস্থিত আফগান দূতাবাসের কর্মীরা ওই দেশগুলোই আশ্রয় চেয়েছিলেন। 

ওই কর্মী দাবি করেন, তালেবান সরকারের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি বেশ কয়েকবার বিভিন্ন দেশে অবস্থিত রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে অনলাইনে বৈঠক করার চেষ্টা করেছেন।

গত বুধবারও তিনি রাষ্ট্রদূতদের সঙ্গে একটি ভার্চুয়াল বৈঠক করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু অধিকাংশ রাষ্ট্রদূত অনুপস্থিত থাকায় তা বাতিল করা হয়।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর