সরকারি নারী কর্মীদের বাড়িতে থাকার নির্দেশ দিল তালেবান
jugantor
সরকারি নারী কর্মীদের বাড়িতে থাকার নির্দেশ দিল তালেবান

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:৩৭:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

তালেবান

কাবুল পৌরসভায় কর্মরত নারী কর্মীদের কাজে না এসে বাড়িতেই থাকার নির্দেশ নিয়েছে তালেবান।

কাবুলের অন্তর্বর্তীকালীন মেয়র হামদুল্লাহ নামোনি রোববার এই নির্দেশ দিয়ে বলেন, যদি কোনো পদের জন্য পুরুষ কর্মী পাওয়া না যায়, তাহলে ওই পদে নারী কর্মী কাজ করতে পারবেন।

দেশটিতে নারীদের উপর তালেবানের চাপিয়ে দেওয়া নানা বিধিনিষেধের মধ্যেই নতুন করে এই খবর সামনে এলো বলে একটি আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম সংবাদ সম্মেলনে মেয়র জানান, কাবুল পৌরসভার সব বিভাগ মিলিয়ে প্রায় তিন হাজার কর্মী রয়েছে। এসব কর্মীদের মধ্যে এক-তৃতীয়াংশই নারী বলে জানা গেছে।

মেয়র জানান, ওই এক-তৃতীয়াংশ নারী কর্মীদের আপাতত ঘরে থাকার আদেশ দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত এই আদেশ বলবৎ থাকবে। তবে ডিজাইন ও প্রকৌশলবিষয়ক বিভাগ ও নারীদের পাবলিক টয়লেটগুলো রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে পর্যাপ্ত পুরুষ কর্মী পাওয়া না গেলে ওইসব পদে কাজের জন্য নারীদের ডাকা হতে পারে বলে জানান তিনি।

এদিকে, আফগানিস্তানের বিভিন্ন এলাকায় সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠানের নারী কর্মীদের কাজ ছেড়ে ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়েছে তালেবান সরকার। তবে তালেবান এখনো নারীদের নিয়ে অভিন্ন নীতি ঘোষণা করেনি। তবে কাবুল মেয়রের এই ঘোষণার কারণে ৫০ লাখ মিলিয়ন জনগণের শহরে বিপুল সংখ্যক নারী কর্মী কর্মচ্যূত হতে পারেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সরকারি নারী কর্মীদের বাড়িতে থাকার নির্দেশ দিল তালেবান

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৩৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
তালেবান
ছবি : প্রতীকী

কাবুল পৌরসভায় কর্মরত নারী কর্মীদের কাজে না এসে বাড়িতেই থাকার নির্দেশ নিয়েছে তালেবান। 

কাবুলের অন্তর্বর্তীকালীন মেয়র হামদুল্লাহ নামোনি রোববার এই নির্দেশ দিয়ে বলেন,  যদি কোনো পদের জন্য পুরুষ কর্মী পাওয়া না যায়, তাহলে ওই পদে নারী কর্মী কাজ করতে পারবেন। 

দেশটিতে নারীদের উপর তালেবানের চাপিয়ে দেওয়া নানা বিধিনিষেধের মধ্যেই নতুন করে এই খবর সামনে এলো বলে একটি আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। 

দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম সংবাদ সম্মেলনে মেয়র জানান,  কাবুল পৌরসভার সব বিভাগ মিলিয়ে প্রায় তিন হাজার কর্মী রয়েছে। এসব কর্মীদের মধ্যে এক-তৃতীয়াংশই নারী বলে জানা গেছে।

মেয়র জানান, ওই এক-তৃতীয়াংশ নারী কর্মীদের আপাতত ঘরে থাকার আদেশ দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত এই আদেশ বলবৎ থাকবে। তবে ডিজাইন ও প্রকৌশলবিষয়ক বিভাগ ও নারীদের পাবলিক টয়লেটগুলো রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে পর্যাপ্ত পুরুষ কর্মী পাওয়া না গেলে ওইসব পদে কাজের জন্য নারীদের ডাকা হতে পারে বলে জানান তিনি।

এদিকে, আফগানিস্তানের বিভিন্ন এলাকায় সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠানের নারী কর্মীদের কাজ ছেড়ে ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়েছে তালেবান সরকার।  তবে তালেবান এখনো নারীদের নিয়ে অভিন্ন নীতি ঘোষণা করেনি। তবে কাবুল মেয়রের এই ঘোষণার কারণে ৫০ লাখ মিলিয়ন জনগণের শহরে বিপুল সংখ্যক নারী কর্মী কর্মচ্যূত হতে পারেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন