ইরানের প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে নিউইয়র্কে বিক্ষোভ (ভিডিও)
jugantor
ইরানের প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে নিউইয়র্কে বিক্ষোভ (ভিডিও)

  যুগান্তর ডেস্ক  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৪৩:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

ইরান

নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে বক্তব্য রেখেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি। এর প্রতিবাদে নিউইয়র্কে ডিজিটাল ডিসপ্লের মাধ্যমে অহিংস বিক্ষোভ হয়েছে।

বুধবার একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাইসির বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে নিউইয়র্কে দৃষ্টিনন্দন কয়েকটি ট্রাকের ডিজিটাল ডিসপ্লেতে রাইসি বিরোধী বিভিন্ন বার্তা দেওয়া হয়। ইরানিয়ান আমেরিকান ফর লিবার্টি নামে এক সংগঠনের তরফ থেকে ওই বিক্ষোভের আয়োজন করা হয়।

ওই সংগঠন টুইটারে ওই বিক্ষোভের ভিডিও পোস্ট করেছে। ট্রাকের ডিজিটাল ডিসপ্লেতে ‘ইব্রাহিম রাইসির বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অপরাধের তদন্ত হওয়া উচিত’ আর ‘সন্ত্রাসীদের মনোনীত সরকার’ এর মতো রাইসি বিরোধী বিভিন্ন বার্তা প্রচার করা হয়।

পাশাপাশি প্রচার করা হয় রাইসির বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ সংক্রান্ত বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রচারিত সংবাদ।

ইরানের রাজধানী তেহরান থেকে মঙ্গলবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বক্তব্য রাখেন রাইসি।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের ডকুমেন্টে জানা যায় কট্টরপন্থি ইব্রাহিম রাইসি কিভাবে ডেথ কমিশনের সদস্য হিসেবে ভূমিকা পালন করেছেন। এই ডেথ কমিশন জোরপূর্বক অপহরণসহ ১৯৮৮ সালে এভিন ও গোহরদাশত কারাগারে হাজার হাজার ভিন্নমতাবলম্বী রাজনৈতিকের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে। ইরান এখন পর্যন্ত ভুক্তভোগীদের মরদেহ পদ্ধতিগতভাবে গোপন রেখেছে।

অ্যামনেস্টির রিপোর্টে বলা হয়, ইরানের বিচার বিভাগের প্রধান হিসেবে ইব্রাহিম রাইসি মানবাধিকারের প্রতি দমন-পীড়ন চালিয়েছেন।

৬০ বছর বয়সী রাইসি তার কর্মজীবনের বেশিরভাগ সময় সরকারি কৌঁসুলি হিসেবে কাজ করেছেন। তাকে ২০১৯ সালে বিচার বিভাগের প্রধান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। তারপর থেকে নির্বাচনে ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার আগ পর্যন্ত ইব্রাহিম রাইসি দেশটির বিচার বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।


ইরানের প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে নিউইয়র্কে বিক্ষোভ (ভিডিও)

 যুগান্তর ডেস্ক 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ইরান
ছবি : সংগৃহীত

নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে বক্তব্য রেখেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি।  এর প্রতিবাদে নিউইয়র্কে ডিজিটাল ডিসপ্লের মাধ্যমে অহিংস বিক্ষোভ হয়েছে।

বুধবার একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাইসির বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে নিউইয়র্কে দৃষ্টিনন্দন কয়েকটি ট্রাকের ডিজিটাল ডিসপ্লেতে রাইসি বিরোধী বিভিন্ন বার্তা দেওয়া হয়। ইরানিয়ান আমেরিকান ফর লিবার্টি নামে এক সংগঠনের তরফ থেকে ওই বিক্ষোভের আয়োজন করা হয়।

ওই সংগঠন টুইটারে ওই বিক্ষোভের ভিডিও পোস্ট করেছে। ট্রাকের ডিজিটাল ডিসপ্লেতে ‘ইব্রাহিম রাইসির বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অপরাধের তদন্ত হওয়া উচিত’ আর  ‘সন্ত্রাসীদের মনোনীত সরকার’ এর মতো রাইসি বিরোধী বিভিন্ন বার্তা প্রচার করা হয়।

পাশাপাশি প্রচার করা হয় রাইসির বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ সংক্রান্ত বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রচারিত সংবাদ। 

ইরানের রাজধানী তেহরান থেকে মঙ্গলবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বক্তব্য রাখেন রাইসি। 

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের ডকুমেন্টে জানা যায় কট্টরপন্থি ইব্রাহিম রাইসি কিভাবে ডেথ কমিশনের সদস্য হিসেবে ভূমিকা পালন করেছেন। এই ডেথ কমিশন জোরপূর্বক অপহরণসহ ১৯৮৮ সালে এভিন ও গোহরদাশত কারাগারে হাজার হাজার ভিন্নমতাবলম্বী রাজনৈতিকের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে। ইরান এখন পর্যন্ত ভুক্তভোগীদের মরদেহ পদ্ধতিগতভাবে গোপন রেখেছে।

অ্যামনেস্টির রিপোর্টে বলা হয়, ইরানের বিচার বিভাগের প্রধান হিসেবে ইব্রাহিম রাইসি মানবাধিকারের প্রতি দমন-পীড়ন চালিয়েছেন।

৬০ বছর বয়সী রাইসি তার কর্মজীবনের বেশিরভাগ সময় সরকারি কৌঁসুলি হিসেবে কাজ করেছেন। তাকে ২০১৯ সালে বিচার বিভাগের প্রধান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। তারপর থেকে নির্বাচনে ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার আগ পর্যন্ত ইব্রাহিম রাইসি দেশটির বিচার বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।


 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন