জাতিসংঘে ইরান-আফগানিস্তান নিয়ে যা বললেন সৌদি বাদশাহ
jugantor
জাতিসংঘে ইরান-আফগানিস্তান নিয়ে যা বললেন সৌদি বাদশাহ

  অনলাইন ডেস্ক  

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:১৬:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনেভাষণ প্রদান করেছেন। বুধবার এক ভাষণে সৌদি আরব জাতিসংঘের প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য উল্লেখ করে বাদশাহ সালমান বলেন, আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষা, শান্তিপূর্ণভাবে দ্বন্দ্ব সমাধান, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতিসম্মান এবং অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ না করার; জাতিসংঘের উদ্দেশ্য ও নীতি মেনে চলতে তার দেশ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

ভাষণে বাদশাহ সালমান ইরান, ইয়েমেন, মিশর ও আফগানিস্তান নিয়ে কথা বলেন। তিনি বলেন, সৌদি আরব প্রতিনিয়ত ঘৃণা ও বিভেদের মতো চরমপন্থি আদর্শ ছাড়াও দেশ ও জাতি বিধ্বংসী সন্ত্রাসী গ্রুপ ও সাম্প্রদায়িক মিলিশিয়াদের মুখোমুখি হচ্ছে।

ইরানের বিষয়ে বাদশাহ সালমান বলেন, প্রতিবেশী দেশ ইরানের সঙ্গে‘আলোচন ‘শুরু করারমধ্য দিয়েদৃশ্যমান আত্মবিশ্বাস তৈরি করবে।

বাদশাহ সালমান মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলে গণবিধ্বংসী সামরিক অস্ত্র মুক্তের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। ইরান যাতে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি না করতে পারে সে ব্যাপারে তিনি বিশ্ববাসীর সহযোগিতা কামনা করেন।

ইয়েমেনে যুদ্ধ বন্ধে ‘শান্তি আলোচনা’ কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে উল্লেখ করে বাদশাহ সালমান বলেন, শান্তি আলোচনা উদ্যোগের মাধ্যমে সংঘাত বন্ধ হতে পারে। কিন্তু হুতি বিদ্রোহী গোষ্ঠীশান্তি প্রস্তাব প্রত্যাখান করে সামরিক শক্তির মাধ্যমে আরওঅঞ্চল দখলে তৎপর রয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতা অর্জনেসৌদি আরব সকল উদ্যোগ সমর্থন করেবলে উল্লেখকরেন বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ।

জাতিসংঘে ইরান-আফগানিস্তান নিয়ে যা বললেন সৌদি বাদশাহ

 অনলাইন ডেস্ক 
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:১৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ভাষণ প্রদান করেছেন। বুধবার এক ভাষণে সৌদি আরব জাতিসংঘের প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য উল্লেখ করে বাদশাহ সালমান বলেন, আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষা, শান্তিপূর্ণভাবে দ্বন্দ্ব সমাধান, স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতি সম্মান এবং অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ না করার; জাতিসংঘের উদ্দেশ্য  ও নীতি মেনে চলতে তার দেশ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। 

ভাষণে বাদশাহ সালমান ইরান, ইয়েমেন, মিশর ও আফগানিস্তান নিয়ে কথা বলেন।  তিনি বলেন, সৌদি আরব প্রতিনিয়ত ঘৃণা ও বিভেদের মতো চরমপন্থি আদর্শ ছাড়াও দেশ ও জাতি বিধ্বংসী সন্ত্রাসী গ্রুপ ও সাম্প্রদায়িক মিলিশিয়াদের মুখোমুখি হচ্ছে।

ইরানের বিষয়ে বাদশাহ সালমান বলেন, প্রতিবেশী দেশ ইরানের সঙ্গে ‘আলোচন ‘ শুরু করার মধ্য দিয়ে দৃশ্যমান আত্মবিশ্বাস তৈরি করবে।

বাদশাহ সালমান মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলে গণবিধ্বংসী সামরিক অস্ত্র মুক্তের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। ইরান যাতে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি না করতে পারে সে ব্যাপারে তিনি বিশ্ববাসীর সহযোগিতা কামনা করেন।

ইয়েমেনে যুদ্ধ বন্ধে ‘শান্তি আলোচনা’ কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে উল্লেখ করে বাদশাহ সালমান বলেন, শান্তি আলোচনা উদ্যোগের মাধ্যমে সংঘাত বন্ধ হতে পারে। কিন্তু হুতি বিদ্রোহী গোষ্ঠী শান্তি প্রস্তাব প্রত্যাখান করে সামরিক শক্তির মাধ্যমে আরও অঞ্চল দখলে তৎপর রয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

আফগানিস্তানে শান্তি ও স্থিতিশীলতা অর্জনে সৌদি আরব সকল উদ্যোগ সমর্থন করে বলে উল্লেখ করেন বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন