আফগানিস্তানে সংবাদপত্রের মুদ্রণ বন্ধ
jugantor
আফগানিস্তানে সংবাদপত্রের মুদ্রণ বন্ধ

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:২৭:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

তালেবান

আফগানিস্তানের ১৫০টি সংবাদপত্রের মুদ্রণ বন্ধ হয়ে গেছে। অর্থনৈতিক সংকটের কারণে এসব সংবাদপত্রের মুদ্রণ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে আফগানিস্তানের ন্যাশনাল জার্নালিস্ট ইউনিয়ন বুধবার জানিয়েছে।

সাবেক সরকারের পতনের পর থেকেই আফগানিস্তানে বন্ধ রয়েছে সংবাদপত্র ও ম্যাগাজিনের মুদ্রণ। অনেক প্রিন্ট মিডিয়া অনলাইনে কার্যক্রম চালাচ্ছে। আবার অনেক প্রিন্ট মিডিয়া পুরোপুরিই বন্ধ হয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে ন্যাশনাল জার্নালিস্ট ইউনিয়নের প্রধান নির্বাহী আহমেদ শোয়াইব ফানা জানান, দেশে প্রিন্ট মিডিয়ার কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে। পরিস্থিতি এ রকম থাকলে আমরা সামাজিক সংকটের মুখোমুখি হবো।

আফগানিস্তানের এক স্থানীয় সংবাদপত্র এইট সওবের সাংবাদিক আলী হাকমল জানান, তাদের সংবাদপত্র এখন অনলাইনে কার্যক্রম চালাচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা মানুষের প্রত্যাশা পূরণের চেষ্টা করছি। আমরা অনলাইন রিপোর্টিং এর ওপর জোর দিচ্ছি।

আইট সওব পত্রিকার উপপ্রধান আশাক আলী এহসাস জানান, প্রতিদিন ১৫ হাজার সংবাদপত্র প্রকাশিত হতো। এসব সংবাদপত্র রাজধানী কাবুলসহ কয়েকটি প্রদেশেও পাঠানো হতো। সরকারের পতনের পর সংবাদপত্র ছাপানো ও বিতরণ নিয়ে সমস্যার কারণে পত্রিকার মুদ্রণ বন্ধ হয়ে গেছে।

আফগানিস্তানের আরেকটি বিখ্যাত পত্রিকা আরমান মিলির মুদ্রণও বন্ধ হয়ে গেছে। পত্রিকাটির প্রতিষ্ঠাতা সায়েদ শোয়েক পারসা জানান, আমাদের ২২ জন কর্মী ছিল। তাদের সবাই চাকরি হারিয়েছে। আমরা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার জন্য অপেক্ষা করছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই আমরা ফের পত্রিকার মুদ্রণ শুরু করব।

আফগানিস্তানে সংবাদপত্রের মুদ্রণ বন্ধ

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:২৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
তালেবান
ছবি : প্রতীকী

আফগানিস্তানের ১৫০টি সংবাদপত্রের মুদ্রণ বন্ধ হয়ে গেছে।  অর্থনৈতিক সংকটের কারণে এসব সংবাদপত্রের মুদ্রণ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে আফগানিস্তানের ন্যাশনাল জার্নালিস্ট ইউনিয়ন বুধবার জানিয়েছে। 

সাবেক সরকারের পতনের পর থেকেই আফগানিস্তানে বন্ধ রয়েছে সংবাদপত্র ও ম্যাগাজিনের মুদ্রণ।  অনেক প্রিন্ট মিডিয়া অনলাইনে কার্যক্রম চালাচ্ছে।  আবার অনেক প্রিন্ট মিডিয়া পুরোপুরিই বন্ধ হয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে ন্যাশনাল জার্নালিস্ট ইউনিয়নের প্রধান নির্বাহী আহমেদ শোয়াইব ফানা জানান, দেশে প্রিন্ট মিডিয়ার কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে।  পরিস্থিতি এ রকম থাকলে আমরা সামাজিক সংকটের মুখোমুখি হবো। 

আফগানিস্তানের এক স্থানীয় সংবাদপত্র এইট সওবের সাংবাদিক আলী হাকমল জানান, তাদের সংবাদপত্র এখন অনলাইনে কার্যক্রম চালাচ্ছে। 

তিনি বলেন, আমরা মানুষের প্রত্যাশা পূরণের চেষ্টা করছি। আমরা অনলাইন রিপোর্টিং এর ওপর জোর দিচ্ছি। 

আইট সওব পত্রিকার উপপ্রধান আশাক আলী এহসাস জানান, প্রতিদিন ১৫ হাজার সংবাদপত্র প্রকাশিত হতো। এসব সংবাদপত্র রাজধানী কাবুলসহ কয়েকটি প্রদেশেও পাঠানো হতো। সরকারের পতনের পর সংবাদপত্র ছাপানো ও বিতরণ নিয়ে সমস্যার কারণে পত্রিকার মুদ্রণ বন্ধ হয়ে গেছে।

আফগানিস্তানের আরেকটি বিখ্যাত পত্রিকা আরমান মিলির মুদ্রণও বন্ধ হয়ে গেছে। পত্রিকাটির প্রতিষ্ঠাতা সায়েদ শোয়েক পারসা জানান, আমাদের ২২ জন কর্মী ছিল। তাদের সবাই চাকরি হারিয়েছে। আমরা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার জন্য অপেক্ষা করছি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই আমরা ফের পত্রিকার মুদ্রণ শুরু করব। 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন