এক চোখ ও এক পা হারানো সেই নুরুদ্দিনই আফগানিস্তানের আইনমন্ত্রী 
jugantor
এক চোখ ও এক পা হারানো সেই নুরুদ্দিনই আফগানিস্তানের আইনমন্ত্রী 

  অনলাইন ডেস্ক  

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:১০:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

আইনমন্ত্রী মোল্লা নুরুদ্দিন তুরাবি

ধর্মীয় মূল্যবোধ প্রচার ও অপকর্ম প্রতিরোধ মন্ত্রণালয়ের প্রধান ও আইনমন্ত্রী মোল্লা নুরুদ্দিন তুরাবির এক চোখ ও এক পা নেই।

তিনি রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধে ওই দুই অঙ্গ হারিয়েছিলেন।

তালেবানি শাসনের প্রথম আমলে নুরুদ্দিন ছিলেন আফগানিস্তানের আইনমন্ত্রী। কারাগারের ভারপ্রাপ্ত প্রধান হিসেবে তিনি দায়িত্বপালন করেছেন তিনি। ইসলামিক আইন কিভাবে বলবৎ করা হবে বা তা ঠিকঠাক বলবৎ হচ্ছে কিনা, সেটা নুরুদ্দিনই দেখাশোনা করতেন। দ্বিতীয় তালিবানি শাসনেও তার হাতে পড়ল সেই দায়িত্ব।

বার্তা সংস্থা এপির খবরে বলা হয়, ১৯৯৬-২০০১'র শাসনামলে অপরাধীকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করা হতো। চুরি বা সামান্য কম মাত্রার অপরাধে হাত-পা কেটে দিত। এবারও সেই শাসনব্যবস্থারই ঘোষণা দিয়েছেন তালেবান বিচারমন্ত্রী মোল্লা নুরুদ্দিন তুরাবি।

শুক্রবার বার্তাসংস্থা এপিকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে তিনি জানিয়েছেন, অপরাধ দমনে মৃত্যুদণ্ড ও হাত কাটার শাস্তিতে ফিরছে তালেবান।

তিনি বলেন, আগের শাসনামলের মতো ইসলামী আইন প্রয়োগ করে অপরাধ দমনে সচেষ্ট হবেন তারা।

নুরুদ্দিন তুরাবি শুক্রবার বলেন, ‘আগের আমলে স্টেডিয়ামে, মসজিদে কিংবা ঈদগাহ মাঠে মৃত্যুযদণ্ড কার্যকরের ক্ষেত্রে আমরা সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছিলাম। আমি বলতে চাই, আমরা কখনো সমালোচনাকারীদের আইন ও বিচারের বিষয়ে কোনো কথা বলিনি। আমাদের ব্যাপারেও তাদের কথা বলা উচিত নয়। আমরা ইসলাম মেনে চলব। কুরআনের ভিত্তিতে আমাদের আইন তৈরি করব।’

তবে এবার প্রকাশ্য মৃত্যুদণ্ডের বিধান না-ও থাকতে পারে বলে জানান তিনি।

তুরাবি জানান, ‘সাধারণত ইসলামী আইনে দোষী সাব্যস্ত হত্যাকারীর মাথায় গুলি করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। এক্ষেত্রে ভুক্তভোগীর পরিবারের কেউ গুলি চালানোর দায়িত্ব পায়। তবে রক্তের টাকা পরিশোধের মাধ্যমে অপরাধীর বেঁচে থাকার সুযোগ ছিল। হাইওয়েতে ডাকাতির জন্য দোষী সাব্যস্ত হলে তাদের একটি হাত এবং একটি পা কেটে ফেলা হয়।'

তিনি বলেন, ‘আমরা চাই ইসলামি আইন ও বিধিতে একটি শান্তিপূর্ণ দেশ। শান্তি ও ইসলামি শাসন আমাদের একমাত্র চাওয়া। আমাদের আগের শাসনেও মানুষ খুব শান্তিতে ছিল। অপরাধীদের কোনো ছাড় দেওয়া হয়নি বলে মানুষের মাঝেঅপরাধপ্রবণতা কম ছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘কোনো অপরাধের বিচারের জন্য চার সাক্ষী থাকতে হবে। যদি সাক্ষীদের বয়ানে সামান্য পার্থক্য থাকে তাহলে কোনো শাস্তি হবে না। কিন্তু যদি সবাই একই কথা বলে তাহলে শাস্তি হবে। সুপ্রিমকোর্ট এমন বিষয়ের দেখাশোনা করবে। তারা যদি দোষী হয়, তাহলে শাস্তি পাবে।

কাবুলের বাসিন্দা আমান এপিকে বলেন, ‘অপরাধীদের জনসমক্ষে লজ্জিত হতে দেখা ভালো ব্যাপার নয়। কিন্তু, এটা অপরাধ দমনে সহায়ক। কারণ, মানুষ এটা দেখে সতর্ক হবে, যেন তাদের ক্ষেত্রে এমনটি না ঘটে।

সূত্র: এএফপি, ডেইলি মেইল

এক চোখ ও এক পা হারানো সেই নুরুদ্দিনই আফগানিস্তানের আইনমন্ত্রী 

 অনলাইন ডেস্ক 
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আইনমন্ত্রী মোল্লা নুরুদ্দিন তুরাবি
আফগানিস্তানের আইনমন্ত্রী মোল্লা নুরুদ্দিন তুরাবি। ছবি: ডেইলি মেইল

ধর্মীয় মূল্যবোধ প্রচার ও অপকর্ম প্রতিরোধ মন্ত্রণালয়ের প্রধান ও আইনমন্ত্রী মোল্লা নুরুদ্দিন তুরাবির এক চোখ ও এক পা নেই। 

তিনি রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধে ওই দুই অঙ্গ হারিয়েছিলেন। 

তালেবানি শাসনের প্রথম আমলে নুরুদ্দিন ছিলেন আফগানিস্তানের আইনমন্ত্রী। কারাগারের ভারপ্রাপ্ত প্রধান হিসেবে তিনি দায়িত্বপালন করেছেন তিনি। ইসলামিক আইন কিভাবে বলবৎ করা হবে বা তা ঠিকঠাক বলবৎ হচ্ছে কিনা, সেটা নুরুদ্দিনই দেখাশোনা করতেন। দ্বিতীয় তালিবানি শাসনেও তার হাতে পড়ল সেই দায়িত্ব।  

বার্তা সংস্থা এপির খবরে বলা হয়,  ১৯৯৬-২০০১'র শাসনামলে অপরাধীকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করা হতো। চুরি বা সামান্য কম মাত্রার অপরাধে হাত-পা কেটে দিত। এবারও সেই শাসনব্যবস্থারই ঘোষণা দিয়েছেন তালেবান বিচারমন্ত্রী  মোল্লা নুরুদ্দিন তুরাবি। 

শুক্রবার বার্তাসংস্থা এপিকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে তিনি জানিয়েছেন, অপরাধ দমনে মৃত্যুদণ্ড ও হাত কাটার শাস্তিতে ফিরছে তালেবান।  

তিনি বলেন, আগের শাসনামলের মতো ইসলামী আইন প্রয়োগ করে অপরাধ দমনে সচেষ্ট হবেন তারা। 

নুরুদ্দিন তুরাবি শুক্রবার বলেন, ‘আগের আমলে স্টেডিয়ামে, মসজিদে কিংবা ঈদগাহ মাঠে মৃত্যুযদণ্ড কার্যকরের ক্ষেত্রে আমরা সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছিলাম। আমি বলতে চাই, আমরা কখনো সমালোচনাকারীদের আইন ও বিচারের বিষয়ে কোনো কথা বলিনি। আমাদের ব্যাপারেও তাদের কথা বলা উচিত নয়। আমরা ইসলাম মেনে চলব। কুরআনের ভিত্তিতে আমাদের আইন তৈরি করব।’

তবে এবার প্রকাশ্য মৃত্যুদণ্ডের বিধান না-ও থাকতে পারে বলে জানান তিনি।

তুরাবি জানান, ‘সাধারণত ইসলামী আইনে দোষী সাব্যস্ত হত্যাকারীর মাথায় গুলি করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। এক্ষেত্রে ভুক্তভোগীর পরিবারের কেউ গুলি চালানোর দায়িত্ব পায়। তবে রক্তের টাকা পরিশোধের মাধ্যমে অপরাধীর বেঁচে থাকার সুযোগ ছিল। হাইওয়েতে ডাকাতির জন্য দোষী সাব্যস্ত হলে তাদের একটি হাত এবং একটি পা কেটে ফেলা হয়।'

তিনি বলেন, ‘আমরা চাই ইসলামি আইন ও বিধিতে একটি শান্তিপূর্ণ দেশ। শান্তি ও ইসলামি শাসন আমাদের একমাত্র চাওয়া। আমাদের আগের শাসনেও মানুষ খুব শান্তিতে ছিল। অপরাধীদের কোনো ছাড় দেওয়া হয়নি বলে মানুষের মাঝে অপরাধপ্রবণতা কম ছিল।’

তিনি আরও বলেন,  ‘কোনো অপরাধের বিচারের জন্য চার সাক্ষী থাকতে হবে। যদি সাক্ষীদের বয়ানে সামান্য পার্থক্য থাকে তাহলে কোনো শাস্তি হবে না। কিন্তু যদি সবাই একই কথা বলে তাহলে শাস্তি হবে। সুপ্রিমকোর্ট এমন বিষয়ের দেখাশোনা করবে। তারা যদি দোষী হয়, তাহলে শাস্তি পাবে।

কাবুলের বাসিন্দা আমান এপিকে বলেন, ‘অপরাধীদের জনসমক্ষে লজ্জিত হতে দেখা ভালো ব্যাপার নয়। কিন্তু, এটা অপরাধ দমনে সহায়ক। কারণ, মানুষ এটা দেখে সতর্ক হবে, যেন তাদের ক্ষেত্রে এমনটি না ঘটে।

সূত্র: এএফপি, ডেইলি মেইল
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : আফগানিস্তানে তালেবানের পুনরুত্থান