২০০ কোটি টাকার প্রতারণা মামলায় আবারও তলব জ্যাকুলিনকে
jugantor
২০০ কোটি টাকার প্রতারণা মামলায় আবারও তলব জ্যাকুলিনকে

  অনলাইন ডেস্ক  

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৪৬:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রায় ২০০ কোটি টাকার প্রতারণা মামলায় শনিবার এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের (ইডি) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হয় বলিউড অভিনেত্রী জ্যাকুলিন ফার্নান্ডেজকে।

এ নিয়ে দ্বিতীয়বার তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকে তদন্তকারী সংস্থাটি। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

র‌্যানব্যাক্সি সংস্থার সাবেক মালিক শিবেন্দ্র সিংহ ও মালবেন্দ্র সিংহের পরিবারের সঙ্গে ২০০ কোটি টাকার প্রতারণা করার অভিযোগ রয়েছে সুকেশ চন্দ্রশেখরের বিরুদ্ধে।

ইডির দাবি, এই প্রতারণার মূল হোতা সুকেশ। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে এফআইআর রয়েছে। সুকেশ বর্তমানে রোহিনী জেলে বন্দি।

তদন্তকারী সংস্থার সূত্রের দাবি, জেলবন্দি অবস্থাতেই জ্যাকলিনের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল সুকেশের। এ নিয়েই তদন্তকারীদের নজরে আসেন অভিনেত্রী।

প্রতারণার মামলাটিতে গত মাসেই জ্যাকলিনকে পাঁচ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলেন ইডির তদন্তকারীরা। ৩৬ বছর বয়সি বলিউডের অভিনেত্রীকে শনিবার দ্বিতীয়বারের জন্য ডেকে পাঠানো হয়েছিল।

কিন্তু ইডির দপ্তরে উপস্থিত হননি তিনি। তদন্তকারীরা মনে করছেন, স্ত্রী লীনার মাধ্যমেই শ্রীলংকার অভিনেত্রী জ্যাকুলিনের সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল সুকেশের।

দিল্লি পুলিশের আর্থিক অপরাধ দমন শাখা সুকেশ ও অন্য কয়েকজনের বিরুদ্ধে প্রতারণা, ষড়যন্ত্র ও ২০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ এনে এফআইআর করেছে।

এ মামলার সূত্রে ২৪ আগস্ট তদন্তকারীরা চেন্নাইয়ে সাড়ে ৮২ লাখ টাকা মূল্যের একটি বাংলো, এক ডজন বিলাসবহুল গাড়ি ও নগদ অর্থ বাজেয়াপ্ত করেছে।

ইডি সূত্রের দাবি, তদন্তে যেসব তথ্য মিলেছে, তার ওপরে ভিত্তি করেই জ্যাকুলিনকে জিজ্ঞাসাবাদ করার প্রয়োজন।

২০০ কোটি টাকার প্রতারণা মামলায় আবারও তলব জ্যাকুলিনকে

 অনলাইন ডেস্ক 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৪৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রায় ২০০ কোটি টাকার প্রতারণা মামলায় শনিবার এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের (ইডি) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হয় বলিউড অভিনেত্রী জ্যাকুলিন ফার্নান্ডেজকে।

এ নিয়ে দ্বিতীয়বার তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকে তদন্তকারী সংস্থাটি। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

র‌্যানব্যাক্সি সংস্থার সাবেক মালিক শিবেন্দ্র সিংহ ও মালবেন্দ্র সিংহের পরিবারের সঙ্গে ২০০ কোটি টাকার প্রতারণা করার অভিযোগ রয়েছে সুকেশ চন্দ্রশেখরের বিরুদ্ধে।

ইডির দাবি, এই প্রতারণার মূল হোতা সুকেশ। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে এফআইআর রয়েছে। সুকেশ বর্তমানে রোহিনী জেলে বন্দি।

তদন্তকারী সংস্থার সূত্রের দাবি, জেলবন্দি অবস্থাতেই জ্যাকলিনের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল সুকেশের। এ নিয়েই তদন্তকারীদের নজরে আসেন অভিনেত্রী।

প্রতারণার মামলাটিতে গত মাসেই জ্যাকলিনকে পাঁচ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলেন ইডির তদন্তকারীরা। ৩৬ বছর বয়সি বলিউডের অভিনেত্রীকে শনিবার দ্বিতীয়বারের জন্য ডেকে পাঠানো হয়েছিল।

কিন্তু ইডির দপ্তরে উপস্থিত হননি তিনি। তদন্তকারীরা মনে করছেন, স্ত্রী লীনার মাধ্যমেই শ্রীলংকার অভিনেত্রী জ্যাকুলিনের সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল সুকেশের।

দিল্লি পুলিশের আর্থিক অপরাধ দমন শাখা সুকেশ ও অন্য কয়েকজনের বিরুদ্ধে প্রতারণা, ষড়যন্ত্র ও ২০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ এনে এফআইআর করেছে।

এ মামলার সূত্রে ২৪ আগস্ট তদন্তকারীরা চেন্নাইয়ে সাড়ে ৮২ লাখ টাকা মূল্যের একটি বাংলো, এক ডজন বিলাসবহুল গাড়ি ও নগদ অর্থ বাজেয়াপ্ত করেছে।

ইডি সূত্রের দাবি, তদন্তে যেসব তথ্য মিলেছে, তার ওপরে ভিত্তি করেই জ্যাকুলিনকে জিজ্ঞাসাবাদ করার প্রয়োজন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন