জার্মানির নির্বাচনে পিছিয়ে আছে অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের দল
jugantor
জার্মানির নির্বাচনে পিছিয়ে আছে অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের দল
বুথফেরত সমীক্ষা

  অনলাইন ডেস্ক  

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:১৬:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

জার্মানিতে চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের আশীর্বাদপুষ্ট উত্তরসূরি আরমিন লাশেট হাল ছাড়তে অস্বীকার করলেও রোববারের নির্বাচনে মধ্য বামপন্থি দল এসপিডি সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে।

তবে নির্বাচনে বেশ হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে বলে জানা গেছে। আরমিন লাশেট সরকার গঠনের সংকল্প ব্যক্ত করলেও বলা হচ্ছে ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন অফ জার্মানি বা সিডিইউর জন্য এই নির্বাচনটি ছিল তাদের ইতিহাসের সবচেয়ে বাজে নির্বাচন। খবর বিবিসির।

নির্বাচনের চূড়ান্ত ফল এখনও পাওয়া যায়নি, তবে খুব ছোট ব্যবধানে মধ্য বামপন্থি দল সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি এসপিডি জয়ের পথে এগোচ্ছে বলে মনে হচ্ছে।

এসপিডি দলের নেতা ওলাফ শলৎজ বলেছেন, সরকার গঠনে তার দল ভোটে স্পষ্ট রায় পেয়েছে। ভোটের ২৫.৮ শতাংশ পেয়ে এগিয়ে তার দল এসপিডি। ২৪.১ শতাংশ ভোট পেয়েছে অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের সিডিইউ ও তার শরিক দল।

সমর্থকরা ব্যাপক উচ্ছ্বাসের সঙ্গে ওলাফ শলৎজকে অভ্যর্থনা জানিয়েছে। পরে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ভোটাররা একটি 'বাস্তবধর্মী সরকার' গঠনে তাকে দায়িত্ব দিয়েছে।

বুথফেরত জরিপে দুদলই সমান ভোট পাচ্ছে বলে মনে হচ্ছিল। কিন্তু শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত অপ্রত্যাশিত পূর্বাভাস আসছিল এবং এই ফলই যে শেষ নয় এমন ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছিল।

আরমিন লাশেট অবশ্য বলছেন, সবচেয়ে বেশি ভোট পেলেই জয়ী হওয়া যাবে না। পুরো বিষয়টি এখন অঙ্কের হিসাব।

সরকার গঠনের চাবিকাঠি রয়েছে ১৪.৬ শতাংশ ভোট পাওয়া গ্রিনস এবং ১১.৫ শতাংশ ভোট পাওয়া এফডিপি দলের হাতে।

জোট সরকার গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ছোট এই দল দুটিই ৩০ বছর বয়সের নিচে জার্মান নাগরিকদের পছন্দ। সব মিলিয়ে জটিল আকার ধারণ করেছে এই নির্বাচনের ফল।

তবে এটি পরিষ্কার যে একটি জোট সরকার গঠন না হওয়া পর্যন্ত কোথাও যাচ্ছেন না বিদায়ী চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল।

জার্মানির নির্বাচনে পিছিয়ে আছে অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের দল

বুথফেরত সমীক্ষা
 অনলাইন ডেস্ক 
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:১৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জার্মানিতে চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের আশীর্বাদপুষ্ট উত্তরসূরি আরমিন লাশেট হাল ছাড়তে অস্বীকার করলেও রোববারের নির্বাচনে মধ্য বামপন্থি দল এসপিডি সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে।

তবে নির্বাচনে বেশ হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে বলে জানা গেছে। আরমিন লাশেট সরকার গঠনের সংকল্প ব্যক্ত করলেও বলা হচ্ছে ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ইউনিয়ন অফ জার্মানি বা সিডিইউর জন্য এই নির্বাচনটি ছিল তাদের ইতিহাসের সবচেয়ে বাজে নির্বাচন। খবর বিবিসির।

নির্বাচনের চূড়ান্ত ফল এখনও পাওয়া যায়নি, তবে খুব ছোট ব্যবধানে মধ্য বামপন্থি দল সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি এসপিডি জয়ের পথে এগোচ্ছে বলে মনে হচ্ছে।

এসপিডি দলের নেতা ওলাফ শলৎজ বলেছেন, সরকার গঠনে তার দল ভোটে স্পষ্ট রায় পেয়েছে। ভোটের ২৫.৮ শতাংশ পেয়ে এগিয়ে তার দল এসপিডি। ২৪.১ শতাংশ ভোট পেয়েছে অ্যাঙ্গেলা মেরকেলের সিডিইউ ও তার শরিক দল।

সমর্থকরা ব্যাপক উচ্ছ্বাসের সঙ্গে ওলাফ শলৎজকে অভ্যর্থনা জানিয়েছে। পরে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ভোটাররা একটি 'বাস্তবধর্মী সরকার' গঠনে তাকে দায়িত্ব দিয়েছে।

বুথফেরত জরিপে দুদলই সমান ভোট পাচ্ছে বলে মনে হচ্ছিল। কিন্তু শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত অপ্রত্যাশিত পূর্বাভাস আসছিল এবং এই ফলই যে শেষ নয় এমন ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছিল।

আরমিন লাশেট অবশ্য বলছেন, সবচেয়ে বেশি ভোট পেলেই জয়ী হওয়া যাবে না। পুরো বিষয়টি এখন অঙ্কের হিসাব।

সরকার গঠনের চাবিকাঠি রয়েছে ১৪.৬ শতাংশ ভোট পাওয়া গ্রিনস এবং ১১.৫ শতাংশ ভোট পাওয়া এফডিপি দলের হাতে।

জোট সরকার গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ছোট এই দল দুটিই ৩০ বছর বয়সের নিচে জার্মান নাগরিকদের পছন্দ। সব মিলিয়ে জটিল আকার ধারণ করেছে এই নির্বাচনের ফল।

তবে এটি পরিষ্কার যে একটি জোট সরকার গঠন না হওয়া পর্যন্ত কোথাও যাচ্ছেন না বিদায়ী চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মেরকেল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন