মার্কিন সেনাদের ক্ষমতা শুধু হলিউডের ফিল্মেই: খামেনি
jugantor
মার্কিন সেনাদের ক্ষমতা শুধু হলিউডের ফিল্মেই: খামেনি

  অনলাইন ডেস্ক  

০৪ অক্টোবর ২০২১, ১৩:১০:০৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি বলেছেন, মার্কিন সেনাবাহিনীর শক্তিমত্তা কেবল হলিউডের সেলুলয়েডের পর্দাই দেখা যায়, বাস্তবতা ভিন্ন।

আফগানিস্তানে তালেবানের কাছে পরাজিত হয়ে তারা তা আরও একবার প্রমাণ করেছেন। খবর তাসনিম নিউজের।

খামেনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র তালেবানকে ধ্বংস করার উদ্দেশ্যে ২০ বছর আগে আফগানিস্তান দখল করেছিল। গত দুই দশকে তারা গণহত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞ ছাড়া দেশটিকে আর কিছুই উপহার দিতে পারেনি।

অবশেষে তারা সেই তালেবানের হাতে আফগানিস্তানের ক্ষমতা হস্তান্তর করে চলে গেছে। এ ঘটনায় বিশ্বের বহুদেশের শিক্ষনীয় বিষয় রয়েছে।

রোববার ইরানের সামরিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর গ্র্যাজুয়েটদের পাস-আউট অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে খামেনি ভার্চুয়ালি যুক্ত হন। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা পদাধিকারবলে দেশের সশস্ত্র বাহিনীর সর্বাধিনায়ক।

আয়াতুল্লাহ খামেনি বলেন, বিদেশি শক্তির ওপর নির্ভরতার মাধ্যমে যেসব দেশ নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায়, তারা মারাত্মক ভুলের মধ্যে রয়েছে। নিরাপত্তা, যুদ্ধ ও শান্তিতে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে বিদেশি শক্তির ওপর নির্ভরশীলতার পরিণতি মারাত্মক বিপর্যয় ছাড়া আর কিছু হয় না।

আমেরিকা ও ইউরোপের সম্পর্কে টানাপোড়েনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ইউরোপের কোনো কোনো দেশ আমেরিকার পদক্ষেপকে পেছন থেকে ছুরিকাঘাত হিসেবে উল্লেখ করেছে। এসব দেশ এ কথা বলতে চেয়েছে যে, ইউরোপকে ন্যাটো তথা আমেরিকার ওপর নির্ভরশীলতা বাদ দিয়ে নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।’

মার্কিন সেনাদের ক্ষমতা শুধু হলিউডের ফিল্মেই: খামেনি

 অনলাইন ডেস্ক 
০৪ অক্টোবর ২০২১, ০১:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি বলেছেন, মার্কিন সেনাবাহিনীর শক্তিমত্তা কেবল হলিউডের সেলুলয়েডের পর্দাই দেখা যায়, বাস্তবতা ভিন্ন।

আফগানিস্তানে তালেবানের কাছে পরাজিত হয়ে তারা তা আরও একবার প্রমাণ করেছেন। খবর তাসনিম নিউজের।

খামেনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র তালেবানকে ধ্বংস করার উদ্দেশ্যে ২০ বছর আগে আফগানিস্তান দখল করেছিল। গত দুই দশকে তারা গণহত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞ ছাড়া দেশটিকে আর কিছুই উপহার দিতে পারেনি।

অবশেষে তারা সেই তালেবানের হাতে আফগানিস্তানের ক্ষমতা হস্তান্তর করে চলে গেছে। এ ঘটনায় বিশ্বের বহুদেশের শিক্ষনীয় বিষয় রয়েছে।

রোববার ইরানের সামরিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর গ্র্যাজুয়েটদের পাস-আউট অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে খামেনি ভার্চুয়ালি যুক্ত হন। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা পদাধিকারবলে দেশের সশস্ত্র বাহিনীর সর্বাধিনায়ক।

আয়াতুল্লাহ খামেনি বলেন, বিদেশি শক্তির ওপর নির্ভরতার মাধ্যমে যেসব দেশ নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায়, তারা মারাত্মক ভুলের মধ্যে রয়েছে। নিরাপত্তা, যুদ্ধ ও শান্তিতে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে বিদেশি শক্তির ওপর নির্ভরশীলতার পরিণতি মারাত্মক বিপর্যয় ছাড়া আর কিছু হয় না।

আমেরিকা ও ইউরোপের সম্পর্কে টানাপোড়েনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ইউরোপের কোনো কোনো দেশ আমেরিকার পদক্ষেপকে পেছন থেকে ছুরিকাঘাত হিসেবে উল্লেখ করেছে। এসব দেশ এ কথা বলতে চেয়েছে যে, ইউরোপকে ন্যাটো তথা আমেরিকার ওপর নির্ভরশীলতা বাদ দিয়ে নিজেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : মার্কিন-ইরান সংকট