আফগানিস্তানে তুরস্কের বিনিয়োগ চায় তালেবান 
jugantor
আফগানিস্তানে তুরস্কের বিনিয়োগ চায় তালেবান 

  অনলাইন ডেস্ক  

১৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৪৫:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় তালেবান পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুত্তাকীকে স্বাগত জানাচ্ছেন তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভাসুগলু

আফগানিস্তানে বিনিয়োগ করে দেশটির সংস্কারে ভূমিকা রাখতে তুরস্কের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে তালেবান সরকার। একই সঙ্গে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিয়ে দেশটির অর্থনৈতিক পরিস্থিতি উন্নয়নে আন্তর্জাতিক বিশ্বের সহায়তা চেয়েছেন তারা।

আফগানিস্তানের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকী তুরস্কের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম আনাদোলু এজেন্সিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এ আহ্বান জানান।

তুরস্কের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তুরস্ক চাইলে আফগানিস্তানে বিনিয়োগ করে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখতে পারে, আমাদের দেশে তারা বিভিন্ন প্রকল্প নিতে পারে, আফগানিস্তানের পুনর্গঠনে তুরস্ক অবদান রাখতে পারে।

গত বৃহস্পতিবার মুত্তাকীর নেতৃত্বে তালেবান প্রতিনিধি দল তুরস্কে রাষ্ট্রীয় সফরে এসে দ্বিপাক্ষিক নানা সহযোগিতা ও ভবিষ্যত আফগানিস্তান বিনির্মাণে সহায়তা চেয়েছে দেশটি।

তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভাসুগলু ও মুত্তাকী দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন।

মুত্তাকী বলেন, তালেবান সরকার ক্ষমতা নেওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রে আফগানিস্তানের রিজার্ভ জব্দ করার ঘটনার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক আইন ও মানবাধিকার লংঘন করা হয়েছে। মূল প্রশ্ন হলো-টাকা কেন আটকে থাকবে? এখানে আফগানিস্তানের নাগরিকরা কী করেছে?

তিনি বলেন, একদিকে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ বলছে, এখানে মানবিক সংকট তৈরি হয়েছে, আফগানিস্তানের মানবিক সহায়তা দিয়ে ও মানবাধিকারের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো উচিত। কিন্তু তারা ৪০ মিলিয়ন আফগানিস্তানের নাগরিকদের মৌলিক বিষয়টি এড়িয়ে যাচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে কাতারের রাজধানী দোহায় আমাদের বৈঠক হয়েছে। এছাড়াও তুরস্কের সঙ্গে আমাদের বৈঠক হয়েছে। রাষ্ট্র বলে বিশ্বে যে ব্যবস্থাটি প্রতিষ্ঠিত রয়েছে তাতে দেখা যায়, এর মধ্যে অনেকেই জোর করে ক্ষমতা দখল, কেউ ক্যু করে কিংবা নির্বাচনের মাধ্যমে হয়েছে। যাদে একজন ব্যক্তি বা একটি পরিবার তাতে প্রভাব বিস্তার করে আছে। ওরা যদি রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি পেরে তাহলে আফগানিস্তান কোন যুক্তিতে স্বীকৃতি পাবে না? আফগানিস্তান কি কোনো সার্বভৌমত্বহীন কোনো রাষ্ট্র?

আফগানিস্তানে তুরস্কের বিনিয়োগ চায় তালেবান 

 অনলাইন ডেস্ক 
১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় তালেবান পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুত্তাকীকে স্বাগত জানাচ্ছেন তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভাসুগলু
তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় তালেবান পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুত্তাকীকে স্বাগত জানাচ্ছেন তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভাসুগলু। ছবি: এএফপি

আফগানিস্তানে বিনিয়োগ করে দেশটির সংস্কারে ভূমিকা রাখতে তুরস্কের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে তালেবান সরকার। একই সঙ্গে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দিয়ে দেশটির অর্থনৈতিক পরিস্থিতি উন্নয়নে আন্তর্জাতিক বিশ্বের সহায়তা চেয়েছেন তারা। 

আফগানিস্তানের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকী তুরস্কের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম আনাদোলু এজেন্সিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এ আহ্বান জানান। 

তুরস্কের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তুরস্ক চাইলে আফগানিস্তানে বিনিয়োগ করে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখতে পারে, আমাদের দেশে তারা বিভিন্ন প্রকল্প নিতে পারে, আফগানিস্তানের পুনর্গঠনে তুরস্ক অবদান রাখতে পারে। 

গত বৃহস্পতিবার মুত্তাকীর নেতৃত্বে তালেবান প্রতিনিধি দল তুরস্কে রাষ্ট্রীয় সফরে এসে দ্বিপাক্ষিক নানা সহযোগিতা ও ভবিষ্যত আফগানিস্তান বিনির্মাণে সহায়তা চেয়েছে দেশটি।

তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভাসুগলু ও মুত্তাকী দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কের বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। 

মুত্তাকী বলেন, তালেবান সরকার ক্ষমতা নেওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রে আফগানিস্তানের রিজার্ভ জব্দ করার ঘটনার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক আইন ও মানবাধিকার লংঘন করা হয়েছে। মূল প্রশ্ন হলো-টাকা কেন আটকে থাকবে? এখানে আফগানিস্তানের নাগরিকরা কী করেছে?  

তিনি বলেন, একদিকে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ বলছে, এখানে মানবিক সংকট তৈরি হয়েছে, আফগানিস্তানের মানবিক সহায়তা দিয়ে ও মানবাধিকারের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো উচিত। কিন্তু তারা ৪০ মিলিয়ন আফগানিস্তানের নাগরিকদের মৌলিক বিষয়টি এড়িয়ে যাচ্ছে।
 
যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে কাতারের রাজধানী দোহায় আমাদের বৈঠক হয়েছে। এছাড়াও তুরস্কের সঙ্গে আমাদের বৈঠক হয়েছে। রাষ্ট্র বলে বিশ্বে যে ব্যবস্থাটি প্রতিষ্ঠিত রয়েছে তাতে দেখা যায়, এর মধ্যে অনেকেই জোর করে ক্ষমতা দখল, কেউ ক্যু করে কিংবা নির্বাচনের মাধ্যমে হয়েছে। যাদে একজন ব্যক্তি বা একটি পরিবার তাতে প্রভাব বিস্তার করে আছে। ওরা যদি রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি পেরে তাহলে আফগানিস্তান কোন যুক্তিতে স্বীকৃতি পাবে না? আফগানিস্তান কি কোনো সার্বভৌমত্বহীন কোনো রাষ্ট্র? 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : আফগানিস্তানে তালেবানের পুনরুত্থান