যে কারণে যুক্তরাষ্ট্রসহ ১০ দেশের রাষ্ট্রদূতকে তলব করল তুরস্ক
jugantor
যে কারণে যুক্তরাষ্ট্রসহ ১০ দেশের রাষ্ট্রদূতকে তলব করল তুরস্ক

  যুগান্তর ডেস্ক  

২০ অক্টোবর ২০২১, ১২:৪২:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সসহ ১০ দেশের রাষ্ট্রদূতদের ডেকে পাঠিয়েছে তুরস্ক। দেশটির নাগরিক সমাজের নেতা ওসমান কাভালার মুক্তির দাবি করার পর মঙ্গলবার ওই রাষ্ট্রদূতদের তলব করা হয় বলে তুরস্কের সরকারপন্থী এক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কাভালার মামলায় দ্রুত ও ন্যায়বিচারের দাবি জানিয়েছে গত সোমবার কানাডা, ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, নিউজিল্যান্ড, নরওয়ে, সুইডেন ও যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতরা একটি বিবৃতি জারি করেন।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ইচ্ছাকৃতভাবে বিচার প্রক্রিয়া বিলম্বিত করা হচ্ছে। যার কারণে তুরস্কের বিচারব্যবস্থার স্বচ্ছতা, গণতন্ত্র ও আইনের শাসনের প্রতি শ্রদ্ধার বিষয়টি প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়েছে বলে বিবৃতিতে দাবি করা হয়।

বিবৃতিতে তুরস্কের প্রতি কাউন্সিল অফ ইউরোপের রায় মেনে নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। তুরস্ক ১৯৫০ সালে এই মানবাধিকার সংগঠনে যোগ দিয়েছিল।

কাভালার মুক্তির ব্যাপারে কাউন্সিল অব ইউরোপ জানিয়েছে, ৩০ নভেম্বর তাদের পরবর্তী বৈঠকের আগে কাভালাকে মুক্তি না দিলে, তারা তুরস্কের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগ তুলবে এবং ব্যবস্থা নেবে।

এ ব্যাপারে টুইটারের তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কোনো চলমান মামলায় রাষ্ট্রদূতরা কোনো সুপারিশ দেবেন, এটা মেনে নেওয়া যায় না।

প্রসঙ্গত পেশায় ব্যবসায়ী কাভালা ২০১৭ থেকে কারাগারে বন্দি আছেন। তার বিরুদ্ধে ২০১৩ সালে সরকারবিরোধী বিক্ষোভের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ তোলা হয়েছে। এছাড়া ২০১৬ সালে তিনি ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানকেও সমর্থন করেছিলেন বলে অভিযোগ করা হয়। ‍যদিও ৬৪ বছর বয়সি কাভালা বরাবরই এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন।

যে কারণে যুক্তরাষ্ট্রসহ ১০ দেশের রাষ্ট্রদূতকে তলব করল তুরস্ক

 যুগান্তর ডেস্ক 
২০ অক্টোবর ২০২১, ১২:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সসহ ১০ দেশের রাষ্ট্রদূতদের ডেকে পাঠিয়েছে তুরস্ক। দেশটির নাগরিক সমাজের নেতা ওসমান কাভালার মুক্তির দাবি করার পর মঙ্গলবার ওই রাষ্ট্রদূতদের তলব করা হয় বলে তুরস্কের সরকারপন্থী এক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে জানা গেছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কাভালার মামলায় দ্রুত ও ন্যায়বিচারের দাবি জানিয়েছে গত সোমবার কানাডা, ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, ফ্রান্স, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, নিউজিল্যান্ড, নরওয়ে, সুইডেন ও যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতরা একটি বিবৃতি জারি করেন।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ইচ্ছাকৃতভাবে বিচার প্রক্রিয়া বিলম্বিত করা হচ্ছে। যার কারণে তুরস্কের বিচারব্যবস্থার স্বচ্ছতা, গণতন্ত্র ও আইনের শাসনের প্রতি শ্রদ্ধার বিষয়টি প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়েছে বলে বিবৃতিতে দাবি করা হয়।

বিবৃতিতে তুরস্কের প্রতি কাউন্সিল অফ ইউরোপের রায় মেনে নেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। তুরস্ক ১৯৫০ সালে এই মানবাধিকার সংগঠনে যোগ দিয়েছিল।

কাভালার মুক্তির ব্যাপারে কাউন্সিল অব ইউরোপ জানিয়েছে, ৩০ নভেম্বর তাদের পরবর্তী বৈঠকের আগে কাভালাকে মুক্তি না দিলে, তারা তুরস্কের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগ তুলবে এবং ব্যবস্থা নেবে।

এ ব্যাপারে টুইটারের তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কোনো চলমান মামলায় রাষ্ট্রদূতরা কোনো সুপারিশ দেবেন, এটা মেনে নেওয়া যায় না। 

প্রসঙ্গত পেশায় ব্যবসায়ী কাভালা ২০১৭ থেকে কারাগারে বন্দি আছেন। তার বিরুদ্ধে ২০১৩ সালে সরকারবিরোধী বিক্ষোভের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ তোলা হয়েছে। এছাড়া ২০১৬ সালে তিনি ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানকেও সমর্থন করেছিলেন বলে অভিযোগ করা হয়। ‍যদিও ৬৪ বছর বয়সি কাভালা বরাবরই এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন