শাখারভ পুরস্কার পেলেন কট্টর পুতিন সমালোচক নাভালনি
jugantor
শাখারভ পুরস্কার পেলেন কট্টর পুতিন সমালোচক নাভালনি

  অনলাইন ডেস্ক  

২০ অক্টোবর ২০২১, ২৩:২৮:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

নাভালনি

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) শীর্ষ মানবাধিকারবিষয়ক পুরস্কার শাখারভ পুরস্কার-২০২১ পেয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমিরি পুতিনের কট্টর সমালোচক অ্যালেক্সি নাভানলনি।

এএফপির খবরে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট পুতিনের ক্ষমতা দখলকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ‘অসীম সাহসিকতাস্বরূপ’ তাকে এই পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে।

৪৪ বছর বয়সী নাভালনি রাশিয়ার একজন সুপরিচিত ও জনপ্রিয় বিরোধী নেতা। তিনি রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কট্টর সমালোচক হিসেবে পরিচিত। নাভালনি বর্তমানে রাশিয়ায় কারাগারে আছেন

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের ইপিপি গ্রুপ শাখারভ পুরস্কার ঘোষণার পর অ্যালেক্সি নাভালনিকে মুক্তি দিতে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

নাভালনিকে গত বছরের আগস্টে হত্যার চেষ্টা করা হয়। সে সময় তিনি সাইবেরিয়ার টমসক শহর থেকে উড়োজাহাজে করে মস্কোয় ফিরছিলেন। যাত্রাপথে উড়োজাহাজেই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে বহনকারী উড়োজাহাজ সাইবেরিয়ার ওমস্কে জরুরি অবতরণ করে। সেখানকারতাকে একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। তিনি কোমায় চলে গিয়েছিলেন। পরে চিকিৎসার জন্য নাভালনিকে জার্মানির বার্লিনে নেওয়া হয়। সেখানে তিনি ধীরে ধীরে সেরে ওঠেন।

বিশেষজ্ঞদের পরীক্ষা-নিরীক্ষার ভিত্তিতে গত সেপ্টেম্বরে জার্মানি জানায়, নাভালনিকে রাশিয়ান নার্ভ এজেন্ট ‘নোভিচক’ প্রয়োগ করা হয়েছিল। পরে অন্য দেশের বিশেষজ্ঞরাও একই কথা বলেন। বিষ প্রয়োগের জন্য সরাসরি পুতিনকে দায়ী করেন নাভালনি। তবে পুতিন অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় আন্তর্জাতিক তদন্তের আহ্বানে ক্রেমলিন কর্ণপাত করেনি।

ক্রেমলিনের হুমকি উপেক্ষা করে গত ১৭ জানুয়ারি দেশে ফেরেন নাভালনি। বিমানবন্দরেই তাকে গ্রেফতারকরা হয়। অর্থ আত্মসাতের পুরোনো একটি মামলায় গত ফেব্রুয়ারি মাসে নাভালনিকে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এই দণ্ডকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে অভিহিত করেছেন নাভালনি।

সোভিয়েত ইউনিয়নের ভিন্নমতাবলম্বী আন্দ্রেই শাখারভের নামে ১৯৮৮ সাল থেকে দ্য শাখারভ পুরস্কারের প্রবর্তন করা হয়। প্রত্যেক বছর মানবাধিকার এবং গণতন্ত্রের জন্য লড়াকুদের এই পুরস্কার দেওয়া হয়।

গত বছর রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র এবং বেলারুশের প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কোর বিরোধী আন্দোলন ৫০ হাজার ইউরো মূল্যের এই পুরস্কার পায়।

চলতি বছরের এই পুরস্কার আগামী ডিসেম্বরে স্ট্রাসবুর্গে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের বিশেষ অধিবেশনে হস্তান্তর করা হবে।

শাখারভ পুরস্কার পেলেন কট্টর পুতিন সমালোচক নাভালনি

 অনলাইন ডেস্ক 
২০ অক্টোবর ২০২১, ১১:২৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নাভালনি
অ্যালেক্সি নাভালনি

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) শীর্ষ মানবাধিকারবিষয়ক পুরস্কার শাখারভ পুরস্কার-২০২১ পেয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমিরি পুতিনের কট্টর সমালোচক অ্যালেক্সি নাভানলনি। 

এএফপির খবরে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্ট পুতিনের ক্ষমতা দখলকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ‘অসীম সাহসিকতাস্বরূপ’ তাকে এই পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে।

৪৪ বছর বয়সী নাভালনি রাশিয়ার একজন সুপরিচিত ও জনপ্রিয় বিরোধী নেতা। তিনি রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কট্টর সমালোচক হিসেবে পরিচিত। নাভালনি বর্তমানে রাশিয়ায় কারাগারে আছেন

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের ইপিপি গ্রুপ শাখারভ পুরস্কার ঘোষণার পর অ্যালেক্সি নাভালনিকে মুক্তি দিতে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। 

নাভালনিকে গত বছরের আগস্টে হত্যার চেষ্টা করা হয়। সে সময় তিনি সাইবেরিয়ার টমসক শহর থেকে উড়োজাহাজে করে মস্কোয় ফিরছিলেন। যাত্রাপথে উড়োজাহাজেই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে বহনকারী উড়োজাহাজ সাইবেরিয়ার ওমস্কে জরুরি অবতরণ করে। সেখানকার তাকে একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। তিনি কোমায় চলে গিয়েছিলেন। পরে চিকিৎসার জন্য নাভালনিকে জার্মানির বার্লিনে নেওয়া হয়। সেখানে তিনি ধীরে ধীরে সেরে ওঠেন।

বিশেষজ্ঞদের পরীক্ষা-নিরীক্ষার ভিত্তিতে গত সেপ্টেম্বরে জার্মানি জানায়, নাভালনিকে রাশিয়ান নার্ভ এজেন্ট ‘নোভিচক’ প্রয়োগ করা হয়েছিল। পরে অন্য দেশের বিশেষজ্ঞরাও একই কথা বলেন। বিষ প্রয়োগের জন্য সরাসরি পুতিনকে দায়ী করেন নাভালনি। তবে পুতিন অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় আন্তর্জাতিক তদন্তের আহ্বানে ক্রেমলিন কর্ণপাত করেনি।

ক্রেমলিনের হুমকি উপেক্ষা করে গত ১৭ জানুয়ারি দেশে ফেরেন নাভালনি। বিমানবন্দরেই তাকে গ্রেফতার করা হয়। অর্থ আত্মসাতের পুরোনো একটি মামলায় গত ফেব্রুয়ারি মাসে নাভালনিকে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এই দণ্ডকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে অভিহিত করেছেন নাভালনি।

সোভিয়েত ইউনিয়নের ভিন্নমতাবলম্বী আন্দ্রেই শাখারভের নামে ১৯৮৮ সাল থেকে দ্য শাখারভ পুরস্কারের প্রবর্তন করা হয়। প্রত্যেক বছর মানবাধিকার এবং গণতন্ত্রের জন্য লড়াকুদের এই পুরস্কার দেওয়া হয়।

গত বছর রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র এবং বেলারুশের প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কোর বিরোধী আন্দোলন ৫০ হাজার ইউরো মূল্যের এই পুরস্কার পায়।

চলতি বছরের এই পুরস্কার আগামী ডিসেম্বরে স্ট্রাসবুর্গে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের বিশেষ অধিবেশনে হস্তান্তর করা হবে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর