তালেবান সরকারের কাছে বেতন চান হেরাতের শিক্ষকরা
jugantor
তালেবান সরকারের কাছে বেতন চান হেরাতের শিক্ষকরা

  অনলাইন ডেস্ক  

২১ অক্টোবর ২০২১, ১২:৫৮:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

তালেবান সরকারের কাছে বকেয়া বেতন চান হেরাতের শিক্ষকরা

আফগানিস্তানের পশ্চিমাঞ্চলের প্রদেশ হেরাতে শয়ে শয়ে শিক্ষক তালেবান সরকারের কাছে বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবি জানিয়েছেন। তারা চার মাস ধরে কোনো বেতন পাননি।

আফগানিস্তানের গণমাধ্যম টোলো নিউজ এ তথ্য জানায়।

শিক্ষকদের দাবি, তারা মারাত্মক অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের সঙ্গে লড়াই করছেন।

হেরাতের একজন শিক্ষক লতিফা আলিজাই বলেন, শিক্ষকদের এতদিন নিজের জন্য অর্থ সঞ্চয় করার জন্য ভালো বেতন ছিল না। যে বেতন পেতেন তারা তা দিয়ে দৈনন্দিন খরচ মেটাতেন।

বেশ কিছু শিক্ষক অভিযোগ করে বলেন, ক্ষুধার ভয়ে তারা ভীত। কারণ তারা পরিবারকে যথেষ্ট পরিমাণ খাদ্য সরবরাহ করতে পারছেন না। একই সঙ্গে পারছেন না শিশুদের জন্য চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে।

নাসির আহমদ হাকিমি নামের এক স্কুলশিক্ষক বলেন, অনেক শিক্ষকের বর্তমানে বাড়ির বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার মতো সামর্থ্যও নেই।

শাহাদাত আতিফ নামে অপর এক শিক্ষক বলেন, আমার মেয়ে বেশ কিছু দিন ধরে অসুস্থ। কিন্তু তাকে টাকার অভাবে চিকিৎসকের কাছে নিতে পারছি না।

তথ্য অনুযায়ী, অন্তত ১৮ হাজার শিক্ষক, যার মধ্যে ১০ হাজার নারী চার মাস ধরে কোনো বেতন পাননি।

শিক্ষকদের অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান মুহাম্মদ সাবির মাশাল বলেন, সব শিক্ষক এবং বেসামরিক কর্মচারীরা চার মাস ধরে বেতন পান না। তারা ঘরের আসবাব বিক্রি করে এতদিন টাকা জোগাড় করেছেন। এখন বিক্রি করার মতো ঘরেও তাদের কিছু নেই।

প্রদেশের শিক্ষা বিভাগের প্রধান সুহাবুদ্দিন সাকিব বলেন, শিক্ষকদের এক মাসের বেতন খুব দ্রুত দেওয়া হবে। ইসলামিক আমিরাত এ বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। বাকি মাসের বেতন এর পর ধীরে ধীরে দেওয়া হবে।

তালেবান সরকারের কাছে বেতন চান হেরাতের শিক্ষকরা

 অনলাইন ডেস্ক 
২১ অক্টোবর ২০২১, ১২:৫৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
তালেবান সরকারের কাছে বকেয়া বেতন চান হেরাতের শিক্ষকরা
ছবি: সংগৃহীত

আফগানিস্তানের পশ্চিমাঞ্চলের প্রদেশ হেরাতে শয়ে শয়ে শিক্ষক তালেবান সরকারের কাছে বকেয়া বেতন পরিশোধের দাবি জানিয়েছেন। তারা চার মাস ধরে কোনো বেতন পাননি।

আফগানিস্তানের গণমাধ্যম টোলো নিউজ এ তথ্য জানায়।

শিক্ষকদের দাবি, তারা মারাত্মক অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জের সঙ্গে লড়াই করছেন।

হেরাতের একজন শিক্ষক লতিফা আলিজাই বলেন, শিক্ষকদের এতদিন নিজের জন্য অর্থ সঞ্চয় করার জন্য ভালো বেতন ছিল না। যে বেতন পেতেন তারা তা দিয়ে দৈনন্দিন খরচ মেটাতেন।

বেশ কিছু শিক্ষক অভিযোগ করে বলেন, ক্ষুধার ভয়ে তারা ভীত। কারণ তারা পরিবারকে যথেষ্ট পরিমাণ খাদ্য সরবরাহ করতে পারছেন না। একই সঙ্গে পারছেন না শিশুদের জন্য চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে।

নাসির আহমদ হাকিমি নামের এক স্কুলশিক্ষক বলেন, অনেক শিক্ষকের বর্তমানে বাড়ির বিদ্যুৎ বিল দেওয়ার মতো সামর্থ্যও নেই। 

শাহাদাত আতিফ নামে অপর এক শিক্ষক বলেন, আমার মেয়ে বেশ কিছু দিন ধরে অসুস্থ। কিন্তু তাকে টাকার অভাবে চিকিৎসকের কাছে নিতে পারছি না।

তথ্য অনুযায়ী, অন্তত ১৮ হাজার শিক্ষক, যার মধ্যে ১০ হাজার নারী চার মাস ধরে কোনো বেতন পাননি।

শিক্ষকদের অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান মুহাম্মদ সাবির মাশাল বলেন, সব শিক্ষক এবং বেসামরিক কর্মচারীরা চার মাস ধরে বেতন পান না। তারা ঘরের আসবাব বিক্রি করে এতদিন টাকা জোগাড় করেছেন। এখন বিক্রি করার মতো ঘরেও তাদের কিছু নেই।

প্রদেশের শিক্ষা বিভাগের প্রধান সুহাবুদ্দিন সাকিব বলেন, শিক্ষকদের এক মাসের বেতন খুব দ্রুত দেওয়া হবে। ইসলামিক আমিরাত এ বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। বাকি মাসের বেতন এর পর ধীরে ধীরে দেওয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : আফগানিস্তানে তালেবানের পুনরুত্থান