সাংবাদিককে বন্দুকের বাঁট দিয়ে পেটাল তালেবান
jugantor
সাংবাদিককে বন্দুকের বাঁট দিয়ে পেটাল তালেবান

  অনলাইন ডেস্ক  

২১ অক্টোবর ২০২১, ১৯:৫৩:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

আফগানিস্তানে নারীদের একটি বিক্ষোভ মিছিলের খবর সংগ্রহে বাধা দিতে কয়েকজন সাংবাদিককে পিটিয়েছে তালেবান। বৃহস্পতিবার কাবুলে এই ঘটনা ঘটে।

এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টার দিকে কাবুলে আফগান সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে নারীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিল নিয়ে তারা অর্থ মন্ত্রণালয়ের দিকে যায়।

তালেবান সদস্যরা প্রায় দেড় ঘণ্টা নারীদের বাধা ছাড়াই বিক্ষোভ করতে দেন।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত এএফপির সাংবাদিক বলেন, নারীরা সমাবেশ শুরু করলে কয়েকজন সাংবাদিক সেখানে সংবাদ সংগ্রহের জন্য উপস্থিত হন। ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল তালেবান সদস্যরাও। তাদের কারো হাতে ছিল এম ১৬, কারো হাতে ছিল একে ৪৭ অ্যাসল্ট রাইফেল। কয়েকজন পরেছিলেন বুলেট প্রুফ ভেস্ট।

হঠাৎ এক তালেবান সদস্য ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক বিদেশি সাংবাদিককে বন্দুকের বাঁট দিয়ে আঘাত করেন। একই সময়ে আরেক ফটো সাংবাদিক তালেবান সদস্যের লাথির আঘাতে সড়কে পড়ে যান।

নারীদের আয়োজিত বিক্ষোভের অন্যতম সংগঠক জাহরা মোহাম্মদি ঘটনার বিষয়ে বলেন, আমরা ঝুঁকি জানা সত্ত্বেও বিক্ষোভ করছি। কারণ, তালেবান আমাদের শিক্ষার অধিকার কেড়ে নিয়েছে। অবিলম্বে মেয়েদের স্কুল খুলে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে এই নারী বলেন, আমরা সব আফগান কিশোরী ও তরুণীদের উদ্দেশে বলতে চাই, তালেবানদের ভয় পেয়ো না, নিজেদের অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে নামো।

গত ১৫ আগস্ট রাজধানী কাবুল দখলের মধ্যে দিয়ে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে তালেবান। ক্ষমতা দখলের পরপরই তারা সহশিক্ষা ও মেয়েদের মাধ্যমিক স্কুলগুলো বন্ধ করে দেয়।

প্রায় আড়াই মাস ধরে এই স্কুলগুলো বন্ধ থাকায় চরম অনিশ্চয়তায় পড়েছে দেশটির নারী শিক্ষা ব্যবস্থা।

অবশ্য জাতিসংঘের প্রতিনিধি দলের কাছে তালেবান সরকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে- ‘খুব দ্রুতই’ আফগানিস্তানের মেয়ে স্কুলগুলো চালু করা হবে। দেশটির ৩৪টি প্রদেশের ৫টিতে ইতোমধ্যে মেয়ে স্কুলগুলো খুলে দেওয়া হয়েছে।

সাংবাদিককে বন্দুকের বাঁট দিয়ে পেটাল তালেবান

 অনলাইন ডেস্ক 
২১ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৫৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আফগানিস্তানে নারীদের একটি বিক্ষোভ মিছিলের খবর সংগ্রহে বাধা দিতে কয়েকজন সাংবাদিককে পিটিয়েছে তালেবান। বৃহস্পতিবার কাবুলে এই ঘটনা ঘটে।

এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টার দিকে কাবুলে আফগান সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে নারীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিল নিয়ে তারা অর্থ মন্ত্রণালয়ের দিকে যায়। 

তালেবান সদস্যরা প্রায় দেড় ঘণ্টা নারীদের  বাধা ছাড়াই বিক্ষোভ করতে দেন। 

ঘটনাস্থলে উপস্থিত এএফপির সাংবাদিক বলেন, নারীরা সমাবেশ শুরু করলে কয়েকজন সাংবাদিক সেখানে  সংবাদ সংগ্রহের জন্য উপস্থিত হন। ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল তালেবান সদস্যরাও। তাদের কারো হাতে ছিল এম ১৬, কারো হাতে ছিল একে ৪৭ অ্যাসল্ট রাইফেল। কয়েকজন পরেছিলেন বুলেট প্রুফ ভেস্ট।

হঠাৎ এক তালেবান সদস্য ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক বিদেশি সাংবাদিককে বন্দুকের বাঁট দিয়ে আঘাত করেন। একই সময়ে আরেক ফটো সাংবাদিক তালেবান সদস্যের লাথির আঘাতে সড়কে পড়ে যান।

নারীদের আয়োজিত বিক্ষোভের অন্যতম সংগঠক জাহরা মোহাম্মদি ঘটনার বিষয়ে বলেন, আমরা ঝুঁকি জানা সত্ত্বেও বিক্ষোভ করছি। কারণ, তালেবান আমাদের শিক্ষার অধিকার কেড়ে নিয়েছে। অবিলম্বে  মেয়েদের স্কুল খুলে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে এই নারী বলেন, আমরা সব আফগান কিশোরী ও তরুণীদের উদ্দেশে বলতে চাই, তালেবানদের ভয় পেয়ো না, নিজেদের অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে নামো।

গত ১৫ আগস্ট রাজধানী কাবুল দখলের মধ্যে দিয়ে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখল করে  তালেবান। ক্ষমতা দখলের পরপরই তারা সহশিক্ষা ও মেয়েদের মাধ্যমিক স্কুলগুলো বন্ধ করে দেয়। 

প্রায় আড়াই মাস ধরে এই স্কুলগুলো বন্ধ থাকায় চরম অনিশ্চয়তায় পড়েছে দেশটির নারী শিক্ষা ব্যবস্থা।

অবশ্য জাতিসংঘের প্রতিনিধি দলের কাছে তালেবান সরকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে- ‘খুব দ্রুতই’ আফগানিস্তানের মেয়ে স্কুলগুলো চালু করা হবে।  দেশটির ৩৪টি প্রদেশের ৫টিতে ইতোমধ্যে মেয়ে স্কুলগুলো খুলে দেওয়া হয়েছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : আফগানিস্তানে তালেবানের পুনরুত্থান