‘নিশ্চিত পরাজয় জেনেই তালেবানের সঙ্গে সমঝোতা করে যুক্তরাষ্ট্র’
jugantor
‘নিশ্চিত পরাজয় জেনেই তালেবানের সঙ্গে সমঝোতা করে যুক্তরাষ্ট্র’

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৮:২১:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

‘নিশ্চিত পরাজয় জেনেই তালেবানের সঙ্গে সমঝোতা করে যুক্তরাষ্ট্র’

পরাজয় নিশ্চিত জেনেই তালেবানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র সমঝোতা করেছে বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের আফগানিস্তানবিষয়ক সাবেক দূত জালমাই খালিলজাদ। অনেক চেষ্টা করেও যুদ্ধক্ষেত্রে নিজেদের অবস্থান শক্তিশালী করতে ব্যর্থ হওয়ায় মার্কিন বাহিনী এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

পদত্যাগের পর সংবাদমাধ্যম সিবিএস নিউজের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেছেন আফগান বিষয়ক সাবেক এ মার্কিন দূত।

জালমাই খালিলজাদ বলেন, আফগানিস্তানের যুদ্ধে তালেবানের কাছে হেরে যাচ্ছিল যুক্তরাষ্ট্র। অনেক চেষ্টা করেও যুদ্ধক্ষেত্রে নিজেদের অবস্থান শক্তিশালী করতে ব্যর্থ হয়েছে মার্কিন বাহিনী। এমন বাস্তবতায় তালেবানের সঙ্গে আলোচনা বা সমঝোতার পথ বেছে নেয় ওয়াশিংটন।

আফগানিস্তানে ‍যুদ্ধ বন্ধে তালেবানের সঙ্গে আলোচনা এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে অন্যতম ভূমিকা রাখেন মার্কিন দূত জালমাই খালিলজাদ। পরে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তালেবানের শান্তিচুক্তি সই হয় ২০২০ সালে। পরিপ্রেক্ষিতে আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্র দীর্ঘ ২০ বছর পর সেনা প্রত্যাহার করে নেয়।

গত ১৫ আগস্ট প্রায় বিনা বাধায় কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান। আফগানিস্তানে তালেবানের পুনরুত্থানের দুই মাস পর এবং দেশটিতে চলমান বিশৃঙ্খল পরিস্থিতিতে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার প্রক্রিয়ার প্রায় দেড় মাস পর মার্কিন এ দূত পদত্যাগ করেন।

আফগানিস্তানের নিরাপত্তা পরিস্থিতি এভাবে ভেঙে পড়ার জন্য আশরাফ গনির দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়াকেই দায়ী করেন খালিলজাদ। তিনি বলেন, গনি পালিয়ে যাওয়ায় দেশটিতে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হয়।

জালমাই খালিলজাদ বলেন, তালেবান ক্ষমতা ভাগাভাগির মাধ্যমে সরকার গঠন এবং পরবর্তী সরকারে গণি প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তাদের রাখা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনা করছিল। কিন্তু আশরাফ গণি পালিয়ে যাওয়ায় এর সবকিছুই ভেস্তে যায়।


‘নিশ্চিত পরাজয় জেনেই তালেবানের সঙ্গে সমঝোতা করে যুক্তরাষ্ট্র’

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
‘নিশ্চিত পরাজয় জেনেই তালেবানের সঙ্গে সমঝোতা করে যুক্তরাষ্ট্র’
যুক্তরাষ্ট্রের আফগানিস্তানবিষয়ক সাবেক দূত জালমাই খালিলজাদ।

পরাজয় নিশ্চিত জেনেই তালেবানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র সমঝোতা করেছে বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের আফগানিস্তানবিষয়ক সাবেক দূত জালমাই খালিলজাদ। অনেক চেষ্টা করেও যুদ্ধক্ষেত্রে নিজেদের অবস্থান শক্তিশালী করতে ব্যর্থ হওয়ায় মার্কিন বাহিনী এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। 

পদত্যাগের পর সংবাদমাধ্যম সিবিএস নিউজের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেছেন আফগান বিষয়ক সাবেক এ মার্কিন দূত।  

জালমাই খালিলজাদ বলেন, আফগানিস্তানের যুদ্ধে তালেবানের কাছে হেরে যাচ্ছিল যুক্তরাষ্ট্র। অনেক চেষ্টা করেও যুদ্ধক্ষেত্রে নিজেদের অবস্থান শক্তিশালী করতে ব্যর্থ হয়েছে মার্কিন বাহিনী। এমন বাস্তবতায় তালেবানের সঙ্গে আলোচনা বা সমঝোতার পথ বেছে নেয় ওয়াশিংটন।

আফগানিস্তানে ‍যুদ্ধ বন্ধে তালেবানের সঙ্গে আলোচনা এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে অন্যতম ভূমিকা রাখেন মার্কিন দূত জালমাই খালিলজাদ। পরে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তালেবানের শান্তিচুক্তি সই হয় ২০২০ সালে। পরিপ্রেক্ষিতে আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্র দীর্ঘ ২০ বছর পর সেনা প্রত্যাহার করে নেয়।

গত ১৫ আগস্ট প্রায় বিনা বাধায় কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান। আফগানিস্তানে তালেবানের পুনরুত্থানের দুই মাস পর এবং দেশটিতে চলমান বিশৃঙ্খল পরিস্থিতিতে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার প্রক্রিয়ার প্রায় দেড় মাস পর মার্কিন এ দূত পদত্যাগ করেন।

আফগানিস্তানের নিরাপত্তা পরিস্থিতি এভাবে ভেঙে পড়ার জন্য আশরাফ গনির দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়াকেই দায়ী করেন খালিলজাদ। তিনি বলেন, গনি পালিয়ে যাওয়ায় দেশটিতে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হয়।

জালমাই খালিলজাদ বলেন, তালেবান ক্ষমতা ভাগাভাগির মাধ্যমে সরকার গঠন এবং পরবর্তী সরকারে গণি প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তাদের রাখা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনা করছিল। কিন্তু আশরাফ গণি পালিয়ে যাওয়ায় এর সবকিছুই ভেস্তে যায়।


 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : আফগানিস্তানে তালেবানের পুনরুত্থান