আজাদ কাশ্মীরে নারী পুলিশ স্টেশন চালু
jugantor
আজাদ কাশ্মীরে নারী পুলিশ স্টেশন চালু

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮:০৫:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

আজাদ কাশ্মীরে নারী পুলিশ স্টেশন চালু করল পাকিস্তান

পাকিস্তানের আজাদ জম্মু কাশ্মীরে প্রথমবারের মতো মহিলা নিয়ন্ত্রিত পুলিশ স্টেশন খোলা হয়েছে।

আইন ও বিচারব্যবস্থার ওপর মহিলাদের আস্থা ফেরাতে এ রাজ্যের রাওয়ালকোটে সোমবার এটি উদ্বোধন করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সরদার আবদুল কাইউম নিয়াজি। ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি) ড. সোহিল হাবিব তাজিকও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। খবর ডনের।

উদ্বোধনের পর আইজিপি ড. সোহিল হাবিব তাজিক বলেন, কর্মক্ষেত্রে বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নারীদের হয়রানি, সাইবার স্টকিং, শিশু নির্যাতন, গার্হস্থ্য সমস্যা, সহিংসতা, নারী নির্যাতনের অভিযোগগুলো তদন্ত করবে এই স্টেশন।

এ ছাড়া নারী সংশ্লিষ্ট সম্পত্তি বিরোধসহ নানাবিধ নাগরিক সমস্যার অভিযোগগুলোও তদন্ত করবে এই নারী পুলিশ স্টেশন। প্রাথমিকভাবে ১১ সদস্যের একটি দল এই থানা পরিচালনা করবে।

অফিসার ইনচার্জ হিসাবে দায়িত্ব পালন করবেন সাব-ইন্সপেক্টর জাহিদা হানিফ। এরপর মুজাফফরাবাদ এবং মিরপুরের বিভাগীয় সদর দপ্তরে একটি করে স্টেশন স্থাপন করা হবে।

আন্তর্জাতিকভাবে লিঙ্গবৈষম্যের ক্ষেত্রে পাকিস্তানের অবস্থান ১৫৩ নম্বরে। তাদের পেছনে রয়েছে আর মাত্র তিনটি দেশ।

এ প্রসঙ্গে আইজিপি বলেন, ‘নতুন এই থানা স্থাপন সেই ব্যবধান কিছুটা হলেও কমিয়ে আনতে সাহায্য করবে।’

আজাদ জম্মু কাশ্মিরে নারী পুলিশ সদস্যের সংখ্যা ১৫০ জন, যেখানে মোট পুলিশের সংখ্যা আট হাজার। সেই তুলনায় নারী পুলিশের সংখ্যা অনেক কমই।

পাকিস্তানে নারী পুলিশ স্টেশনের যাত্রা শুরু হয় প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর হাত ধরে। ১৯৯৪ সালের ২৫ জানুয়ারি ইমলামাবাদে দেশটির প্রথম নারী পরিচালিত পুলিশ স্টেশনের উদ্বোধন করেন তিনি।

আজাদ কাশ্মীরে নারী পুলিশ স্টেশন চালু

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৬:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আজাদ কাশ্মীরে নারী পুলিশ স্টেশন চালু করল পাকিস্তান
ছবি: ডন

পাকিস্তানের আজাদ জম্মু কাশ্মীরে প্রথমবারের মতো মহিলা নিয়ন্ত্রিত পুলিশ স্টেশন খোলা হয়েছে। 

আইন ও বিচারব্যবস্থার ওপর মহিলাদের আস্থা ফেরাতে এ রাজ্যের রাওয়ালকোটে সোমবার এটি উদ্বোধন করেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সরদার আবদুল কাইউম নিয়াজি। ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি) ড. সোহিল হাবিব তাজিকও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। খবর ডনের।

উদ্বোধনের পর আইজিপি ড. সোহিল হাবিব তাজিক বলেন, কর্মক্ষেত্রে বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নারীদের হয়রানি, সাইবার স্টকিং, শিশু নির্যাতন, গার্হস্থ্য সমস্যা, সহিংসতা, নারী নির্যাতনের অভিযোগগুলো তদন্ত করবে এই স্টেশন। 

এ ছাড়া নারী সংশ্লিষ্ট সম্পত্তি বিরোধসহ নানাবিধ নাগরিক সমস্যার অভিযোগগুলোও তদন্ত করবে এই নারী পুলিশ স্টেশন। প্রাথমিকভাবে ১১ সদস্যের একটি দল এই থানা পরিচালনা করবে। 

অফিসার ইনচার্জ হিসাবে দায়িত্ব পালন করবেন সাব-ইন্সপেক্টর জাহিদা হানিফ। এরপর মুজাফফরাবাদ এবং মিরপুরের বিভাগীয় সদর দপ্তরে একটি করে স্টেশন স্থাপন করা হবে। 

আন্তর্জাতিকভাবে লিঙ্গবৈষম্যের ক্ষেত্রে পাকিস্তানের অবস্থান ১৫৩ নম্বরে। তাদের পেছনে রয়েছে আর মাত্র তিনটি দেশ। 

এ প্রসঙ্গে আইজিপি বলেন, ‘নতুন এই থানা স্থাপন সেই ব্যবধান কিছুটা হলেও কমিয়ে আনতে সাহায্য করবে।’ 

আজাদ জম্মু কাশ্মিরে নারী পুলিশ সদস্যের সংখ্যা ১৫০ জন, যেখানে মোট পুলিশের সংখ্যা আট হাজার। সেই তুলনায় নারী পুলিশের সংখ্যা অনেক কমই।  

পাকিস্তানে নারী পুলিশ স্টেশনের যাত্রা শুরু হয় প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর হাত ধরে। ১৯৯৪ সালের ২৫ জানুয়ারি ইমলামাবাদে দেশটির প্রথম নারী পরিচালিত পুলিশ স্টেশনের উদ্বোধন করেন তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন