অর্ধেক শুঁড় হারানো সেই হাতির বাচ্চার মৃত্যু
jugantor
অর্ধেক শুঁড় হারানো সেই হাতির বাচ্চার মৃত্যু

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৮ নভেম্বর ২০২১, ১৭:৪২:০৯  |  অনলাইন সংস্করণ

অর্ধেক শুঁড় হারানো বিপন্ন প্রজাতির সেই সুমাত্রান হাতির বাচ্চাটি মারা গেছে। চোরাকারবারিদের ফাঁদে আটক পড়ে হাতির বাচ্চাটি অর্ধেক শুঁড় হারিয়েছিল বলে বৃহস্পতিবার বিবিসি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে।

বিবিসি জানায়, ইন্দোনেশিয়ার সেই হাতির বাচ্চাটি ফাঁদে আটকা পড়ার পর দলের অন্য হাতিরা তাকে ফেলেই চলে যায়।

আচেহ জায়া শহরের বাসিন্দারা হাতির বাচ্চাটিকে ওই অবস্থায় খুঁজে পেয়ে চিকিৎসার জন্য একটি হাতি সংরক্ষণ সংস্থার কাছে যান।

সংরক্ষণ সংস্থার কর্মকর্তারা জানান, তারা শুঁড় কেটে ফেলে শাবকটির জীবন বাঁচানোর চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু দুই দিন পরে আঘাত থেকে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়লে শাবকটির মৃত্যু হয়।

ইন্দোনেশিয়ার বোর্নিও এবং সুমাত্রায় দ্রুত হারে বন উজাড় হওয়ার ফলে সুমাত্রান হাতিকে একটি বিপন্ন প্রজাতি হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

২০০৭ সালের বিশ্ব বন্যপ্রাণী সংরক্ষণের একটি গবেষণায় দেখা গেছে, সে সময় সুমাত্রান হাতির সংখ্যা ছিল ২৪শ। তবে এখন বন উজাড় ও চোরাকারবারিদের শিকারের ফলে এর সংখ্যা অর্ধেকে নেমে এসেছে। ১৯৮০ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত ৬৭ শতাংশ সুমাত্রান হাতির বসবাসের জায়গা ধ্বংস হয়েছে। সংখ্যা কমে যাওয়ায় ২০১২ সালে সুমাত্রান হাতি বিপন্ন প্রাণীর তালিকায় চলে যায়।

অর্ধেক শুঁড় হারানো সেই হাতির বাচ্চার মৃত্যু

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৮ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৪২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

অর্ধেক শুঁড়  হারানো বিপন্ন প্রজাতির সেই সুমাত্রান হাতির বাচ্চাটি মারা গেছে।  চোরাকারবারিদের ফাঁদে আটক পড়ে হাতির বাচ্চাটি অর্ধেক শুঁড়  হারিয়েছিল বলে বৃহস্পতিবার বিবিসি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে। 

বিবিসি জানায়, ইন্দোনেশিয়ার সেই হাতির বাচ্চাটি ফাঁদে আটকা পড়ার পর দলের অন্য হাতিরা তাকে ফেলেই চলে যায়। 

আচেহ জায়া শহরের বাসিন্দারা হাতির বাচ্চাটিকে ওই অবস্থায় খুঁজে পেয়ে চিকিৎসার জন্য একটি হাতি সংরক্ষণ সংস্থার কাছে যান।

সংরক্ষণ সংস্থার কর্মকর্তারা জানান, তারা  শুঁড়  কেটে  ফেলে শাবকটির জীবন বাঁচানোর চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু দুই দিন পরে আঘাত থেকে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়লে শাবকটির মৃত্যু হয়। 

ইন্দোনেশিয়ার বোর্নিও এবং সুমাত্রায় দ্রুত হারে বন উজাড় হওয়ার ফলে সুমাত্রান হাতিকে একটি বিপন্ন প্রজাতি হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

২০০৭ সালের বিশ্ব বন্যপ্রাণী সংরক্ষণের একটি গবেষণায় দেখা গেছে, সে সময় সুমাত্রান হাতির সংখ্যা ছিল ২৪শ। তবে এখন বন উজাড় ও চোরাকারবারিদের শিকারের ফলে এর সংখ্যা অর্ধেকে নেমে এসেছে। ১৯৮০ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত ৬৭ শতাংশ সুমাত্রান হাতির বসবাসের জায়গা ধ্বংস হয়েছে। সংখ্যা কমে যাওয়ায় ২০১২ সালে সুমাত্রান হাতি বিপন্ন প্রাণীর তালিকায় চলে যায়।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন