তালেবানকে সমর্থন হাজারা মুরুব্বিদের
jugantor
তালেবানকে সমর্থন হাজারা মুরুব্বিদের

  অনলাইন ডেস্ক  

২৫ নভেম্বর ২০২১, ১৯:৫৫:১০  |  অনলাইন সংস্করণ

হাজারা

আফগানিস্তানের শিয়া ধর্মাবলম্বী হাজারা সম্প্রদায়ের মুরুব্বিরা তালেবানের ওপর সমর্থন ব্যক্ত করেছেন। এর অংশ হিসেবে রাজধানী কাবুলে সহস্রাধিক হাজারা তালেবান নেতাদের সঙ্গে সভা করেছে।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার হাজারা মুরুব্বিরা তালেবানের সঙ্গে রাজধানী কাবুলে এক সভায় অংশ নেন। সেখানে তারা তালেবানের ওপর নিজেদের সমর্থন ব্যক্ত করেন।

ওই সভায় সিনিয়র হাজারা নেতা এবং আফগানিস্তানের সাবেক সংসদ সদস্য জাফর মাধবি বলেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি আফগানিস্তানের ইতিহাসে অন্ধকারতম অধ্যায়।

বিগত শাসনের স্মৃতিচারণ করে এই হাজারা নেতা বলেন, আফগানিস্তানের কোনো স্বাধীনতা ছিল না। বিদেশি দূতাবাসগুলো সরকারের প্রতিটি বিষয় নিয়ন্ত্রণ করত। এ সময় তিনি বলেন, সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর, আমরা সেই অন্ধকার যুগ পার করে এসেছি।

গত ১৫ আগস্ট তালেবানের হাতে কাবুলের পতন হয়। এর মধ্য দিয়ে আফগানিস্তানের ক্ষমতা তালেবানের হাতে যায়। আগস্টের শেষ দিকে আফগানিস্তান ত্যাগ করে মার্কিন বাহিনী। এর মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ২০ বছরের আফগান যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে

হাজারা নেতা জাফর মাধবি বলেন, যুদ্ধ সমাপ্তির সঙ্গে সঙ্গে আফগানিস্তানে দুর্নীতির পরিসমাপ্তি ঘটেছে, নিরাপত্তা বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে এই হাজারা নেতা তালেবানের প্রতি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার এবং নারীদেরস্কুল খোলার অনুরোধ জানান।

ওই সভায় তালেবান নেতা জাবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেন, তারা দেশ গঠনে অগ্রাধিকার দিচ্ছেন।

আফগানিস্তানের মোট জনসংখ্যা ৩ কোটি ৮০ লাখ। এর মধ্যে হাজারা সম্প্রদায়ের মানুষ ১০ থেকে ২০ ভাগ। সুন্নি সংখ্যাগরিষ্ঠ আফগানিস্তানে শিয়াহাজারা সম্প্রদায়ের মানুষ শত শত বছর ধরে নিপীড়িত হয়ে আসছে। তালেবান এবং আইএস গত দুই দশকে এই সম্প্রদায়কে হত্যার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেছে।

১৯৯৮ সালে মাজার-ই শরীফে প্রায় ২ হাজার হাজারা বেসামরিক নাগরিককে হত্যা করা হয়। সাম্প্রতিক সময়েও হাজারা সম্প্রদায়ের মানুষের ওপর হামলা ঘটনা ঘটেছে।

তালেবানকে সমর্থন হাজারা মুরুব্বিদের

 অনলাইন ডেস্ক 
২৫ নভেম্বর ২০২১, ০৭:৫৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হাজারা
আফগানিস্তানে দীর্ঘদিন ধরে জাতিগত নিগ্রহের শিকার হয়ে আসছে শিয়া মতাবলম্বী হাজারা সম্প্রদায়ের মানুষ

আফগানিস্তানের শিয়া ধর্মাবলম্বী হাজারা সম্প্রদায়ের মুরুব্বিরা তালেবানের ওপর সমর্থন ব্যক্ত করেছেন। এর অংশ হিসেবে রাজধানী কাবুলে সহস্রাধিক হাজারা তালেবান নেতাদের সঙ্গে সভা করেছে। 

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার হাজারা মুরুব্বিরা তালেবানের সঙ্গে রাজধানী কাবুলে এক সভায় অংশ নেন। সেখানে তারা তালেবানের ওপর নিজেদের সমর্থন ব্যক্ত করেন। 

ওই সভায় সিনিয়র হাজারা নেতা এবং আফগানিস্তানের সাবেক সংসদ সদস্য জাফর মাধবি বলেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি আফগানিস্তানের ইতিহাসে অন্ধকারতম অধ্যায়।

বিগত শাসনের স্মৃতিচারণ করে এই হাজারা নেতা বলেন, আফগানিস্তানের কোনো স্বাধীনতা ছিল না। বিদেশি দূতাবাসগুলো সরকারের প্রতিটি বিষয় নিয়ন্ত্রণ করত। এ সময় তিনি বলেন, সমস্ত প্রশংসা আল্লাহর, আমরা সেই অন্ধকার যুগ পার করে এসেছি।

গত ১৫ আগস্ট তালেবানের হাতে কাবুলের পতন হয়। এর মধ্য দিয়ে আফগানিস্তানের ক্ষমতা তালেবানের হাতে যায়। আগস্টের শেষ দিকে আফগানিস্তান ত্যাগ করে মার্কিন বাহিনী। এর মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ২০ বছরের আফগান যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে

হাজারা নেতা জাফর মাধবি বলেন, যুদ্ধ সমাপ্তির সঙ্গে সঙ্গে আফগানিস্তানে দুর্নীতির পরিসমাপ্তি ঘটেছে, নিরাপত্তা বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে এই হাজারা নেতা তালেবানের প্রতি অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার এবং নারীদের স্কুল খোলার অনুরোধ জানান। 

ওই সভায় তালেবান নেতা জাবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেন,  তারা দেশ গঠনে অগ্রাধিকার দিচ্ছেন। 

আফগানিস্তানের মোট জনসংখ্যা ৩ কোটি ৮০ লাখ। এর মধ্যে হাজারা সম্প্রদায়ের মানুষ ১০ থেকে ২০ ভাগ। সুন্নি সংখ্যাগরিষ্ঠ আফগানিস্তানে শিয়া হাজারা সম্প্রদায়ের মানুষ শত শত বছর ধরে নিপীড়িত হয়ে আসছে। তালেবান এবং আইএস গত দুই দশকে এই সম্প্রদায়কে হত্যার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেছে। 

১৯৯৮ সালে মাজার-ই শরীফে প্রায় ২ হাজার হাজারা বেসামরিক নাগরিককে হত্যা করা হয়। সাম্প্রতিক সময়েও হাজারা সম্প্রদায়ের মানুষের ওপর হামলা ঘটনা ঘটেছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন