লটারি পেয়ে মহাকাশে যাচ্ছেন মা-মেয়ে
jugantor
লটারি পেয়ে মহাকাশে যাচ্ছেন মা-মেয়ে

  অনলাইন ডেস্ক  

২৫ নভেম্বর ২০২১, ২০:৩০:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

মহাকাশ

ব্রিটিশ ধনকুবের রিচার্ড ব্র্যানসনের কোম্পানি ভার্জিন গ্যালাকটিক বাণিজ্যিকভাবে মহাকাশ ভ্রমণ ব্যবস্থা চালু করেছে। প্রথম বারের মতো ওই প্রতিষ্ঠান মহাকাশে পর্যটক পাঠাবে বলে জানিয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানের দুটি টিকিট লটারিতে জিতেছেন এন্টিগুয়া ও বারমুডার এক স্বাস্থ্যবিষয়ক পরামর্শক কেইশা শাহাফ।

স্থানীয় সময় বুধবার ভার্জিন গ্যালাকটিক ওই নারীর টিকিট জয়ের কথা জানিয়েছে।

৪৪ বছর বয়সী এ স্বাস্থ্য পরামর্শক তার ১৭ বছর মেয়েকে নিয়ে মহাকাশে পাড়ি দেবেন বলে জানা গেছে।টিকিট দুটির মূল্য প্রায় ১০ লাখ ডলার।

তার মেয়ে বিজ্ঞানের ছাত্রী। পড়াশোনা করছেন যুক্তরাজ্যে। তার স্বপ্ন ছিল একসময় সে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসায় কাজ করবে।

টিকিট জয়ের খবরটি ভার্জিন গ্যালাকটিকের প্রতিষ্ঠাতা রিচার্ড ব্র্যানসনের কাছ থেকে পান কেইশা। নভেম্বরের শুরুতে কেইশার বাড়িতে গিয়ে চমকে দেন তিনি। কেইশা বলেন, আমার মনে হচ্ছিল জুমে আমি তার সঙ্গে কথা বলছি। ব্র্যানসনকে দেখে আমি কান্না করতে শুরু করি। কারণ আমি কিছুতেই বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। ছোটবেলা থেকেই আমি মহাকাশ নিয়ে আগ্রহী ছিলাম। এটা আমার জন্য অনেক বড় সুযোগ।

সূত্র: এনডিটিভি

লটারি পেয়ে মহাকাশে যাচ্ছেন মা-মেয়ে

 অনলাইন ডেস্ক 
২৫ নভেম্বর ২০২১, ০৮:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মহাকাশ
ফাইল ছবি

ব্রিটিশ ধনকুবের রিচার্ড ব্র্যানসনের কোম্পানি ভার্জিন গ্যালাকটিক বাণিজ্যিকভাবে মহাকাশ ভ্রমণ ব্যবস্থা চালু করেছে। প্রথম বারের মতো ওই প্রতিষ্ঠান মহাকাশে পর্যটক পাঠাবে বলে জানিয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানের দুটি টিকিট লটারিতে জিতেছেন এন্টিগুয়া ও বারমুডার এক স্বাস্থ্যবিষয়ক পরামর্শক কেইশা শাহাফ।

স্থানীয় সময় বুধবার ভার্জিন গ্যালাকটিক ওই নারীর টিকিট জয়ের কথা জানিয়েছে।

৪৪ বছর বয়সী এ স্বাস্থ্য পরামর্শক তার ১৭ বছর মেয়েকে নিয়ে মহাকাশে পাড়ি দেবেন বলে জানা গেছে।টিকিট দুটির মূল্য প্রায় ১০ লাখ ডলার।

তার মেয়ে বিজ্ঞানের ছাত্রী। পড়াশোনা করছেন যুক্তরাজ্যে। তার স্বপ্ন ছিল একসময় সে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসায় কাজ করবে।

টিকিট জয়ের খবরটি ভার্জিন গ্যালাকটিকের প্রতিষ্ঠাতা রিচার্ড ব্র্যানসনের কাছ থেকে পান কেইশা। নভেম্বরের শুরুতে কেইশার বাড়িতে গিয়ে চমকে দেন তিনি। কেইশা বলেন, আমার মনে হচ্ছিল জুমে আমি তার সঙ্গে কথা বলছি। ব্র্যানসনকে দেখে আমি কান্না করতে শুরু করি। কারণ আমি কিছুতেই বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। ছোটবেলা থেকেই আমি মহাকাশ নিয়ে আগ্রহী ছিলাম। এটা আমার জন্য অনেক বড় সুযোগ।

সূত্র: এনডিটিভি

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন