ভারতের লোকসভায় কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল পাস
jugantor
ভারতের লোকসভায় কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল পাস

  অনলাইন ডেস্ক  

২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৩:২৬:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতে বিরোধীদের প্রবল হইচইয়ের মধ্যে লোকসভায় কণ্ঠভোটে পাস হয়েছে কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল।

কৃষি আইন নিয়ে আলোচনার দাবিতে শীতকালীন অধিবেশনের শুরুতেই হট্টগোল শুরু করে বিরোধীরা। খবর এনডিটিভি ও আনন্দবাজারের।

ওয়েলে নেমে এসে বিক্ষোভ দেখান তারা। তার পরই সংসদের দুই কক্ষেই অধিবেশন স্থানীয় সময় দুপুর ১২টা পর্যন্ত মুলতবি করে দেন স্পিকার।

দুপুর ১২টায় অধিবেশনের শুরুতেই কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল-২০২১ পেশ করেন কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিংহ তোমর।

কণ্ঠভোটে তা সঙ্গে সঙ্গেই পাস হয়ে যায়। বিরোধীরা কৃষি আইনের ওপর আলোচনার যে দাবি করেছিল, তা খারিজ করে দিয়েছে সরকার পক্ষ।

দেড় বছর আগে কোভিড পরিস্থিতির সময় এই তিন কৃষি আইন প্রণয়নে কেন্দ্র অধ্যাদেশ জারি করেছিল। তারপর গত বছরের সেপ্টেম্বরে সংসদের খণ্ডকালীন অধিবেশনে প্রায় বিনা আলোচনায় বিরোধীদের দাবি উপেক্ষা করে তিন আইন পাস করা হয়।

মোদি সরকারের দাবি ছিল, মূলত তিনটি উদ্দেশ্য পূরণের জন্য এই তিনটি কৃষি আইন কার্যকর করা হচ্ছে। প্রথমটি হচ্ছে কৃষিক্ষেত্রে ফড়িয়া বা দালালদের আধিপত্য কমিয়ে কৃষকের আয় বাড়ানো।

দ্বিতীয়টি হচ্ছে রাজ্যগুলোতে চুক্তিভিত্তিক চাষের ব্যবস্থা আইনসিদ্ধ করা ও তৃতীয়টি হচ্ছে কৃষিপণ্য বিপণন নিয়ে যে আইন রয়েছে, তা দূর করে আন্তরাজ্য কৃষিপণ্যের অবাধ বাণিজ্যের রাস্তা খুলে দেওয়া।

এর পর থেকেই দিল্লি, পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থানে কৃষক আন্দোলন শুরু হয়। টানা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার পর সফলতার মুখ দেখলেন কৃষকরা।

ভারতের লোকসভায় কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল পাস

 অনলাইন ডেস্ক 
২৯ নভেম্বর ২০২১, ০১:২৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতে বিরোধীদের প্রবল হইচইয়ের মধ্যে লোকসভায় কণ্ঠভোটে পাস হয়েছে কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল।

কৃষি আইন নিয়ে আলোচনার দাবিতে শীতকালীন অধিবেশনের শুরুতেই হট্টগোল শুরু করে বিরোধীরা। খবর এনডিটিভি  ও আনন্দবাজারের।

ওয়েলে নেমে এসে বিক্ষোভ দেখান তারা। তার পরই সংসদের দুই কক্ষেই অধিবেশন স্থানীয় সময় দুপুর ১২টা পর্যন্ত মুলতবি করে দেন স্পিকার।

দুপুর ১২টায় অধিবেশনের শুরুতেই কৃষি আইন প্রত্যাহার বিল-২০২১ পেশ করেন কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিংহ তোমর।

কণ্ঠভোটে তা সঙ্গে সঙ্গেই পাস হয়ে যায়। বিরোধীরা কৃষি আইনের ওপর আলোচনার যে দাবি করেছিল, তা খারিজ করে দিয়েছে সরকার পক্ষ।

দেড় বছর আগে কোভিড পরিস্থিতির সময় এই তিন কৃষি আইন প্রণয়নে কেন্দ্র অধ্যাদেশ জারি করেছিল। তারপর গত বছরের সেপ্টেম্বরে সংসদের খণ্ডকালীন অধিবেশনে প্রায় বিনা আলোচনায় বিরোধীদের দাবি উপেক্ষা করে তিন আইন পাস করা হয়।

মোদি সরকারের দাবি ছিল, মূলত তিনটি উদ্দেশ্য পূরণের জন্য এই তিনটি কৃষি আইন কার্যকর করা হচ্ছে। প্রথমটি হচ্ছে কৃষিক্ষেত্রে ফড়িয়া বা দালালদের আধিপত্য কমিয়ে কৃষকের আয় বাড়ানো।

দ্বিতীয়টি হচ্ছে রাজ্যগুলোতে চুক্তিভিত্তিক চাষের ব্যবস্থা আইনসিদ্ধ করা ও তৃতীয়টি হচ্ছে কৃষিপণ্য বিপণন নিয়ে যে আইন রয়েছে, তা দূর করে আন্তরাজ্য কৃষিপণ্যের অবাধ বাণিজ্যের রাস্তা খুলে দেওয়া।

এর পর থেকেই দিল্লি, পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থানে কৃষক আন্দোলন শুরু হয়। টানা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার পর সফলতার মুখ দেখলেন কৃষকরা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন