মসজিদে ইসরাইলি প্রেসিডেন্টের অনুপ্রবেশের ঘটনায় ওআইসির নিন্দা
jugantor
মসজিদে ইসরাইলি প্রেসিডেন্টের অনুপ্রবেশের ঘটনায় ওআইসির নিন্দা

  অনলাইন ডেস্ক  

৩০ নভেম্বর ২০২১, ১০:১২:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

ফিলিস্তিনের প্রাচীন শহর হেবরনে ঐতিহাসিক ইব্রাহিমি মসজিদে ইসরাইলি প্রেসিডেন্ট ইসাক হেরজগের অনুপ্রবেশের ঘটনায় আরব লিগের পর এবার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ওআইসি।

সোমবার এক বিবৃতিতে জেদ্দাভিত্তিক মুসলিম রাষ্ট্রগুলোর এ সংস্থা ইহুদিবাদীদের এ ন্যক্কারজনক ধর্মবিদ্বেষী আচরণের গভীর নিন্দা জানিয়েছে। খবর আনাদোলুর।

ইব্রাহিমি মসজিদের পরিচালক শেখ হেফথি আবু স্নেইনা বলেন, ঐতিহাসিক এ মসজিদটিতে ভারি অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ইসরাইলি সেনারা প্রবেশ করে মুসল্লিদের বের করে দেয়।

রোববার সন্ধ্যায় কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ইসরাইলি প্রেসিডেন্ট স্থানীয় অবৈধ ইহুদি বসতকারী ও কট্টপন্থি ইহুদি এমপিদের নিয়ে ঐতিহাসিক ওই মসজিদটিতে ঢুকে পড়েন।

সেখানে ইহুদি উৎসব হানক্কিহ উপলক্ষ্যে তিনি মোমবাতি জ্বালান। এ সময় আশপাশের সব দোকানপাট বন্ধ করে দেয় ইসরাইলি বাহিনী। এমনকি সাংবাদিকদেরও ইসরাইলি প্রেসিডেন্টের অনুপ্রবেশের খবর তথ্য সংগ্রহে বাধা দেওয়া হয়।

ওআইসির বিবৃতিতে বলা হয়, মুসলিমদের আবেগ ও অনুভূতিতে আঘাত দিতে ইহুদিবাদী এ রাষ্ট্রপতি পবিত্র মসজিদে অনুপ্রবেশ করেছেন।

২০১৭ সালে ইউনেসকো ইব্রাহিমি মসজিদসহ প্রাচীন হেবরন শহরকে বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে ঘোষণা করে।

১৯৯৪ সালে উগ্রবাদী ইহুদিরা ইব্রাহিমি মসজিদে অনুপ্রবশ করে ২৯ মুসল্লিকে হত্যা করে।

ফিলিস্তিনের প্রাচীন এ শহরটিতে ১ লাখ ৬০ হাজার মুসলিমের বসবাস। এখানে বিভিন্ন অবৈধ ৫০০ ইহুদির বসবাস।

ইসরাইলি বাহিনী এই ৫০০ ইহুদির নিরাপত্তার জন্য গোটা হেবরনের মুসলিমদের ওপর দমন-পীড়ন চালিয়ে আসছে বছরের পর বছর ধরে।

মসজিদে ইসরাইলি প্রেসিডেন্টের অনুপ্রবেশের ঘটনায় ওআইসির নিন্দা

 অনলাইন ডেস্ক 
৩০ নভেম্বর ২০২১, ১০:১২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ফিলিস্তিনের প্রাচীন শহর হেবরনে ঐতিহাসিক ইব্রাহিমি মসজিদে ইসরাইলি প্রেসিডেন্ট ইসাক হেরজগের অনুপ্রবেশের ঘটনায় আরব লিগের পর এবার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ওআইসি।

সোমবার এক বিবৃতিতে জেদ্দাভিত্তিক মুসলিম রাষ্ট্রগুলোর এ সংস্থা ইহুদিবাদীদের এ ন্যক্কারজনক ধর্মবিদ্বেষী আচরণের গভীর নিন্দা জানিয়েছে। খবর আনাদোলুর।

ইব্রাহিমি মসজিদের পরিচালক শেখ হেফথি আবু স্নেইনা বলেন, ঐতিহাসিক এ মসজিদটিতে ভারি অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ইসরাইলি সেনারা প্রবেশ করে মুসল্লিদের বের করে দেয়।

রোববার সন্ধ্যায় কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে ইসরাইলি প্রেসিডেন্ট স্থানীয় অবৈধ ইহুদি বসতকারী ও কট্টপন্থি ইহুদি এমপিদের নিয়ে ঐতিহাসিক ওই মসজিদটিতে ঢুকে পড়েন।

সেখানে ইহুদি উৎসব হানক্কিহ উপলক্ষ্যে তিনি মোমবাতি জ্বালান। এ সময় আশপাশের সব দোকানপাট বন্ধ করে দেয় ইসরাইলি বাহিনী। এমনকি সাংবাদিকদেরও ইসরাইলি প্রেসিডেন্টের অনুপ্রবেশের খবর তথ্য সংগ্রহে বাধা দেওয়া হয়।

ওআইসির বিবৃতিতে বলা হয়, মুসলিমদের আবেগ ও অনুভূতিতে আঘাত দিতে ইহুদিবাদী এ রাষ্ট্রপতি পবিত্র মসজিদে অনুপ্রবেশ করেছেন।

২০১৭ সালে ইউনেসকো ইব্রাহিমি মসজিদসহ প্রাচীন হেবরন শহরকে বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে ঘোষণা করে।
 
১৯৯৪ সালে উগ্রবাদী ইহুদিরা ইব্রাহিমি মসজিদে অনুপ্রবশ করে ২৯ মুসল্লিকে হত্যা করে।

ফিলিস্তিনের প্রাচীন এ শহরটিতে ১ লাখ ৬০ হাজার মুসলিমের বসবাস। এখানে বিভিন্ন অবৈধ ৫০০ ইহুদির বসবাস।

ইসরাইলি বাহিনী এই ৫০০ ইহুদির নিরাপত্তার জন্য গোটা হেবরনের মুসলিমদের ওপর দমন-পীড়ন চালিয়ে আসছে বছরের পর বছর ধরে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ফিলিস্তিনিদের ঘরে ফেরার বিক্ষোভ