ইসরাইলি হামলা নিয়ে মুখ খুললেন ইরানের প্রধান পরমাণু আলোচক
jugantor
ইসরাইলি হামলা নিয়ে মুখ খুললেন ইরানের প্রধান পরমাণু আলোচক

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ১৪:২৭:০৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ইসরাইলি হামলা নিয়ে মুখ খুললেন ইরানের প্রধান পরমাণু আলোচক

ইরানের পরমাণু কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে জানিয়ে দেশটির প্রধান পরমাণু আলোচক ও উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলী বাকেরি-কানি বলেছেন, ইরানে হামলা চালালে ইহুদিবাদীরা চিরতরে ঘুমিয়ে যাবে।

তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু সমঝোতার নিষেধাজ্ঞাগুলোর পাশাপাশি ‘সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগ’ কর্মসূচির আওতায় ইরানের বিরুদ্ধে যত নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সেগুলো প্রত্যাহার করতে হবে।

ভিয়েনায় পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের সপ্তম দফা আলোচনা শেষে তেহরানে ফিরে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন ইরানের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

বাকেরি-কানি বলেন, প্রথম ছয় দফা আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের বিষয়টি পরীক্ষা করে দেখা এবং আর কখনও পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে না যাওয়ার গ্যারান্টি দিয়েছিল। আমরা যেসব পরিকল্পনা দিয়েছি সেগুলো ২০১৫ সালে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতার গঠনকাঠামোর আওতায়ই দেওয়া হয়েছে।

ইসরাইল যদি ইরানের পরমাণু স্থাপনায় হামলা করতে চায় তাহলে কী হতে পারে- আলজাজিরার এমন প্রশ্নের জবাবে বাকেরি-কানি বলেন, ইহুদিবাদীরা ঘুমের মধ্যে ইরানে হামলা চালানোর স্বপ্ন দেখতে পারে, আর সেরকম স্বপ্ন সত্যি হলে তাদের সে ঘুম আর কোনোদিন ভাঙবে না।

এদিকে ইরানের বিমান প্রতিরক্ষা বাহিনী দেশটির মধ্যাঞ্চলীয় নাতাঞ্জ শহরে পরমাণু স্থাপনার পাশ থেকে কয়েকটি ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে র‌্র্যাপিড অ্যাকশন ফোর্সের প্রস্তুতি পরীক্ষা করেছে।

হঠাৎ করেই শহরের কাছে কয়েক দফা বিকট শব্দ হওয়ার কারণে শহরবাসী অনেকটা হতবিহ্বল এবং বিস্মিত হয়ে পড়েন।

ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় নাতাঞ্জ শহরে দেশের গুরুত্বপূর্ণ পরমাণু স্থাপনা অবস্থিত। সেখানে ইরান ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ করে থাকে।

টাইমস অব ইসরাইল একটি প্রতিবেদনে বলেছে, শত্রুপক্ষের একটি ড্রোন হামলা ঠেকাতে ইরানের সামরিক বাহিনী ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়েছে।

এর আগে ইরানের পরমাণু স্থাপনায় অন্তর্ঘাতমূলক হামলা হয়েছিল এবং তা নিয়ে শহরবাসী মধ্যে এক ধরনের আতাঙ্ক কাজ করছে।

নাতাঞ্জ শহরের কাছে এমন একসময় এই ক্ষেপণাস্ত্রের মহড়া চালানো হলো, যখন ইসরাইল বারবার হুমকি দিচ্ছে যে, ইরানকে কোনোমতেই পরমাণু অস্ত্র তৈরি করার সুযোগ দেওয়া হবে না, প্রয়োজনে ইরানের ওপর হামলা চালানো হবে।


ইসরাইলি হামলা নিয়ে মুখ খুললেন ইরানের প্রধান পরমাণু আলোচক

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:২৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ইসরাইলি হামলা নিয়ে মুখ খুললেন ইরানের প্রধান পরমাণু আলোচক
ইরানের প্রধান পরমাণু আলোচক ও উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলী বাকেরি-কানি। ছবি: আল জাজিরা

ইরানের পরমাণু কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে জানিয়ে দেশটির প্রধান পরমাণু আলোচক ও উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলী বাকেরি-কানি বলেছেন, ইরানে হামলা চালালে ইহুদিবাদীরা চিরতরে ঘুমিয়ে যাবে। 

তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র পরমাণু সমঝোতার নিষেধাজ্ঞাগুলোর পাশাপাশি ‘সর্বোচ্চ চাপ প্রয়োগ’ কর্মসূচির আওতায় ইরানের বিরুদ্ধে যত নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে সেগুলো প্রত্যাহার করতে হবে।

ভিয়েনায় পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের সপ্তম দফা আলোচনা শেষে তেহরানে ফিরে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন ইরানের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী। 

বাকেরি-কানি বলেন, প্রথম ছয় দফা আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্র নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের বিষয়টি পরীক্ষা করে দেখা এবং আর কখনও পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে না যাওয়ার গ্যারান্টি দিয়েছিল। আমরা যেসব পরিকল্পনা দিয়েছি সেগুলো ২০১৫ সালে স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতার গঠনকাঠামোর আওতায়ই দেওয়া হয়েছে।
 
ইসরাইল যদি ইরানের পরমাণু স্থাপনায় হামলা করতে চায় তাহলে কী হতে পারে- আলজাজিরার এমন প্রশ্নের জবাবে বাকেরি-কানি বলেন, ইহুদিবাদীরা ঘুমের মধ্যে ইরানে হামলা চালানোর স্বপ্ন দেখতে পারে, আর সেরকম স্বপ্ন সত্যি হলে তাদের সে ঘুম আর কোনোদিন ভাঙবে না।

এদিকে ইরানের বিমান প্রতিরক্ষা বাহিনী দেশটির মধ্যাঞ্চলীয় নাতাঞ্জ শহরে পরমাণু স্থাপনার পাশ থেকে কয়েকটি ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে র‌্র্যাপিড অ্যাকশন ফোর্সের প্রস্তুতি পরীক্ষা করেছে।

হঠাৎ করেই শহরের কাছে কয়েক দফা বিকট শব্দ হওয়ার কারণে শহরবাসী অনেকটা হতবিহ্বল এবং বিস্মিত হয়ে পড়েন।

ইরানের মধ্যাঞ্চলীয় নাতাঞ্জ শহরে দেশের গুরুত্বপূর্ণ পরমাণু স্থাপনা অবস্থিত। সেখানে ইরান ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ করে থাকে।

টাইমস অব ইসরাইল একটি প্রতিবেদনে বলেছে, শত্রুপক্ষের একটি ড্রোন হামলা ঠেকাতে ইরানের সামরিক বাহিনী ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়েছে।

এর আগে ইরানের পরমাণু স্থাপনায় অন্তর্ঘাতমূলক হামলা হয়েছিল এবং তা নিয়ে শহরবাসী মধ্যে এক ধরনের আতাঙ্ক কাজ করছে।

নাতাঞ্জ শহরের কাছে এমন একসময় এই ক্ষেপণাস্ত্রের মহড়া চালানো হলো, যখন ইসরাইল বারবার হুমকি দিচ্ছে যে, ইরানকে কোনোমতেই পরমাণু অস্ত্র তৈরি করার সুযোগ দেওয়া হবে না, প্রয়োজনে ইরানের ওপর হামলা চালানো হবে।


 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন