সরকারি অফিসে পিস্তল হাতে নেত্রীর ছবি ভাইরাল
jugantor
সরকারি অফিসে পিস্তল হাতে নেত্রীর ছবি ভাইরাল

  অনলাইন ডেস্ক  

০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২১:৩৫:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

সরকারি অফিসে বসে হাতে পিস্তল নিয়ে সেলফি তুলছেন এক নেত্রী। এমন একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

ঘটনার পর প্রতিপক্ষ দল দাবি করেছে, এই নেত্রীর কক্ষে তল্লাশি চালানো হলে শুধু পিস্তল নয়, বন্দুক, বোমা এমনকি একে-৪৭ রাইফেলও পাওয়া যাবে।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এই ঘটনা ঘটেছে।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে এই নেত্রীর নাম মৃণালিনী মন্ডল মাইতি। তিনি মালদা জেলার তৃণমূলের সিনিয়র নেত্রী।

খবরে আরও বলা হয়েছে, মালদা জেলারএই তৃণমূল নেত্রী মৃণালিনী মন্ডল ‘ওল্ড মালদা পঞ্জায়েত সমতির সভাপতির দায়িত্বও পালন করছেন। স্থানীয় সরকারের ব্লক ডেভলপমেন্ট (বিডিও)অফিসে পিস্তল হাতে তার একটি ছবি ভাইরাল হয়।

এই ঘটনায় তৃণমূলের নেতারা নিজেরাও অস্বস্তিতে রয়েছেন

ঘটনার পর মালদা জেলার বিজেপির সভাপতি গোবিন্দ্র চন্দ্র মন্ডল বলেন, এটা তৃণমূলের সংস্কৃতি। পুলিশএই ঘটনার তদন্ত করলেপিস্তল ছাড়া আরও অনেক কিছু পাবে। পুলিশ বন্দুক, বোমা এমনকি একে-৪৭ খুঁজে পাবে বলেও মন্তব্য করে তিনি। এই বিজেপি নেতা বলেন, আমি নিশ্চিত মমতা ব্যানার্জি এটা দেখেছেন। কিন্তু তিনি কোনো ব্যবস্থা নেবেন না।

এদিকে এই ঘটনায় তৃণমূলের নেতারা নিজেরাও অস্বস্তিতে রয়েছেন। এমন সময়ে এই ঘটনা ঘটেছে যখন তৃণমূলের প্রধান মমতা ব্যনার্জি ওই জেলায় ভ্রমণ করেছেন। ওই নেত্রীর হাতে সত্যিকারের পিস্তল ছিল, না-কি খেলনা পিস্তল; সেটা যাচাইয়ের জন্য তদন্ত দাবি করা হয়েছে।

তৃণমূলের রাজ্য মহাসচিব কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী বলেন, তার মনে হয়েছে এটা সত্যিকারের পিস্তল। এই ঘটনা দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করছে উল্লেখ করে তিনি পুলিশকে ঘটনা তদন্ত করা উচিত বলেও মন্তব্য করেন।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, তৃণমূল নেত্রী মৃণালিনী মন্ডল মাইতি একাধিকবার বিতর্কে জড়িয়েছেন। তার স্বামীর বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারিকে মারধরসহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

এই ঘটনায় মন্তব্য নিতে তৃণমূল নেত্রী মৃণালিনী মন্ডল মাইতির সঙ্গে এনডিটিভি যোগাযোগ করে। কিন্তু তিনি যোগাযোগে সাড়া দেননি।

সরকারি অফিসে পিস্তল হাতে নেত্রীর ছবি ভাইরাল

 অনলাইন ডেস্ক 
০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:৩৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সরকারি অফিসে বসে হাতে পিস্তল নিয়ে সেলফি তুলছেন এক নেত্রী। এমন একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। 

ঘটনার পর প্রতিপক্ষ দল দাবি করেছে, এই নেত্রীর কক্ষে তল্লাশি চালানো হলে শুধু পিস্তল নয়, বন্দুক, বোমা এমনকি একে-৪৭ রাইফেলও পাওয়া যাবে। 

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এই ঘটনা ঘটেছে। 

এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে এই নেত্রীর নাম মৃণালিনী মন্ডল মাইতি। তিনি মালদা জেলার তৃণমূলের সিনিয়র নেত্রী। 

খবরে আরও বলা হয়েছে, মালদা জেলার এই তৃণমূল নেত্রী মৃণালিনী মন্ডল ‘ওল্ড মালদা পঞ্জায়েত সমতির সভাপতির দায়িত্বও পালন করছেন। স্থানীয় সরকারের ব্লক ডেভলপমেন্ট (বিডিও)অফিসে  পিস্তল হাতে তার একটি ছবি ভাইরাল হয়। 

এই ঘটনায় তৃণমূলের নেতারা নিজেরাও অস্বস্তিতে রয়েছেন

ঘটনার পর মালদা জেলার বিজেপির সভাপতি গোবিন্দ্র চন্দ্র মন্ডল বলেন, এটা তৃণমূলের সংস্কৃতি। পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত করলে পিস্তল ছাড়া আরও অনেক কিছু পাবে। পুলিশ বন্দুক, বোমা এমনকি একে-৪৭ খুঁজে পাবে বলেও মন্তব্য করে তিনি। এই বিজেপি নেতা বলেন, আমি নিশ্চিত মমতা ব্যানার্জি এটা দেখেছেন। কিন্তু তিনি কোনো ব্যবস্থা নেবেন না। 

এদিকে এই ঘটনায় তৃণমূলের নেতারা নিজেরাও অস্বস্তিতে রয়েছেন। এমন সময়ে এই ঘটনা ঘটেছে যখন তৃণমূলের প্রধান মমতা ব্যনার্জি ওই জেলায় ভ্রমণ করেছেন। ওই নেত্রীর হাতে সত্যিকারের পিস্তল ছিল, না-কি খেলনা পিস্তল; সেটা যাচাইয়ের জন্য তদন্ত দাবি করা হয়েছে। 

তৃণমূলের রাজ্য মহাসচিব কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী বলেন, তার মনে হয়েছে এটা সত্যিকারের পিস্তল। এই ঘটনা দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করছে উল্লেখ করে তিনি পুলিশকে ঘটনা তদন্ত করা উচিত বলেও মন্তব্য করেন। 

এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, তৃণমূল নেত্রী মৃণালিনী মন্ডল মাইতি একাধিকবার বিতর্কে জড়িয়েছেন। তার স্বামীর বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারিকে মারধরসহ একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

এই ঘটনায় মন্তব্য নিতে তৃণমূল নেত্রী মৃণালিনী মন্ডল মাইতির সঙ্গে এনডিটিভি যোগাযোগ করে। কিন্তু তিনি যোগাযোগে সাড়া দেননি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন