বিএসএফ কর্মকর্তার সম্পদ দেখে হতবাক পুলিশ
jugantor
বিএসএফ কর্মকর্তার সম্পদ দেখে হতবাক পুলিশ

  অনলাইন ডেস্ক  

১৭ জানুয়ারি ২০২২, ০৩:৪৪:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

পুলিশ সার্ভিস কর্মকর্তা (আইপিএস) পরিচয় দিয়েব্যবসায়ীদের কাছ থেকে দিনের পর দিন হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি টাকা। এমনপ্রতারণার অভিযোগে এক বিএসএফ কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেছে ভারতের পুলিশ। দেশটিরহরিয়ানা রাজ্যে এই ঘটনা ঘটেছে।

ভারতের স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, অভিযুক্তের বাড়িতে তল্লাশি চালাতে গিয়েপুলিশহতবাক হয়ে যায়। এই বিএসএফ কর্মকর্তার বাড়ি থেকে নগদ ১৪ কোটি টাকা, এক কোটি টাকা মূল্যের সোনার গয়না এবং বিএমডব্লু, মার্সেডিসসহ সাত-সাতটি ঝকঝকেগাড়ি জব্দ করা হয়।।

অভিযুক্ত বিএসএফ কর্মকর্তার নাম প্রবীণ যাদব। তিনি গুরুগ্রাম জেলার মানেসরে ‘ন্যাশনাল সিকিউরিটি গার্ড’ (এনএসজি)-এর সদর দফতরে নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবর অনুসারে, বিএসএফ ডেপুটি কমান্ডান্ট প্রবীণের বিরুদ্ধে সব মিলিয়ে প্রায় ১২৫ কোটি টাকা প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। তাকে ইতোমধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে। একইসঙ্গে গ্রেফতার হয়েছেন তার স্ত্রী মমতা যাদব এবং বোন ঋতু।

পুলিশ জানিয়েছে, আইপিএস অফিসার সেজে এনএসজির ক্যাম্পাসে নির্মাণ কাজ পাইয়ে দেওয়ার কথা বলেকোটি কোটি টাকা তুলতেন প্রবীণ। তার পর সেই টাকা এনএসজি-র নামে একটি ভুয়ো অ্যাকাউন্টে পাঠাতেন তিনি। এই কাজে তাকে সাহায্য করতেন তার বোন, যিনি একটি বেসরকারি ব্যাঙ্কের ম্যানেজার।

গুরুগ্রামের পুলিশ কর্মকর্তা প্রীতপাল সিংহ বলেন, শেয়ার বাজারে ৬০ লক্ষ টাকা খুইয়ে মানুষকে ঠকানো শুরু করে প্রবীণ।

বিএসএফ কর্মকর্তার সম্পদ দেখে হতবাক পুলিশ

 অনলাইন ডেস্ক 
১৭ জানুয়ারি ২০২২, ০৩:৪৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পুলিশ সার্ভিস কর্মকর্তা (আইপিএস) পরিচয় দিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে দিনের পর দিন হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি টাকা। এমন প্রতারণার অভিযোগে এক বিএসএফ কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেছে ভারতের পুলিশ। দেশটির হরিয়ানা রাজ্যে এই ঘটনা ঘটেছে। 

ভারতের স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, অভিযুক্তের বাড়িতে তল্লাশি চালাতে গিয়ে পুলিশ হতবাক হয়ে যায়। এই বিএসএফ কর্মকর্তার বাড়ি থেকে নগদ ১৪ কোটি টাকা, এক কোটি টাকা মূল্যের সোনার গয়না এবং বিএমডব্লু, মার্সেডিসসহ সাত-সাতটি ঝকঝকে গাড়ি জব্দ করা হয়।।

অভিযুক্ত বিএসএফ কর্মকর্তার নাম প্রবীণ যাদব। তিনি গুরুগ্রাম জেলার মানেসরে ‘ন্যাশনাল সিকিউরিটি গার্ড’ (এনএসজি)-এর সদর দফতরে নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন। 

আনন্দবাজার পত্রিকার খবর অনুসারে, বিএসএফ ডেপুটি কমান্ডান্ট প্রবীণের বিরুদ্ধে সব মিলিয়ে প্রায় ১২৫ কোটি টাকা প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। তাকে ইতোমধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে। একইসঙ্গে গ্রেফতার হয়েছেন তার স্ত্রী মমতা যাদব এবং বোন ঋতু।

পুলিশ জানিয়েছে, আইপিএস অফিসার সেজে এনএসজির ক্যাম্পাসে নির্মাণ কাজ পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে কোটি কোটি টাকা তুলতেন প্রবীণ। তার পর সেই টাকা এনএসজি-র নামে একটি ভুয়ো অ্যাকাউন্টে পাঠাতেন তিনি। এই কাজে তাকে সাহায্য করতেন তার বোন, যিনি একটি বেসরকারি ব্যাঙ্কের ম্যানেজার।

গুরুগ্রামের পুলিশ কর্মকর্তা প্রীতপাল সিংহ বলেন, শেয়ার বাজারে ৬০ লক্ষ টাকা খুইয়ে মানুষকে ঠকানো শুরু করে প্রবীণ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন