মোনাকোর চেয়েও ৩৯ গুণ বড় পুতিনের ‘গোপন প্রাসাদ’!
jugantor
মোনাকোর চেয়েও ৩৯ গুণ বড় পুতিনের ‘গোপন প্রাসাদ’!

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৩ জানুয়ারি ২০২২, ১৯:১৬:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

রাশিয়ার কারাবন্দি বিদ্রোহী নেতা আলেক্সি নাভালনির মিত্ররা একটি বিলাসবহুল প্রাসাদের প্রায় পাঁচশ ছবি প্রকাশ করেছে। তাদের দাবি বিলাসবহুল ওই প্রাসাদ রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের। প্রায় ১ বিলিয়ম মার্কিন ডলার ব্যয়ে নির্মিত ইউরোপীয় দেশ মোনাকোর চেয়েও বড় ওই প্রাসাদের খবর পুতিন গোপন রেখেছেন বলে দাবি করেছেন তারা। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই প্রসাদটি কৃষ্ণ সাগারের তীরবর্তী শহর জেলেন্ডজিকের কাছে অবস্থিত। নাভালনির নিষিদ্ধ ঘোষিত দুর্নীতিবিরোধী ফাউন্ডেশন (এফবিকে) অনলাইনে ছবিগুলো প্রকাশ করে। এফবিকে’র দাবি প্রসাদটি নির্মাণের সময় ছবিগুলো তোলা হয়েছিল।

বছরখানেক আগেই ওই প্রাসাদ নির্মাণ করা হচ্ছে বলে দাবি করেছিল নাভালনির দুর্নীতিবিরোধী ফাউন্ডেশন। গত বছর ফাঁস হওয়া আসবাবপত্রের ক্যাটালগ ও ব্লুপ্রিন্টের ওপর ভিত্তি করে কম্পিটারে তৈরি ছবি ব্যবহার করে ওই প্রাসাদের বিশদ বিবরণ দিয়েছিল এফবিকে।

যদিও সে সময় পুতিন ওই প্রাসাদের অস্তিতই অস্বীকার করে বলেছিলেন, সেখানে আমার কিছু নেই, কখনো ছিল না।

নাভালনির তদন্তকারী দল অভিযোগ করেছে অবৈধ তহবিল ব্যবহার করে প্রাসাদটি তৈরি করা হয়েছে। প্রাসাদটি বিশ্বের দ্বিতীয় ক্ষুদ্রতম দেশ মোনাকোর ৩৯ গুণ বড় বলে দাবি করেছে নাভালনির তদন্তকারী দল।

অনলাইনে প্রকাশিত ছবিতে প্রাসাদের বিশাল বেডরুম, একটি ওয়াইন সেলার, একটি জমকালো থিয়েটার, একটি অসমাপ্ত মার্বেল সুইমিং পুল এবং আবরীয় স্টাইলে তৈরি একটি হুক্কা লাউঞ্জসহ অভ্যন্তরে বিভিন্ন আধুনিক ব্যবস্থা রয়েছে বলে দেখা গেছে।

এছাড়া প্রাসাদের ভেতর রয়েছে একটা বিশাল সিনেমা হল ও ক্যাসিনো। প্রাসাদের অভ্যন্তরে রয়েছে একটি আবছা আলোকিত কক্ষ।

প্রাসাদটি পুতিনের ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে বলে দাবি করেছে এফবিকে। প্রাসাদটির সজ্জায় ব্যবহার করা হয়েছে শত শত দুই মাথা ঈগল, যা রাশিয়ার জাতীয় প্রতীক।

মোনাকোর চেয়েও ৩৯ গুণ বড় পুতিনের ‘গোপন প্রাসাদ’!

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৩ জানুয়ারি ২০২২, ০৭:১৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাশিয়ার কারাবন্দি বিদ্রোহী নেতা আলেক্সি নাভালনির মিত্ররা একটি বিলাসবহুল প্রাসাদের প্রায় পাঁচশ ছবি প্রকাশ করেছে। তাদের দাবি বিলাসবহুল ওই প্রাসাদ রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের। প্রায় ১ বিলিয়ম মার্কিন ডলার ব্যয়ে নির্মিত ইউরোপীয় দেশ মোনাকোর চেয়েও বড় ওই প্রাসাদের খবর পুতিন গোপন রেখেছেন বলে দাবি করেছেন তারা।  ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,  ওই প্রসাদটি কৃষ্ণ সাগারের তীরবর্তী শহর জেলেন্ডজিকের কাছে অবস্থিত। নাভালনির নিষিদ্ধ ঘোষিত দুর্নীতিবিরোধী ফাউন্ডেশন (এফবিকে) অনলাইনে ছবিগুলো প্রকাশ করে।  এফবিকে’র দাবি প্রসাদটি নির্মাণের সময় ছবিগুলো তোলা হয়েছিল। 

বছরখানেক আগেই ওই প্রাসাদ নির্মাণ করা হচ্ছে বলে দাবি করেছিল নাভালনির দুর্নীতিবিরোধী ফাউন্ডেশন। গত বছর ফাঁস হওয়া আসবাবপত্রের ক্যাটালগ ও ব্লুপ্রিন্টের ওপর ভিত্তি করে কম্পিটারে তৈরি ছবি ব্যবহার করে ওই প্রাসাদের বিশদ বিবরণ দিয়েছিল এফবিকে। 

যদিও সে সময় পুতিন ওই প্রাসাদের অস্তিতই অস্বীকার করে বলেছিলেন, সেখানে আমার কিছু নেই, কখনো ছিল না।

নাভালনির তদন্তকারী দল অভিযোগ করেছে অবৈধ তহবিল ব্যবহার করে প্রাসাদটি তৈরি করা হয়েছে।  প্রাসাদটি বিশ্বের দ্বিতীয় ক্ষুদ্রতম দেশ মোনাকোর ৩৯ গুণ বড় বলে দাবি করেছে নাভালনির তদন্তকারী দল। 

অনলাইনে প্রকাশিত ছবিতে প্রাসাদের বিশাল বেডরুম, একটি ওয়াইন সেলার, একটি জমকালো থিয়েটার, একটি অসমাপ্ত মার্বেল সুইমিং পুল এবং আবরীয় স্টাইলে তৈরি একটি হুক্কা লাউঞ্জসহ অভ্যন্তরে বিভিন্ন আধুনিক ব্যবস্থা রয়েছে বলে দেখা গেছে। 

এছাড়া প্রাসাদের ভেতর রয়েছে একটা বিশাল সিনেমা হল ও ক্যাসিনো। প্রাসাদের অভ্যন্তরে রয়েছে একটি আবছা আলোকিত কক্ষ। 

প্রাসাদটি পুতিনের ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে বলে দাবি করেছে এফবিকে।  প্রাসাদটির সজ্জায় ব্যবহার করা হয়েছে শত শত দুই মাথা ঈগল, যা রাশিয়ার জাতীয় প্রতীক।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন