নাইন ইলিভেনের হামলায় সৌদি সংশ্লিষ্টতার নতুন প্রমাণ!
jugantor
নাইন ইলিভেনের হামলায় সৌদি সংশ্লিষ্টতার নতুন প্রমাণ!

  অনলাইন ডেস্ক  

০১ মে ২০২২, ২১:৫৭:৫৮  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রে ৯/১১ হামলার ঘটনায় ব্রিটিশ মেট্রোপলিটান পুলিশের কাছে সৌদির সংশ্লিষ্টতার নতুন প্রমাণ মিলেছে বলে মার্কিন গণমাধ্যম সিবিএস নিউজের এক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে।

ইংল্যান্ডে বসবাসকারী নিউইয়র্কের এক বাসিন্দার পরিবারের সদস্যের কাছ থেকে পুলিশ এসব তথ্য প্রমাণ উদ্ধার করে বলে সিবিএস নিউজের ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। খবর আরব নিউজের।

আন্তর্জাতিক সহযোগিতা চাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে এসব তথ্য প্রমাণ পাঠানো হয়।

এসব দলিল দস্তাবেদের মধ্যে আছে ১৪ হাজার পাতার নথিপত্র, ২০ ঘণ্টার ভিডিও ফুটেজ, কয়েকশ' ছবি এবং পুলিশের নেওয়া কয়েক ঘণ্টার সাক্ষাৎকারের রেকর্ড।

২০০১ সালের সেপ্টেম্বরে ওমর আল বাইয়োমি নামে সৌদি এক নাগরিকের বাসা ও অফিসে তল্লাশি চালিয়ে ইংল্যান্ড মেট্রোপলিটান পুলিশের একটি দল এসব তথ্য প্রমাণ জব্দ করে।

সৌদি ওই নাগরিকের বাসা থেকে উদ্ধার করা একটি ভিডিও ফুটেজে দু্ই বিমান ছিনতাইকারী খালিদ আল-মিহদার ও নাওয়াফ আল হাজমিকে তিনি পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে ব্রিটিশ পুলিশের দাবি।

২০০০ সালে সান দিয়াগোতে ওমর আল বাইয়োমি ৯/১১ এর দুই হামলাকারীর সঙ্গে সৌদি কর্মকর্তাদের সাক্ষাৎ করিয়েছিলেন।

এ সময় সেখানে ইয়েমন বংশোদ্ভূত মার্কিন ইসলামি চিন্তাবিদ আনোয়ার আল-আওলাকিকে কোলাকুলি করতে দেখা যায়।

আল-কায়দা নেতা সন্দেহে ২০১১ সালে তাকে ইয়েমেনে মার্কিন বাহিনী তাকে ড্রোন হামলা চালিয়ে হত্যা করে।

যে সব নথিপত্র জব্দ করেছে পুলিশ, তার মধ্যে একটি বিমানের আঁকা ছবিও রয়েছে।

৯/১১ হামলার দুই সপ্তাহ পরই ব্রিটেনে পুলিশের হাতে ধরা পড়েন ওমর আল বাইয়োমি।

এসব দলিল এখন যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে পাঠানো হচ্ছে। তবে, বরাবরের মতো এবারও টুইন-টাওয়ার হামলায় নিজেদের সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করে আসছে সৌদি আরব।

তবে, বিশ্লেষকরা মনে করছেন, সৌদি আরব সম্প্রতি ইরানের সঙ্গে দ্বন্দ্ব নিরসনের যে উদ্যোগ নিয়েছে, তাতে বাধা সৃষ্টি করতে এবং রিয়াদকে মার্কিন বলয়ে ফিরিয়ে আনতেই নতুন এ তথ্য প্রমাণ হাজির করা হচ্ছে।

নাইন ইলিভেনের হামলায় সৌদি সংশ্লিষ্টতার নতুন প্রমাণ!

 অনলাইন ডেস্ক 
০১ মে ২০২২, ০৯:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রে ৯/১১ হামলার ঘটনায় ব্রিটিশ মেট্রোপলিটান পুলিশের কাছে সৌদির সংশ্লিষ্টতার নতুন প্রমাণ মিলেছে বলে মার্কিন গণমাধ্যম সিবিএস নিউজের এক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে।

ইংল্যান্ডে বসবাসকারী নিউইয়র্কের এক বাসিন্দার পরিবারের সদস্যের কাছ থেকে পুলিশ এসব তথ্য প্রমাণ উদ্ধার করে বলে সিবিএস নিউজের ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। খবর আরব নিউজের।

আন্তর্জাতিক সহযোগিতা চাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে এসব তথ্য প্রমাণ পাঠানো হয়।

এসব দলিল দস্তাবেদের মধ্যে আছে ১৪ হাজার পাতার নথিপত্র, ২০ ঘণ্টার ভিডিও ফুটেজ, কয়েকশ' ছবি এবং পুলিশের নেওয়া কয়েক ঘণ্টার সাক্ষাৎকারের রেকর্ড।

২০০১ সালের সেপ্টেম্বরে ওমর আল বাইয়োমি নামে সৌদি এক নাগরিকের বাসা ও অফিসে তল্লাশি চালিয়ে ইংল্যান্ড মেট্রোপলিটান পুলিশের একটি দল এসব তথ্য প্রমাণ জব্দ করে।

সৌদি ওই নাগরিকের বাসা থেকে উদ্ধার করা একটি ভিডিও ফুটেজে দু্ই বিমান ছিনতাইকারী খালিদ আল-মিহদার ও নাওয়াফ আল হাজমিকে তিনি পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে ব্রিটিশ পুলিশের দাবি।

২০০০ সালে সান দিয়াগোতে ওমর আল বাইয়োমি ৯/১১ এর দুই হামলাকারীর সঙ্গে সৌদি কর্মকর্তাদের সাক্ষাৎ করিয়েছিলেন।

এ সময় সেখানে ইয়েমন বংশোদ্ভূত মার্কিন ইসলামি চিন্তাবিদ আনোয়ার আল-আওলাকিকে কোলাকুলি করতে দেখা যায়।

আল-কায়দা নেতা সন্দেহে ২০১১ সালে তাকে ইয়েমেনে মার্কিন বাহিনী তাকে ড্রোন হামলা চালিয়ে হত্যা করে।

যে সব নথিপত্র জব্দ করেছে পুলিশ, তার মধ্যে একটি বিমানের আঁকা ছবিও রয়েছে।

৯/১১ হামলার দুই সপ্তাহ পরই ব্রিটেনে পুলিশের হাতে ধরা পড়েন ওমর আল বাইয়োমি।

এসব দলিল এখন যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে পাঠানো হচ্ছে। তবে, বরাবরের মতো এবারও টুইন-টাওয়ার হামলায় নিজেদের সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করে আসছে সৌদি আরব।

তবে, বিশ্লেষকরা মনে করছেন, সৌদি আরব সম্প্রতি ইরানের সঙ্গে দ্বন্দ্ব নিরসনের যে উদ্যোগ নিয়েছে, তাতে বাধা সৃষ্টি করতে এবং রিয়াদকে মার্কিন বলয়ে ফিরিয়ে আনতেই নতুন এ তথ্য প্রমাণ হাজির করা হচ্ছে।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর