ইউক্রেনের বন্দর খুলে দিতে কঠিন শর্ত দিল রাশিয়া
jugantor
ইউক্রেনের বন্দর খুলে দিতে কঠিন শর্ত দিল রাশিয়া

  অনলাইন ডেস্ক  

১৯ মে ২০২২, ১৭:৪১:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

ইউক্রেনের কৃষ্ণ সাগর অঞ্চলের বেশিরভাগ বন্দর এখন রাশিয়ার দখলে। এ বন্দরগুলো দিয়ে ইউক্রেন বিশ্বে খাদ্যপণ্য ও শস্য রপ্তানি করত।

কিন্তু রাশিয়া বন্দরগুলো বন্ধ করে রাখায় এখন বিশ্বে খাদ্য সংকটের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

আর এ আশঙ্কা থেকে জাতিসংঘের খাদ্য প্রধান ডেভিড বিসলে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে উদ্দেশ্য করে সরাসরি অনুরোধ করেছেন, যদি পুরো বিশ্বের জন্য আপনার কোনো মানবিক মন থাকে, ইউক্রেনকে নিয়ে কি ভাবেন সেটি বাদ দিয়ে আপনার সেই বন্দরগুলো খুলে দেওয়া উচিত।

আর জাতিসংঘের খাদ্য প্রধানের এমন বক্তব্যের পর রাশিয়া জানিয়েছে, তারা বিষয়টি বিবেচনা করবে।

কিন্তু এর জন্য কঠিন শর্ত জুড়ে দিয়েছে তারা।

শর্তটি হলো রাশিয়ার ওপর যেসব নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে সেগুলোও উঠিয়ে দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করতে হবে।

রাশিয়ার সংবাদ সংস্থা ইন্টারফ্যাক্স দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে জানিয়েছে এমন শর্তের কথা।

এদিকে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ ও প্রয়োজনীয় কৃষিপণ্যের রপ্তানিকারক শীর্ষ পাঁচ দেশের মধ্যে রয়েছে ইউক্রেন।

তারা ভুট্টা, গম, বার্লি রপ্তানি করে থাকে। তাছাড়া সানফ্লাওয়ার তেল এবং ময়দাও রপ্তানি করে।

বন্দর খুলে দেওয়ার ব্যাপারে শর্তের কথা জানিয়ে রাশিয়ার ডেপুটি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আন্দ্রে রুদেনকো বলেছেন, যদি আমাদের বন্ধুরা কোনো সমাধানে পৌঁছাতে চায়, অন্যান্য বিষয়গুলোর মতো এটিও জরুরী। সমস্যা সমাধানেরাশিয়ার রপ্তানির ওপর যেসব নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে সেগুলোও তুলে দিতে হবে।

ইউক্রেন তাদের উৎপাদিত পণ্য সমুদ্র বন্দর দিয়ে রপ্তানি করত। কিন্তু রাশিয়া হামলা চালানোর পর ট্রেন এবং দানুবে নদীর ছোট বন্দর দিয়ে রপ্তানি করছে।

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান, আল জাজিরা

ইউক্রেনের বন্দর খুলে দিতে কঠিন শর্ত দিল রাশিয়া

 অনলাইন ডেস্ক 
১৯ মে ২০২২, ০৫:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইউক্রেনের কৃষ্ণ সাগর অঞ্চলের বেশিরভাগ বন্দর এখন রাশিয়ার দখলে। এ বন্দরগুলো দিয়ে ইউক্রেন বিশ্বে খাদ্যপণ্য ও শস্য রপ্তানি করত। 

কিন্তু রাশিয়া বন্দরগুলো বন্ধ করে রাখায় এখন বিশ্বে খাদ্য সংকটের আশঙ্কা করা হচ্ছে। 

আর এ আশঙ্কা থেকে জাতিসংঘের খাদ্য প্রধান ডেভিড বিসলে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে উদ্দেশ্য করে সরাসরি অনুরোধ করেছেন, যদি পুরো বিশ্বের জন্য আপনার কোনো মানবিক মন থাকে, ইউক্রেনকে নিয়ে কি ভাবেন সেটি বাদ দিয়ে আপনার সেই বন্দরগুলো খুলে দেওয়া উচিত। 

আর জাতিসংঘের খাদ্য প্রধানের এমন বক্তব্যের পর রাশিয়া জানিয়েছে, তারা বিষয়টি বিবেচনা করবে। 

কিন্তু এর জন্য কঠিন শর্ত জুড়ে দিয়েছে তারা। 

শর্তটি হলো রাশিয়ার ওপর যেসব নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে সেগুলোও উঠিয়ে দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করতে হবে। 

রাশিয়ার সংবাদ সংস্থা ইন্টারফ্যাক্স দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে জানিয়েছে এমন শর্তের কথা। 

এদিকে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ ও প্রয়োজনীয় কৃষিপণ্যের রপ্তানিকারক শীর্ষ পাঁচ দেশের মধ্যে রয়েছে ইউক্রেন। 

তারা ভুট্টা, গম, বার্লি রপ্তানি করে থাকে। তাছাড়া সানফ্লাওয়ার তেল এবং ময়দাও রপ্তানি করে। 

বন্দর খুলে দেওয়ার ব্যাপারে শর্তের কথা জানিয়ে রাশিয়ার ডেপুটি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আন্দ্রে রুদেনকো বলেছেন, যদি আমাদের বন্ধুরা কোনো সমাধানে পৌঁছাতে চায়, অন্যান্য বিষয়গুলোর মতো এটিও জরুরী। সমস্যা সমাধানে রাশিয়ার রপ্তানির ওপর যেসব নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে সেগুলোও তুলে দিতে হবে।

ইউক্রেন তাদের উৎপাদিত পণ্য সমুদ্র বন্দর দিয়ে রপ্তানি করত। কিন্তু রাশিয়া হামলা চালানোর পর ট্রেন এবং দানুবে নদীর ছোট বন্দর দিয়ে রপ্তানি করছে।

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান, আল জাজিরা

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : রাশিয়া-ইউক্রেন উত্তেজনা