ন্যাটো মোকাবিলায় পাল্টা যে ব্যবস্থা নিচ্ছে রাশিয়া
jugantor
ন্যাটো মোকাবিলায় পাল্টা যে ব্যবস্থা নিচ্ছে রাশিয়া

  অনলাইন ডেস্ক  

২১ মে ২০২২, ০৯:৪১:২৬  |  অনলাইন সংস্করণ

পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর সম্প্রসারণের প্রতিক্রিয়ায় রাশিয়া পশ্চিমাঞ্চলে আরও বেশি সামরিক শক্তি বৃদ্ধির ঘোষণা দিয়েছে। সামরিক বাহিনীর সক্ষমতা বাড়াতে ক্রেমলিন বেশ কিছু পদক্ষেপ নেওয়ার কথাও জানিয়েছে।

শুক্রবার রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু টেলিভিশনে সম্প্রচার হওয়া এক বৈঠকে এ কথা বলেন। খবর আলজাজিরার।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রতিবেশী ফিনল্যান্ড ও সুইডেন ন্যাটোতে যোগদানের আনুষ্ঠানিক আবেদনের পর মস্কোর এই পদক্ষেপের কথা জানিয়েছে। ইউক্রেনও জোটটিতে যোগদানের চেষ্টা করছিল। সেটা ঠেকাতেই মূলত দেশটিতে হামলা করে রাশিয়া।

রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু বলেন, ন্যাটোর সম্প্রসারণের প্রতিক্রিয়ায় পর্যাপ্ত পাল্টা ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন তারা। চলতি বছরের শেষ দিকে রাশিয়ার পশ্চিম মিলিটারি ডিস্ট্রিক্টে ১২টি সামরিক ইউনিট ও ডিভিশন গড়ে তোলা হবে। রুশ সেনাবাহিনীকে দুই হাজারের বেশি সামরিক সরঞ্জাম ও অস্ত্র দেওয়া হবে।

রুশ আগ্রাসন ঠেকাতে ইউক্রেনের পশ্চিমাপন্থী সরকার ন্যাটোতে যোগদানের পরিকল্পনা শুরু করে। বিষয়টি একসময়কার ঘনিষ্ঠ মিত্র ও প্রতিবেশী রাশিয়াকে উদ্বিগ্ন করে তোলে। ইউক্রেনে নাৎসিবাদকে নির্মূলের কথা বলে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি দেশটিতে হামলা শুরু করে রাশিয়া। সেই যুদ্ধ এখনো চলছে।

প্রসঙ্গত, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের ঘোষণা দেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এর পর আজ পর্যন্ত টানা ৮৬ দিনের মতো চলছে দেশ দুইটির সংঘাত। এতে দুই পক্ষের বহু মানুষের হতাহতের খবর পাওয়া যাচ্ছে। তবে যুদ্ধ বন্ধে এখন পর্যন্ত কোনো লক্ষণ নেই। উল্টো পূর্ব ইউক্রেনে দেশ দুইটির সংঘাত ক্রমশ বেড়েছে। এই সংঘাতে ইউক্রেন থেকে প্রায় ৬০ লাখ মানুষ দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন।

ন্যাটো মোকাবিলায় পাল্টা যে ব্যবস্থা নিচ্ছে রাশিয়া

 অনলাইন ডেস্ক 
২১ মে ২০২২, ০৯:৪১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোর সম্প্রসারণের প্রতিক্রিয়ায় রাশিয়া পশ্চিমাঞ্চলে আরও বেশি সামরিক শক্তি বৃদ্ধির ঘোষণা দিয়েছে। সামরিক বাহিনীর সক্ষমতা বাড়াতে ক্রেমলিন বেশ কিছু পদক্ষেপ নেওয়ার কথাও জানিয়েছে।

শুক্রবার রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু টেলিভিশনে সম্প্রচার হওয়া এক বৈঠকে এ কথা বলেন। খবর আলজাজিরার।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রতিবেশী ফিনল্যান্ড ও সুইডেন ন্যাটোতে যোগদানের আনুষ্ঠানিক আবেদনের পর মস্কোর এই পদক্ষেপের কথা জানিয়েছে। ইউক্রেনও জোটটিতে যোগদানের চেষ্টা করছিল। সেটা ঠেকাতেই মূলত দেশটিতে হামলা করে রাশিয়া।

রুশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু বলেন, ন্যাটোর সম্প্রসারণের প্রতিক্রিয়ায় পর্যাপ্ত পাল্টা ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন তারা। চলতি বছরের শেষ দিকে রাশিয়ার পশ্চিম মিলিটারি ডিস্ট্রিক্টে ১২টি সামরিক ইউনিট ও ডিভিশন গড়ে তোলা হবে। রুশ সেনাবাহিনীকে দুই হাজারের বেশি সামরিক সরঞ্জাম ও অস্ত্র দেওয়া হবে।

রুশ আগ্রাসন ঠেকাতে ইউক্রেনের পশ্চিমাপন্থী সরকার ন্যাটোতে যোগদানের পরিকল্পনা শুরু করে। বিষয়টি একসময়কার ঘনিষ্ঠ মিত্র ও প্রতিবেশী রাশিয়াকে উদ্বিগ্ন করে তোলে। ইউক্রেনে নাৎসিবাদকে নির্মূলের কথা বলে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি দেশটিতে হামলা শুরু করে রাশিয়া। সেই যুদ্ধ এখনো চলছে। 

প্রসঙ্গত, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযানের ঘোষণা দেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এর পর আজ পর্যন্ত টানা ৮৬ দিনের মতো চলছে দেশ দুইটির সংঘাত। এতে দুই পক্ষের বহু মানুষের হতাহতের খবর পাওয়া যাচ্ছে। তবে যুদ্ধ বন্ধে এখন পর্যন্ত কোনো লক্ষণ নেই। উল্টো পূর্ব ইউক্রেনে দেশ দুইটির সংঘাত ক্রমশ বেড়েছে। এই সংঘাতে ইউক্রেন থেকে প্রায় ৬০ লাখ মানুষ দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : রাশিয়া-ইউক্রেন উত্তেজনা