শতাধিক বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে মিয়ানমার জান্তা
jugantor
শতাধিক বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে মিয়ানমার জান্তা

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৪ জুন ২০২২, ১৮:১১:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

মিয়ানমারের সামরিক জান্তা দেশটির উত্তরাঞ্চলে গত তিনদিনের অভিযানে শতাধিক বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ও বাসিন্দাদের বরাত দিয়ে শনিবার বার্তা সংস্থা এএফপি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, সেনারা গত সপ্তাহে তিনদিন ধরে কিন, আপার কিন এবং কে তাউং গ্রামের শতাধিক ভবনে আগুন দিয়েছে।

সাগাইং অঞ্চলে গত বছরের অভ্যুত্থানের পর থেকেই ভয়াবহ ও রক্তক্ষয়ী প্রতিশোধ গড়ে তোলা হয়েছে। স্থানীয় ‘পিপলস ডিফেন্স ফোর্সের’ (পিডিএফ) সদস্যরা নিয়মিত জান্তা সৈন্যদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছে।

বিশ্লেষকদের মতে, অনানুষ্ঠানিক মিলিশিয়া বাহিনী তাদের কার্যদক্ষতা দিয়ে জান্তা বাহিনীকে বিস্মিত করে দিয়েছে। সামরিক বাহিনীও বহুবার স্থলভাগে সৈন্যদের সমর্থন করার জন্য বিমান হামলার আহ্বান জানিয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বাসিন্দা বলেন, ২৬ মে সৈন্যরা শূন্যে গুলি করতে করতে কাছে আসার সঙ্গে সঙ্গেই কিনের গ্রামবাসীরা পালিয়ে যায়। পরের দিন সকালে আমরা তাদের চলে যাওয়ার আগে আমাদের গ্রাম থেকে ধোঁয়া উঠতে দেখলাম। ২০০টিরও বেশি বাড়ি পুড়ে গেছে... আমার বাড়ি সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে, শুধু কংক্রিটের ভিত্তি অবশিষ্ট আছে।

ওই অগ্নিকাণ্ডের পরের চিত্রের একটি ড্রোন ফুটেজ এএফপির হাতে এসেছে। সেখানে দেখা গেছে, গ্রাম থেকে আকাশে ধোঁয়ার কুণ্ডুলি উঠছে। চিন্দউইন নদীর প্রায় আট কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ওই ধোঁয়া দেখা যায়।

এএফপি ডিজিটাল ভেরিফিকেশন প্রতিবেদকরা নিশ্চিত করেছেন, ফুটেজটি গত সপ্তাহের আগে অনলাইনে দেখা যায়নি। তবে ওই অঞ্চলের কোনো প্রতিবেদনে যাচাই করতে পারেনি বলে এএফপি জানিয়েছে।

শতাধিক বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে মিয়ানমার জান্তা

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৪ জুন ২০২২, ০৬:১১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মিয়ানমারের সামরিক জান্তা দেশটির উত্তরাঞ্চলে গত তিনদিনের অভিযানে শতাধিক বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ও বাসিন্দাদের বরাত দিয়ে শনিবার বার্তা সংস্থা এএফপি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। 

স্থানীয় বাসিন্দা ও গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, সেনারা গত সপ্তাহে তিনদিন ধরে কিন, আপার কিন এবং কে তাউং গ্রামের শতাধিক ভবনে আগুন দিয়েছে।

সাগাইং অঞ্চলে গত বছরের অভ্যুত্থানের পর থেকেই ভয়াবহ ও রক্তক্ষয়ী প্রতিশোধ গড়ে তোলা হয়েছে।  স্থানীয় ‘পিপলস ডিফেন্স ফোর্সের’ (পিডিএফ) সদস্যরা নিয়মিত জান্তা সৈন্যদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ছে। 

বিশ্লেষকদের মতে, অনানুষ্ঠানিক মিলিশিয়া বাহিনী তাদের কার্যদক্ষতা দিয়ে জান্তা বাহিনীকে বিস্মিত করে দিয়েছে। সামরিক বাহিনীও বহুবার স্থলভাগে সৈন্যদের সমর্থন করার জন্য বিমান হামলার আহ্বান জানিয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বাসিন্দা বলেন, ২৬ মে সৈন্যরা শূন্যে গুলি করতে করতে কাছে আসার সঙ্গে সঙ্গেই কিনের গ্রামবাসীরা পালিয়ে যায়। পরের দিন সকালে আমরা তাদের চলে যাওয়ার আগে আমাদের গ্রাম থেকে ধোঁয়া উঠতে দেখলাম। ২০০টিরও বেশি বাড়ি পুড়ে গেছে... আমার বাড়ি সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে, শুধু কংক্রিটের ভিত্তি অবশিষ্ট আছে।

ওই অগ্নিকাণ্ডের পরের চিত্রের একটি ড্রোন ফুটেজ এএফপির হাতে এসেছে। সেখানে দেখা গেছে, গ্রাম থেকে আকাশে ধোঁয়ার কুণ্ডুলি উঠছে।  চিন্দউইন নদীর প্রায় আট কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ওই ধোঁয়া দেখা যায়। 

এএফপি ডিজিটাল ভেরিফিকেশন প্রতিবেদকরা নিশ্চিত করেছেন, ফুটেজটি গত সপ্তাহের আগে অনলাইনে দেখা যায়নি। তবে  ওই অঞ্চলের কোনো  প্রতিবেদনে যাচাই করতে পারেনি বলে এএফপি জানিয়েছে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন