পরিচয় গুলিয়ে ফেলা: বাংলাদেশি লিজাকে ৩০ হাজার পাউন্ড দেবে বিবিসি
jugantor
পরিচয় গুলিয়ে ফেলা: বাংলাদেশি লিজাকে ৩০ হাজার পাউন্ড দেবে বিবিসি

  অনলাইন ডেস্ক  

১৫ জুন ২০২২, ২২:৫৭:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

লিজা

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক ও যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টির এমপি আপসানা বেগমকে নিয়ে একটি খবর প্রকাশ করে ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি।

তবে ওই খবরে আপসানা বেগমের জায়গায় দেখানো হয় লেবার পার্টির কাউন্সিলর আরেক ব্রিটিশ-বাংলাদেশি লিজা বেগমের ছবি।

২০২০ সালের ২৯ অক্টোবর বিবিসি ওয়ানে লেবার পার্টির ‘রেইস অ্যান্ড ফেইথ মেনিফেস্টো’নিয়ে প্রচারিত ওই খবরে লিজা বেগমের ছবি দেখিয়ে প্রতিবেদক বলেন- ইনি হলেন আপসানা বেগম। অসদাচরণের তিন দফা অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

প্রতারণা করে ফ্ল্যাট পাওয়ার অভিযোগ তুলে আপসানার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছিল, যে অভিযোগ থেকে তিনি পরে খালাস পান।

আর এমন ভুলের কারণে খেসারত দিতে হচ্ছে বিবিসিকে। লিজা বেগমকে জরিমানা হিসেবে তাদের ৩০ হাজার পাউন্ড দিতে হবে।

পরিচয় নিয়ে ভুলের কারণে লিজা বেগম বিশেষভাবে মানসিক যন্ত্রণার মধ্যে দিয়ে যান। কারণ দেখা যাচ্ছে বিবিসির মত অন্য গণমাধ্যমগুলোও সাধারণত বিএএমই (কালো, এশীয় ও সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠী) জনগোষ্ঠীর মানুষদের ভুল পরিচয় প্রচার করে থাকে, যা বর্ণবাদী প্রবণতাকে উসকে দেয়। মঙ্গলবার আদালতের একটি বিবৃতিতে বলা হয় এমন তথ্য।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, তিনি বিশেষভাবে কষ্ট পেয়েছেন, কারণ যাদের পরিচয় নিয়ে এই বিভ্রান্তি হয়েছে, তারা দুজনেই অশ্বেতাঙ্গ জনগোষ্ঠীর এবং দুজনই নারী। তারা একই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এবং ভুল ছবি প্রচারের আগে বিবিসির কেউ ওই পরিচয়ের ভুলটি শুধরে নেয়নি।

এদিকে লিজা বেগম জানিয়েছেন, এ ঘটনার জন্য বিবিসি দুঃখ প্রকাশ করেছে। কিন্তু গণমাধ্যমগুলো অশ্বেতাঙ্গদের নিয়ে এরকম ভুল করেই যাচ্ছে।

পরিচয় গুলিয়ে ফেলা: বাংলাদেশি লিজাকে ৩০ হাজার পাউন্ড দেবে বিবিসি

 অনলাইন ডেস্ক 
১৫ জুন ২০২২, ১০:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
লিজা
লিজা বেগম

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক ও যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টির এমপি আপসানা বেগমকে নিয়ে একটি খবর প্রকাশ করে ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি।

তবে ওই খবরে আপসানা বেগমের জায়গায় দেখানো হয় লেবার পার্টির কাউন্সিলর আরেক ব্রিটিশ-বাংলাদেশি লিজা বেগমের ছবি।

২০২০ সালের ২৯ অক্টোবর বিবিসি ওয়ানে লেবার পার্টির ‘রেইস অ্যান্ড ফেইথ মেনিফেস্টো’নিয়ে প্রচারিত ওই খবরে লিজা বেগমের ছবি দেখিয়ে প্রতিবেদক বলেন- ইনি হলেন আপসানা বেগম। অসদাচরণের তিন দফা অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

প্রতারণা করে ফ্ল্যাট পাওয়ার অভিযোগ তুলে আপসানার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছিল, যে অভিযোগ থেকে তিনি পরে খালাস পান।

আর এমন ভুলের কারণে খেসারত দিতে হচ্ছে বিবিসিকে। লিজা বেগমকে জরিমানা হিসেবে তাদের ৩০ হাজার পাউন্ড দিতে হবে।

পরিচয় নিয়ে ভুলের কারণে লিজা বেগম বিশেষভাবে মানসিক যন্ত্রণার মধ্যে দিয়ে যান। কারণ দেখা যাচ্ছে বিবিসির মত অন্য গণমাধ্যমগুলোও সাধারণত বিএএমই (কালো, এশীয় ও সংখ্যালঘু নৃগোষ্ঠী) জনগোষ্ঠীর মানুষদের ভুল পরিচয় প্রচার করে থাকে, যা বর্ণবাদী প্রবণতাকে উসকে দেয়। মঙ্গলবার আদালতের একটি বিবৃতিতে বলা হয় এমন তথ্য। 

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, তিনি বিশেষভাবে কষ্ট পেয়েছেন, কারণ যাদের পরিচয় নিয়ে এই বিভ্রান্তি হয়েছে, তারা দুজনেই অশ্বেতাঙ্গ জনগোষ্ঠীর এবং দুজনই নারী। তারা একই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এবং ভুল ছবি প্রচারের আগে বিবিসির কেউ ওই পরিচয়ের ভুলটি শুধরে নেয়নি।

এদিকে লিজা বেগম জানিয়েছেন, এ ঘটনার জন্য বিবিসি দুঃখ প্রকাশ করেছে। কিন্তু গণমাধ্যমগুলো অশ্বেতাঙ্গদের নিয়ে এরকম ভুল করেই যাচ্ছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন