ইউক্রেনকে ইইউয়ের সদস্যপ্রার্থীর মর্যাদা দেওয়ার পর যা বলল রাশিয়া
jugantor
ইউক্রেনকে ইইউয়ের সদস্যপ্রার্থীর মর্যাদা দেওয়ার পর যা বলল রাশিয়া

  অনলাইন ডেস্ক  

২৫ জুন ২০২২, ১০:০৫:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

মস্কো সামরিক জোট ন্যাটো এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিরুদ্ধে রাশিয়ার এ লড়াই করার জন্য দেশগুলোকে একত্রিত করার অভিযোগ করেছে পররাষ্ট্রমন্ত্রী লাভরভ।

শুক্রবার বাকুতে এক সংবাদ সম্মেলনে আজারবাইজানীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেহুন বায়রামভের সঙ্গে বৈঠকের সময় তিনি এ মন্তব্য করেন।

লাভরভ বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগের পরিস্থিতির কথা মনে করিয়ে দেয়। যখন হিটলার সোভিয়েত ইউনিয়নের বিরুদ্ধে যুদ্ধের জন্য বেশিরভাগ ইউরোপকে একত্রিত করেছিলেন।

তিনি আরও বলেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরুর আগে হিটলার ইউরোপের অধিকাংশ দেশকে তার ব্যানারে জড়ো করেছিলেন। এখন ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ন্যাটো একই কাজ করছে। তারা রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধের জন্য একটি জোট গঠন করছে।

সেই সময়, লাভরভ আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে সীমান্তের সীমানা নির্ধারণের বিষয়ে দ্বিতীয় দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের ঘোষণা দেন, যা মস্কোতে অনুষ্ঠিত হবে।

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী যোগ করেছেন, উভয়পক্ষ শান্তিপূর্ণ বৈঠকে সম্মত হয়েছে। উভয়পক্ষের সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে এই বৈঠকের সময় নির্ধারণ করা হবে। লাভরভ বাকু ও ইয়েরেভানের মধ্যে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের ক্ষেত্রে রাশিয়ার অবদানের কথাও স্মরণ করেন।

ইউক্রেন ও মলদোভাকে ইইউতে সদস্যপ্রার্থীর মর্যাদা দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে লাভরভ বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ন্যাটোর মতো সামরিক সংস্থা নয়। ফলে এই কাঠামোর সঙ্গে জড়িত দেশগুলো রাশিয়ার জন্য হুমকি নয়। মস্কো ইউরোপীয় ইউনিয়নের পদক্ষেপ অনুসরণ করছে।

সূত্র: আরব নিউজ, এপি।

ইউক্রেনকে ইইউয়ের সদস্যপ্রার্থীর মর্যাদা দেওয়ার পর যা বলল রাশিয়া

 অনলাইন ডেস্ক 
২৫ জুন ২০২২, ১০:০৫ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মস্কো সামরিক জোট ন্যাটো এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিরুদ্ধে রাশিয়ার এ লড়াই করার জন্য দেশগুলোকে একত্রিত করার অভিযোগ করেছে পররাষ্ট্রমন্ত্রী লাভরভ। 

শুক্রবার বাকুতে এক সংবাদ সম্মেলনে আজারবাইজানীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেহুন বায়রামভের সঙ্গে বৈঠকের সময় তিনি এ মন্তব্য করেন।

লাভরভ বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আগের পরিস্থিতির কথা মনে করিয়ে দেয়। যখন হিটলার সোভিয়েত ইউনিয়নের বিরুদ্ধে যুদ্ধের জন্য বেশিরভাগ ইউরোপকে একত্রিত করেছিলেন।

তিনি আরও বলেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরুর আগে হিটলার ইউরোপের অধিকাংশ দেশকে তার ব্যানারে জড়ো করেছিলেন। এখন ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ন্যাটো একই কাজ করছে। তারা রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধের জন্য একটি জোট গঠন করছে।

সেই সময়, লাভরভ আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে সীমান্তের সীমানা নির্ধারণের বিষয়ে দ্বিতীয় দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের ঘোষণা দেন, যা মস্কোতে অনুষ্ঠিত হবে।

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী যোগ করেছেন, উভয়পক্ষ শান্তিপূর্ণ বৈঠকে সম্মত হয়েছে। উভয়পক্ষের সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে এই বৈঠকের সময় নির্ধারণ করা হবে। লাভরভ বাকু ও ইয়েরেভানের মধ্যে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের ক্ষেত্রে রাশিয়ার অবদানের কথাও স্মরণ করেন।

ইউক্রেন ও মলদোভাকে ইইউতে সদস্যপ্রার্থীর মর্যাদা দেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে লাভরভ বলেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ন্যাটোর মতো সামরিক সংস্থা নয়। ফলে এই কাঠামোর সঙ্গে জড়িত দেশগুলো রাশিয়ার জন্য হুমকি নয়। মস্কো ইউরোপীয় ইউনিয়নের পদক্ষেপ অনুসরণ করছে।

সূত্র: আরব নিউজ, এপি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : রাশিয়া-ইউক্রেন উত্তেজনা

আরও খবর