যেভাবে রাতের আঁধারে নৌকা দিয়ে পালিয়েছেন ইউক্রেনের সেনারা
jugantor
যেভাবে রাতের আঁধারে নৌকা দিয়ে পালিয়েছেন ইউক্রেনের সেনারা

  অনলাইন ডেস্ক  

২৭ জুন ২০২২, ১৯:৩৯:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

সেভেরোদোনেৎস্ক থেকে সেনাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ দেয় ইউক্রেন। ওই নির্দেশনার পর শহরটিতে থাকা ইউক্রেনীয় সেনারা পিছু হটেন।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে সেভেরোদোনেৎস্ক ছাড়ার ঘটনা বর্ণনা করেছেন ২৪ বছর বয়সী ইউক্রেনীয় সেনা দানিলো।

তিনি রয়টার্সকে জানিয়েছেন, রাতের আঁধারে নৌকা করে সেভেরোদোনেৎস্ক থেকে পালিয়েছেন তিনি।

তিনি আরও জানিয়েছেন, সেভেরোদোনেৎস্ক থেকে পিছু হটার বিষয়টি তার জন্য তীক্ততার। কিন্তু তিনি খুশি যে তিনি বেঁচে ফিরে এসেছেন।

পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা বর্ণনা করে দানিলো বলেন, এটা লজ্জাজনক অবশ্যই। কারণ শহরটি রক্ষা করতে আমরা অনেক চেষ্টা করেছি। কয়েক মাস চলেছে এটি। কিন্তু আমরা হতাশ না। কারণ আমরাও বাঁচতে চাই।

তিনি আরও বলেন, নিরাপত্তার জন্য (পালিয়ে যেতে) রাতকে বেঁছে নিয়েছিলাম আমরা। নৌকা দিয়ে নদী পার হওয়ার সময় আমাদের বেশ কয়েকবার রাস্তা বদল করতে হয়েছে, কারণ সেখানে গোলাবর্ষণ হচ্ছিল।

তিনি আরও বলেন, আমার জানা মতে পিছু হটার সময় কেউ নিহত হয়নি।

রয়টার্সকে এ সেনা আরও জানিয়েছেন, যদি রাশিয়া শুধু কামান ও হামলা চালাত তাহলে তারা সেখানে থাকতেন। কিন্তু রাশিয়া অব্যহতভাবে সকল স্থাপনার ওপর হামলা চালাচ্ছিল।

তিনি আরও জানিয়েছেন, সেভেরোদোনেৎস্কের আজট কেমিক্যাল কারখানায় আশ্রয় নিতে অসংখ্য মানুষ আসছিলেন। একটা সময় তাদের ভয় তৈরি হয়েছিল, মারিউপোলের আজভস্টালের মতো অবস্থা হতে পারে আজট কেমিক্যাল কারখানাটির।

সূত্র: রয়টার্স

যেভাবে রাতের আঁধারে নৌকা দিয়ে পালিয়েছেন ইউক্রেনের সেনারা

 অনলাইন ডেস্ক 
২৭ জুন ২০২২, ০৭:৩৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সেভেরোদোনেৎস্ক থেকে সেনাদের সরে যাওয়ার নির্দেশ দেয় ইউক্রেন। ওই নির্দেশনার পর শহরটিতে থাকা ইউক্রেনীয় সেনারা পিছু হটেন। 

সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে সেভেরোদোনেৎস্ক ছাড়ার ঘটনা বর্ণনা করেছেন ২৪ বছর বয়সী ইউক্রেনীয় সেনা দানিলো।

তিনি রয়টার্সকে জানিয়েছেন, রাতের আঁধারে নৌকা করে সেভেরোদোনেৎস্ক থেকে পালিয়েছেন তিনি। 

তিনি আরও জানিয়েছেন, সেভেরোদোনেৎস্ক থেকে পিছু হটার বিষয়টি তার জন্য তীক্ততার। কিন্তু তিনি খুশি যে তিনি বেঁচে ফিরে এসেছেন। 

পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা বর্ণনা করে দানিলো বলেন, এটা লজ্জাজনক অবশ্যই। কারণ শহরটি রক্ষা করতে আমরা অনেক চেষ্টা করেছি। কয়েক মাস চলেছে এটি। কিন্তু আমরা হতাশ না। কারণ আমরাও বাঁচতে চাই।

তিনি আরও বলেন, নিরাপত্তার জন্য (পালিয়ে যেতে) রাতকে বেঁছে নিয়েছিলাম আমরা। নৌকা দিয়ে নদী পার হওয়ার সময় আমাদের বেশ কয়েকবার রাস্তা বদল করতে হয়েছে, কারণ সেখানে গোলাবর্ষণ হচ্ছিল।

তিনি আরও বলেন, আমার জানা মতে পিছু হটার সময় কেউ নিহত হয়নি।

রয়টার্সকে এ সেনা আরও জানিয়েছেন, যদি রাশিয়া শুধু কামান ও হামলা চালাত তাহলে তারা সেখানে থাকতেন। কিন্তু রাশিয়া অব্যহতভাবে সকল স্থাপনার ওপর হামলা চালাচ্ছিল। 

তিনি আরও জানিয়েছেন, সেভেরোদোনেৎস্কের আজট কেমিক্যাল কারখানায় আশ্রয় নিতে অসংখ্য মানুষ আসছিলেন। একটা সময় তাদের ভয় তৈরি হয়েছিল, মারিউপোলের আজভস্টালের মতো অবস্থা হতে পারে আজট কেমিক্যাল কারখানাটির।

সূত্র: রয়টার্স

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : রাশিয়া-ইউক্রেন উত্তেজনা