তুরস্কের সঙ্গে আলোচনা ‘কঠিন’ হবে: বরিস জনসন
jugantor
তুরস্কের সঙ্গে আলোচনা ‘কঠিন’ হবে: বরিস জনসন

  অনলাইন ডেস্ক  

২৮ জুন ২০২২, ২২:৫২:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে তুরস্কের সঙ্গে আলোচনাটি ‘কঠিন’ হবে।

তবে তিনি দাবি করেছেন, তুরস্কের সঙ্গে ফিনল্যান্ড-সুইডেনের আলোচনার অনেক ‘অগ্রগতি’ হয়েছে।

ন্যাটো সামিটে যোগ দেওয়ার আগে বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ফিনল্যান্ড-সুইডেন কয়েক বছরের ঐতিহাসিক নিরপেক্ষতা ভেঙেছে। আর এখন (ন্যাটোতে) যোগ দিতে চাচ্ছে। এটি কঠিন আলোচনা হবে।

এদিকে তুরস্ক যেন কোনো বাঁধা না দেয় সেটি নিশ্চিত করতে মঙ্গলবার দেশটির প্রেসিডেন্ট রিস্যেপ তাইয়্যেপ এরদোগানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের নেতারা।

ন্যাটোর অন্যন্য সদস্যভুক্ত দেশগুলো ফিনল্যান্ড-সুইডেনকে ন্যাটোতে স্বাগত জানিয়েছে।

কিন্তু তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিস্যেপ তাইয়্যেপ এরদোগান সরাসরি বলেন, তুরস্ক ফিনল্যান্ড-সুইডেনের ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার ইচ্ছাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে না। কারণ তারা জঙ্গিবাদে মদদ দেয়।

এরদোগানকে অন্যন্য দেশগুলো আহ্বান জানিয়েছে, তিনি যেন ফিনল্যান্ড-সুইডেনকে সবুজ সংকেত দেন। কিন্তু এরদোগান এখনো এ ব্যাপারে ইতিবাচক হননি।

সূত্র: আল জাজিরা

তুরস্কের সঙ্গে আলোচনা ‘কঠিন’ হবে: বরিস জনসন

 অনলাইন ডেস্ক 
২৮ জুন ২০২২, ১০:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে তুরস্কের সঙ্গে আলোচনাটি ‘কঠিন’ হবে। 

তবে তিনি দাবি করেছেন, তুরস্কের সঙ্গে ফিনল্যান্ড-সুইডেনের আলোচনার অনেক ‘অগ্রগতি’ হয়েছে। 

ন্যাটো সামিটে যোগ দেওয়ার আগে বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী। 

তিনি বলেন, ফিনল্যান্ড-সুইডেন কয়েক বছরের ঐতিহাসিক নিরপেক্ষতা ভেঙেছে। আর এখন (ন্যাটোতে) যোগ দিতে চাচ্ছে। এটি কঠিন আলোচনা হবে।

এদিকে তুরস্ক যেন কোনো বাঁধা না দেয় সেটি নিশ্চিত করতে মঙ্গলবার দেশটির প্রেসিডেন্ট রিস্যেপ তাইয়্যেপ এরদোগানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের নেতারা।

ন্যাটোর অন্যন্য সদস্যভুক্ত দেশগুলো ফিনল্যান্ড-সুইডেনকে ন্যাটোতে স্বাগত জানিয়েছে।

কিন্তু তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিস্যেপ তাইয়্যেপ এরদোগান সরাসরি বলেন, তুরস্ক ফিনল্যান্ড-সুইডেনের ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার ইচ্ছাকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে না। কারণ তারা জঙ্গিবাদে মদদ দেয়। 

এরদোগানকে অন্যন্য দেশগুলো আহ্বান জানিয়েছে, তিনি যেন ফিনল্যান্ড-সুইডেনকে সবুজ সংকেত দেন। কিন্তু এরদোগান এখনো এ ব্যাপারে ইতিবাচক হননি। 

সূত্র: আল জাজিরা

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : রাশিয়া-ইউক্রেন উত্তেজনা