চীনকে ‘শান্ত’ করতে ন্যান্সি পেলোসিকে ‘সময়’ দেননি দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট!
jugantor
চীনকে ‘শান্ত’ করতে ন্যান্সি পেলোসিকে ‘সময়’ দেননি দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট!

  অনলাইন ডেস্ক  

০৪ আগস্ট ২০২২, ২২:৪৮:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের হাউজ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি বুধবার দক্ষিণ কোরিয়া যান।

তিনি তার এশিয়া সফরে প্রথমে মালয়েশিয়া যান। এরপর সেখান থেকে আসেন বিতর্কিত তাইওয়ান সফরে। বুধবার তিনি যান দক্ষিণ কোরিয়া। আর বৃহস্পতিবার সর্বশেষ গন্তব্য জাপানে পৌঁছান তিনি।

মালয়েশিয়া, তাইওয়ানে ন্যান্সি পেলোসি পান উষ্ণ অভ্যর্থনা। তার সঙ্গে দেখা করেন দেশগুলোর প্রধানমন্ত্রী বা প্রেসিডেন্ট।

তবে ন্যান্সি পেলোসিকে ‘স্বশরীরে সময়’ দেননি দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইয়ুন সুক-ইয়ুল।

গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, রাজনৈতিক সমালোচকরা বলছেন, চীনকে ‘শান্ত করতে’ ন্যান্সি পেলোসির সঙ্গে দেখা করেননি দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট।

সমালোচকদের মতে, চীন হলো দক্ষিণ কোরিয়ার সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক মিত্র। ফলে চীনকে ক্ষেপাতে চাননি এশিয়ার এ দেশটির প্রেসিডেন্ট।

ন্যান্সি পেলোসি বুধবার রাতে দক্ষিণ কোরিয়া আসেন। তার মতো গুরুত্বপূর্ণ নেত্রী যখন দেশটিতে আসেন তখন প্রেসিডেন্ট ইয়ুন সুক-ইয়ুল মঞ্চ নাটক উপভোগ করা এবং পানীয় পানে ব্যস্ত ছিলেন। খবর ওয়াশিংটন পোস্টের।

বৃহস্পতিবার ন্যান্সি পেলোসি যখন দক্ষিণ কোরিয়ার সিনিয়র আইনপ্রণেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তখন প্রেসিডেন্ট ইয়ুন সুক-ইয়ুল বাড়িতে অবসর সময় কাটিয়েছেন! তিনি রাজধানী সিউলেই ছিলেন।

তবে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ও ন্যান্সি পেলোসির মধ্যে ফোনে কথা হয়।

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান, ওয়াশিংটন পোস্ট

চীনকে ‘শান্ত’ করতে ন্যান্সি পেলোসিকে ‘সময়’ দেননি দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট!

 অনলাইন ডেস্ক 
০৪ আগস্ট ২০২২, ১০:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের হাউজ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি বুধবার দক্ষিণ কোরিয়া যান। 

তিনি তার এশিয়া সফরে প্রথমে মালয়েশিয়া যান। এরপর সেখান থেকে আসেন বিতর্কিত তাইওয়ান সফরে। বুধবার তিনি যান দক্ষিণ কোরিয়া। আর বৃহস্পতিবার সর্বশেষ গন্তব্য জাপানে পৌঁছান তিনি। 

মালয়েশিয়া, তাইওয়ানে ন্যান্সি পেলোসি পান উষ্ণ অভ্যর্থনা। তার সঙ্গে দেখা করেন দেশগুলোর প্রধানমন্ত্রী বা প্রেসিডেন্ট।

তবে ন্যান্সি পেলোসিকে ‘স্বশরীরে সময়’ দেননি দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইয়ুন সুক-ইয়ুল। 

গণমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, রাজনৈতিক সমালোচকরা বলছেন, চীনকে ‘শান্ত করতে’ ন্যান্সি পেলোসির সঙ্গে দেখা করেননি দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট। 

সমালোচকদের মতে, চীন হলো দক্ষিণ কোরিয়ার সবচেয়ে বড় বাণিজ্যিক মিত্র। ফলে চীনকে ক্ষেপাতে চাননি এশিয়ার এ দেশটির প্রেসিডেন্ট।

ন্যান্সি পেলোসি বুধবার রাতে দক্ষিণ কোরিয়া আসেন। তার মতো গুরুত্বপূর্ণ নেত্রী যখন দেশটিতে আসেন তখন প্রেসিডেন্ট ইয়ুন সুক-ইয়ুল মঞ্চ নাটক উপভোগ করা এবং পানীয় পানে ব্যস্ত ছিলেন। খবর ওয়াশিংটন পোস্টের। 

বৃহস্পতিবার ন্যান্সি পেলোসি যখন দক্ষিণ কোরিয়ার সিনিয়র আইনপ্রণেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তখন প্রেসিডেন্ট ইয়ুন সুক-ইয়ুল বাড়িতে অবসর সময় কাটিয়েছেন! তিনি রাজধানী সিউলেই ছিলেন।

তবে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ও ন্যান্সি পেলোসির মধ্যে ফোনে কথা হয়। 

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান, ওয়াশিংটন পোস্ট

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন