‘অবরুদ্ধ রুশ সেনারা’, খেরসন বিচ্ছিন্ন করার দাবি ইউক্রেনের
jugantor
‘অবরুদ্ধ রুশ সেনারা’, খেরসন বিচ্ছিন্ন করার দাবি ইউক্রেনের

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৯ আগস্ট ২০২২, ১৩:২০:১৪  |  অনলাইন সংস্করণ

রাশিয়ার দখলে থাকা ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের খেরসন পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন করার দাবি করেছে ইউক্রেন। ইউক্রেনের দাবি সত্যি হলে ওই অঞ্চলের রুশ সেনারা অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

ইউক্রেন জানিয়েছে, রাশিয়ার মূল ভূখণ্ড থেকে খেরসন প্রবেশের অন্যতম রাস্তা দিনিপ্রো নদীর উপর অবস্থিত গুরুত্বপূর্ণ ব্রিজটি ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে।

এতদিন সেই ব্রিজটির ব্যবহার করেই খেরসনে সেনা এবং রসদ পাঠিয়েছে রাশিয়া।

ইউক্রেন কয়েকদিন আগে দাবি করেছিল, ব্রিজের সেই রাস্তা তারা বন্ধ করে দিতে পেরেছে। ব্রিজটি নষ্ট করে দেওয়া গেছে।

তবে এবার রাতভর রাতভর গোলাবর্ষণ করে ব্রিজটি সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছে ইউক্রেন। ইউক্রেনের দাবি সত্যিত হলে ব্রিজ পার করে রাশিয়া খেরসনে নতুন করে সেনা বা রসদ পাঠাতে পারবে না। খেরসনে অবস্থিত রাশিয়ার সেনাও বাইরে যেতে পারবে না। তারা কার্যত অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে।

অবশ্য রুশপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদী যোদ্ধারাও একথা স্বীকার করেছে। যদিও তারা জানিয়েছে, ইউক্রেনের আক্রমণে ব্রিজটি বিপুলভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে সম্পূর্ণ ভেঙে গেছে, একথা তারা স্বীকার করেনি।

বরং তাদের বক্তব্য, রাশিয়া ইতোমধ্যেই ব্রিজটি সংস্কারের কাজ শুরু করেছে। নৌকার মাধ্যমেও তারা জিনিসপত্র আদানপ্রদান করতে পারবে বলে বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা জানিয়েছেন।

তবে ইউক্রেন সেই কথায় আমল দেয়নি। তাদের বক্তব্য, এবার খেরসনে পুনর্দখলের কাজ শুরু হবে।

চলতি বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি যুদ্ধের একেবারে শুরুর দিকেই খেরসন দখল করে নিয়েছিল রাশিয়া।

‘অবরুদ্ধ রুশ সেনারা’, খেরসন বিচ্ছিন্ন করার দাবি ইউক্রেনের

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৯ আগস্ট ২০২২, ০১:২০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাশিয়ার দখলে থাকা ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের খেরসন পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন করার দাবি করেছে ইউক্রেন। ইউক্রেনের দাবি সত্যি হলে ওই অঞ্চলের রুশ সেনারা অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

ইউক্রেন জানিয়েছে, রাশিয়ার মূল ভূখণ্ড থেকে খেরসন প্রবেশের অন্যতম রাস্তা দিনিপ্রো নদীর উপর অবস্থিত গুরুত্বপূর্ণ ব্রিজটি ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। 

এতদিন সেই ব্রিজটির ব্যবহার করেই খেরসনে সেনা এবং রসদ পাঠিয়েছে রাশিয়া। 

ইউক্রেন কয়েকদিন আগে দাবি করেছিল, ব্রিজের সেই রাস্তা তারা বন্ধ করে দিতে পেরেছে। ব্রিজটি নষ্ট করে দেওয়া গেছে। 

তবে এবার রাতভর রাতভর গোলাবর্ষণ করে ব্রিজটি সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেছে ইউক্রেন। ইউক্রেনের দাবি সত্যিত হলে ব্রিজ পার করে রাশিয়া খেরসনে নতুন করে সেনা বা রসদ পাঠাতে পারবে না। খেরসনে অবস্থিত রাশিয়ার সেনাও বাইরে যেতে পারবে না। তারা কার্যত অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে।

অবশ্য রুশপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদী যোদ্ধারাও একথা স্বীকার করেছে। যদিও তারা জানিয়েছে, ইউক্রেনের আক্রমণে ব্রিজটি বিপুলভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে সম্পূর্ণ ভেঙে গেছে, একথা তারা স্বীকার করেনি। 

বরং তাদের বক্তব্য, রাশিয়া ইতোমধ্যেই ব্রিজটি সংস্কারের কাজ শুরু করেছে। নৌকার মাধ্যমেও তারা জিনিসপত্র আদানপ্রদান করতে পারবে বলে বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতারা জানিয়েছেন। 

তবে ইউক্রেন সেই কথায় আমল দেয়নি। তাদের বক্তব্য, এবার খেরসনে পুনর্দখলের কাজ শুরু হবে।

চলতি বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি যুদ্ধের একেবারে শুরুর দিকেই খেরসন দখল করে নিয়েছিল রাশিয়া। 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : রাশিয়া-ইউক্রেন উত্তেজনা

আরও খবর