যেকোনো সময় রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধ শুরু হতে পারে: কিসিঞ্জার
jugantor
যেকোনো সময় রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধ শুরু হতে পারে: কিসিঞ্জার

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৪ আগস্ট ২০২২, ১৭:১০:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র যেকোনো সময় যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে পারে বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার। এমনকি বেইজিংয়ের সঙ্গেও ওয়াশিংটনের যুদ্ধ বাঁধতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে কিসিঞ্জার এসব মন্তব্য করেন বলে রোববার রুশ সংবাদ সংস্থা তাসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা রাশিয়া এবং চীনের সাথে যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে রয়েছি। কীভাবে শেষ হতে হবে বা কী হতে চলেছে সে সম্পর্কে কোনো ধারণা ছাড়াই এই সমস্যাগুলো আমরাই আংশিকভাবে তৈরি করেছি।

এর আগে ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে সুইজারল্যান্ডের দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের এক সম্মেলনে কিসিঞ্জার বলেছিলেন, ইউক্রেনের অধিকাংশ মানুষই চার মাসে প্রবেশ করা এই যুদ্ধের বিরুদ্ধে।

এ সময় কিসিঞ্জার ইউক্রেনে রাশিয়ার জন্য বিব্রতকর পরাজয় না চাওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন। এ ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেন, এতে ইউরোপের দীর্ঘমেয়াদি স্থিতিশীলতার অবনতি ঘটাতে পারে।

তিনি আরও বলেছিলেন, পশ্চিমা দেশগুলোর ইউরোপের প্রতি রাশিয়ার গুরুত্বের কথা মনে রাখা উচিত এবং ‘মুহুর্তের মোহে’ ভেসে যাওয়া উচিত নয়। এ সময় রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক ‘পূর্বতন স্থিতাবস্থা (স্ট্যাটাস ক্যু)’ আগের অবস্থায় ফিরে যেতে আলোচনায় বসার জন্য ইউক্রেনকে চাপ দিতে পশ্চিমাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন কিসিঞ্জার।

তবে কিছুদিন পরই সেই অবস্থান থেকে সরে এসে তিনি বলেছিলেন, ইউক্রেনের ভূখণ্ড ছেড়ে দেওয়া উচিত নয়। কী বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে এবং কোন পরিস্থিতি আলোচনার জন্য নয় সে সম্পর্কে পশ্চিমাদের অবস্থান স্পষ্ট করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

যেকোনো সময় রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধ শুরু হতে পারে: কিসিঞ্জার

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৪ আগস্ট ২০২২, ০৫:১০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র যেকোনো সময় যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে পারে বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার।  এমনকি বেইজিংয়ের সঙ্গেও ওয়াশিংটনের যুদ্ধ বাঁধতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। 

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে কিসিঞ্জার এসব মন্তব্য করেন বলে রোববার রুশ সংবাদ সংস্থা তাসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। 

তিনি বলেন, আমরা রাশিয়া এবং চীনের সাথে যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে রয়েছি। কীভাবে শেষ হতে হবে বা  কী হতে চলেছে সে সম্পর্কে কোনো ধারণা ছাড়াই এই সমস্যাগুলো আমরাই আংশিকভাবে তৈরি করেছি।

এর আগে ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে সুইজারল্যান্ডের দাভোসে ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের এক সম্মেলনে কিসিঞ্জার বলেছিলেন, ইউক্রেনের অধিকাংশ মানুষই চার মাসে প্রবেশ করা এই যুদ্ধের বিরুদ্ধে। 

এ সময় কিসিঞ্জার ইউক্রেনে রাশিয়ার জন্য বিব্রতকর পরাজয় না চাওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন। এ ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেন, এতে ইউরোপের দীর্ঘমেয়াদি স্থিতিশীলতার অবনতি ঘটাতে পারে।

তিনি আরও বলেছিলেন, পশ্চিমা দেশগুলোর ইউরোপের প্রতি রাশিয়ার গুরুত্বের কথা মনে রাখা উচিত এবং ‘মুহুর্তের মোহে’ ভেসে যাওয়া উচিত নয়।  এ সময় রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক ‘পূর্বতন স্থিতাবস্থা (স্ট্যাটাস ক্যু)’ আগের অবস্থায় ফিরে যেতে আলোচনায় বসার জন্য ইউক্রেনকে চাপ দিতে পশ্চিমাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিলেন কিসিঞ্জার।

তবে কিছুদিন পরই সেই অবস্থান থেকে সরে এসে তিনি বলেছিলেন, ইউক্রেনের ভূখণ্ড ছেড়ে দেওয়া উচিত নয়।  কী বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে এবং কোন পরিস্থিতি আলোচনার জন্য নয় সে সম্পর্কে পশ্চিমাদের অবস্থান স্পষ্ট করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : রাশিয়া-ইউক্রেন উত্তেজনা