সেই হুমকির পর ইউরোপের দীর্ঘতম ব্রিজে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চালু
jugantor
সেই হুমকির পর ইউরোপের দীর্ঘতম ব্রিজে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চালু

  যুগান্তর ডেস্ক  

১৯ আগস্ট ২০২২, ২২:৪৮:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

ইউরোপের দীর্ঘতম ব্রিজের সুরক্ষায় রাশিয়ার অধিকৃত ক্রিমিয়ার কের্চ শহরে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। রাশিয়ার সংবাদ সংস্থা তাস এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

ক্রিমিয়ার গভর্নরের উপদেষ্টা ওলেগ ক্রিচকভ তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে দেওয়া এক পোস্টে জানান, প্রাথমিক তথ্য অনুসারে কের্চ শহরে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সক্রিয় করা হয়েছে। এখন আর এই শহর এবং ব্রিজের জন্য কোনো বিপদ নেই।

প্রসঙ্গত, কের্চ শহরটি হলো ক্রিমিয়া ব্রিজের প্রবেশদ্বার। এর আগে ব্রিজ উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় ইউক্রেন।

অবশ্য ফেব্রুয়ারির শুরু থেকেই ক্রিমিয়া ব্রিজটিতে হামলা চালানোর হুমকি দিয়ে আসছে ইউক্রেন। রাশিয়া থেকে ক্রিমিয়ায় সরাসরি সড়ক পথ তৈরি করতে ২০১৮ সালে ক্রিমিয়া ব্রিজটি নিমার্ণ করা হয়। ব্রিজটি নির্মাণের আগে রাশিয়া থেকে সমুদ্র কিংবা আকাশ পথে ক্রিমিয়া যাওয়া যেত। ব্রিজ প্রধানত বেসামরিক যান চলাচলে ব্যবহৃত হয়।

এদিকে, ক্রিমিয়ার তিনটি আলাদা স্থানে গত মঙ্গলবার বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এর আগের সপ্তাহে ক্রিমিয়ার সাকি বিমান বন্দরে হয়েছিল ভয়াবহ বিস্ফোরণ। কে হামলা করেছে এটি এখনো নিশ্চিত না। তবে ধারণা করা হচ্ছে ইউক্রেন এর পেছনে রয়েছে।

এক সপ্তাহের মধ্যে বেশ কয়েকবার কেঁপে ওঠেছে ক্রিমিয়া। কৃষ্ণ সাগর ঘেরা সমুদ্র সৈকত বেষ্টিত এই ক্রিমিয়া উপদ্বীপটি ২০১৪ সালে ইউক্রেনের কাছ থেকে দখল করে নেয় রাশিয়া। এরপর এখানে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করে রাশিয়ার সরকার। গ্রীষ্মে হাজার হাজার রাশিয়ান এই উপদ্বীপে জড়ো হন।

সেই হুমকির পর ইউরোপের দীর্ঘতম ব্রিজে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চালু

 যুগান্তর ডেস্ক 
১৯ আগস্ট ২০২২, ১০:৪৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইউরোপের দীর্ঘতম ব্রিজের সুরক্ষায় রাশিয়ার অধিকৃত ক্রিমিয়ার কের্চ শহরে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। রাশিয়ার সংবাদ সংস্থা তাস এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

ক্রিমিয়ার গভর্নরের উপদেষ্টা ওলেগ ক্রিচকভ তার টেলিগ্রাম চ্যানেলে দেওয়া এক পোস্টে জানান, প্রাথমিক তথ্য অনুসারে কের্চ শহরে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা সক্রিয় করা হয়েছে। এখন আর এই শহর এবং ব্রিজের জন্য কোনো বিপদ নেই।

প্রসঙ্গত, কের্চ শহরটি হলো ক্রিমিয়া ব্রিজের প্রবেশদ্বার। এর আগে ব্রিজ উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় ইউক্রেন। 

অবশ্য ফেব্রুয়ারির শুরু থেকেই ক্রিমিয়া ব্রিজটিতে হামলা চালানোর হুমকি দিয়ে আসছে ইউক্রেন। রাশিয়া থেকে ক্রিমিয়ায় সরাসরি সড়ক পথ তৈরি করতে ২০১৮ সালে ক্রিমিয়া ব্রিজটি নিমার্ণ করা হয়। ব্রিজটি নির্মাণের আগে রাশিয়া থেকে সমুদ্র কিংবা আকাশ পথে ক্রিমিয়া যাওয়া যেত। ব্রিজ প্রধানত বেসামরিক যান চলাচলে ব্যবহৃত হয়।

এদিকে, ক্রিমিয়ার তিনটি আলাদা স্থানে গত মঙ্গলবার বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।  এর আগের সপ্তাহে ক্রিমিয়ার সাকি বিমান বন্দরে হয়েছিল ভয়াবহ বিস্ফোরণ।  কে হামলা করেছে এটি এখনো নিশ্চিত না। তবে ধারণা করা হচ্ছে ইউক্রেন এর পেছনে রয়েছে।

এক সপ্তাহের মধ্যে বেশ কয়েকবার কেঁপে ওঠেছে ক্রিমিয়া। কৃষ্ণ সাগর ঘেরা সমুদ্র সৈকত বেষ্টিত এই ক্রিমিয়া উপদ্বীপটি ২০১৪ সালে ইউক্রেনের কাছ থেকে দখল করে নেয় রাশিয়া। এরপর এখানে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করে রাশিয়ার সরকার।  গ্রীষ্মে হাজার হাজার রাশিয়ান এই উপদ্বীপে জড়ো হন। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : রাশিয়া-ইউক্রেন উত্তেজনা