বাইডেনের সেই বক্তব্যের কড়া সমালোচনা চীনের
jugantor
বাইডেনের সেই বক্তব্যের কড়া সমালোচনা চীনের

  অনলাইন ডেস্ক  

১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৮:০৪:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ফের বলেছেন, যদি তাইওয়ানে চীন আক্রমণ করে তাহলে তাদের সহায়তা করবে যুক্তরাষ্ট্র।

বাইডেনের এ বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছে চীন। সোমবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মাও নিং বলেছেন, এক চীন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের যে নীতি রয়েছে; এ বক্তব্যের মাধ্যমে সেটি ভঙ্গ করেছেন বাইডেন।

তিনি বলেন, তাইওয়ানের স্বাধীনতাকে সমর্থন না জানানোর যে নীতি যুক্তরাষ্ট্রের রয়েছে এ মন্তব্য গুরুতরভাবে এটি ভঙ্গ করেছে। তাছাড়া তাইওয়ানের বিচ্ছিন্নতাবাদীদের কাছেও এটি একটি ভুল বার্তা দিয়েছে।

একটি সাক্ষাৎকারে বাইডেনকে জিজ্ঞেস করা হয় যদি চীন তাইওয়ানে হামলা করে তাহলে যুক্তরাষ্ট্রের সেনারা হস্তক্ষেপ করবে কিনা। এমন প্রশ্নের জবাবে বাইডেন বলেন, হ্যাঁ, যদি তারা নজিরবিহীন আক্রমণ করে।

এদিকে ১৯৭৯ সালে তাইওয়ানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে যুক্তরাষ্ট্র। তারা ওই সময় থেকে এক-চীন নীতিকে সমর্থন জানানোর সিদ্ধান্ত নেয়।

তবে সাম্প্রতিক সময়ে যুক্তরাষ্ট্র তাদের সেই নীতির বিরুদ্ধে যাওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছে।

চীন হুশিয়ারি দিয়েছে তাইওয়ানকে প্রথমে শান্তিপূর্ণভাবে একত্রিকরণ করার চেষ্টা করা হবে। যদি এটি সম্ভব না হয় তাহলে বল প্রয়োগ করা হবে।

সূত্র: এএফপি

বাইডেনের সেই বক্তব্যের কড়া সমালোচনা চীনের

 অনলাইন ডেস্ক 
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৬:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ফের বলেছেন, যদি তাইওয়ানে চীন আক্রমণ করে তাহলে তাদের সহায়তা করবে যুক্তরাষ্ট্র। 

বাইডেনের এ বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছে চীন। সোমবার চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মাও নিং বলেছেন, এক চীন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের যে নীতি রয়েছে; এ বক্তব্যের মাধ্যমে সেটি ভঙ্গ করেছেন বাইডেন।  

তিনি বলেন, তাইওয়ানের স্বাধীনতাকে সমর্থন না জানানোর যে নীতি যুক্তরাষ্ট্রের রয়েছে এ মন্তব্য গুরুতরভাবে এটি ভঙ্গ করেছে। তাছাড়া তাইওয়ানের বিচ্ছিন্নতাবাদীদের কাছেও এটি একটি ভুল বার্তা দিয়েছে। 

একটি সাক্ষাৎকারে বাইডেনকে জিজ্ঞেস করা হয় যদি চীন তাইওয়ানে হামলা করে তাহলে যুক্তরাষ্ট্রের সেনারা হস্তক্ষেপ করবে কিনা। এমন প্রশ্নের জবাবে বাইডেন বলেন, হ্যাঁ, যদি তারা নজিরবিহীন আক্রমণ করে। 

এদিকে ১৯৭৯ সালে তাইওয়ানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে যুক্তরাষ্ট্র। তারা ওই সময় থেকে এক-চীন নীতিকে সমর্থন জানানোর সিদ্ধান্ত নেয়। 

তবে সাম্প্রতিক সময়ে যুক্তরাষ্ট্র তাদের সেই নীতির বিরুদ্ধে যাওয়ার ইঙ্গিত দিয়েছে। 

চীন হুশিয়ারি দিয়েছে তাইওয়ানকে প্রথমে শান্তিপূর্ণভাবে একত্রিকরণ করার চেষ্টা করা হবে। যদি এটি সম্ভব না হয় তাহলে বল প্রয়োগ করা হবে। 

সূত্র: এএফপি

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন