ইতালিতে মেলোনির জয়ে ‘অস্বস্তিতে’ ইউরোপ
jugantor
ইতালিতে মেলোনির জয়ে ‘অস্বস্তিতে’ ইউরোপ

  অনলাইন ডেস্ক  

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২৩:০৪:২৬  |  অনলাইন সংস্করণ

ইতালির নির্বাচনে উগ্র ডানপন্থি নেত্রী জর্জিয়া মেলোনির জোট জয় পেয়েছে। এখন ইতালির প্রধানমন্ত্রী হবেন মেলোনি।

ইতালিতে ডানপন্থি মেলোনির জয়ে ইউরোপে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, জর্জিয়া মেলোনির জয়ে অস্বস্তিতে আছেন ইউরোপের নেতারা।

কারণ তিনি চরম ডানপন্থি একজন মানুষ। তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়নে শুধুমাত্র ইতালির স্বার্থই দেখবেন। যেমনটি দেখেন হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অরবান।

স্টেফানো স্টেফানিনি নামে ইতালির একজন সাবেক কূটনীতিক নিউইয়র্ক টাইমসকে বলেছেন, ভিক্টর অরবানের হাঙ্গেরির সঙ্গে ইতালির যোগ দেওয়ার বিষয়টি ইউরোপীয় ইউনিয়নের জন্য একটি দুঃস্বপ্ন। ইইউ গত ১০ বছর যাবত ভয় পাচ্ছে ‘ইউরোপ বিরোধী’ একটি নেতৃত্ব পুরো ইউরোপে আসবে।

তিনি আরও বলেছেন, হাঙ্গেরি ইইউর জন্য একটি যন্ত্রণা, হাঙ্গেরির সঙ্গে ইতালি ও পোল্যান্ডের যোগদান মূল ইউরোপের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ দাঁড় করবে।

বর্তমানে ইউরোপের সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো ‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ’। জর্জিয়া মেলোনি প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার আগে বলেছিলেন, তিনি ন্যাটো ও রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞাকে সমর্থন করেন।

কিন্তু তার সঙ্গে যে দুটি দল জোট বেঁধেছে সে দুটি দলের প্রধান নেতারা সরাসরি বলেছেন, রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা ইতালিরই ক্ষতি করছে।

এর মধ্যে মেলোনির জোট নেতা সাবেক প্রধানমন্ত্রী বার্লোসকোনি বলেছেন, ইউক্রেনে হামলা করতে পুতিনকে বাধ্য করা হয়েছে।

মেলোনির জয়ের ব্যাপারে ইউরোপীয় ইউনিয়ন এখন পর্যন্ত কোনো কথা বলেনি। ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন দার লিয়েন একদম ‘চুপ’ হয়ে আছেন। মাত্র কয়েকদিন আগেও সুইজারল্যান্ডে ডানপন্থিদের উত্থান হয়েছে। এরমধ্যে ইতালিতে ডানপন্থিরা ক্ষমতায়ই চলে আসছে। যা ইউরোপীয় ইউনিয়নের ঐক্যের জন্য হুমকি।

তবে জার্মান চ্যান্সেলর, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জর্জিয়া মেলোনিকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তারা বলছেন, তাদের আশা ইতালির সঙ্গে একসঙ্গে কাজ করবেন তারা।

সূত্র: নিউইয়র্ক টাইমস, ফ্রান্স ২৪

ইতালিতে মেলোনির জয়ে ‘অস্বস্তিতে’ ইউরোপ

 অনলাইন ডেস্ক 
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইতালির নির্বাচনে উগ্র ডানপন্থি নেত্রী জর্জিয়া মেলোনির জোট জয় পেয়েছে। এখন ইতালির প্রধানমন্ত্রী হবেন মেলোনি। 

ইতালিতে ডানপন্থি মেলোনির জয়ে ইউরোপে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। 

তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, জর্জিয়া মেলোনির জয়ে অস্বস্তিতে আছেন ইউরোপের নেতারা। 

কারণ তিনি চরম ডানপন্থি একজন মানুষ। তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়নে শুধুমাত্র ইতালির স্বার্থই দেখবেন। যেমনটি দেখেন হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অরবান। 

স্টেফানো স্টেফানিনি নামে ইতালির একজন সাবেক কূটনীতিক নিউইয়র্ক টাইমসকে বলেছেন, ভিক্টর অরবানের হাঙ্গেরির সঙ্গে ইতালির যোগ দেওয়ার বিষয়টি ইউরোপীয় ইউনিয়নের জন্য একটি দুঃস্বপ্ন। ইইউ গত ১০ বছর যাবত ভয় পাচ্ছে ‘ইউরোপ বিরোধী’ একটি নেতৃত্ব পুরো ইউরোপে আসবে। 

তিনি আরও বলেছেন, হাঙ্গেরি ইইউর জন্য একটি যন্ত্রণা, হাঙ্গেরির সঙ্গে ইতালি ও পোল্যান্ডের যোগদান মূল ইউরোপের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ দাঁড় করবে। 

বর্তমানে ইউরোপের সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো ‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ’। জর্জিয়া মেলোনি প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার আগে বলেছিলেন, তিনি ন্যাটো ও রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞাকে সমর্থন করেন। 

কিন্তু তার সঙ্গে যে দুটি দল জোট বেঁধেছে সে দুটি দলের প্রধান নেতারা সরাসরি বলেছেন, রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা ইতালিরই ক্ষতি করছে। 

এর মধ্যে মেলোনির জোট নেতা সাবেক প্রধানমন্ত্রী বার্লোসকোনি বলেছেন, ইউক্রেনে হামলা করতে পুতিনকে বাধ্য করা হয়েছে। 

মেলোনির জয়ের ব্যাপারে ইউরোপীয় ইউনিয়ন এখন পর্যন্ত কোনো কথা বলেনি। ইউরোপিয়ান কমিশনের প্রেসিডেন্ট উরসুলা ভন দার লিয়েন একদম ‘চুপ’ হয়ে আছেন। মাত্র কয়েকদিন আগেও সুইজারল্যান্ডে ডানপন্থিদের উত্থান হয়েছে। এরমধ্যে ইতালিতে ডানপন্থিরা ক্ষমতায়ই চলে আসছে। যা ইউরোপীয় ইউনিয়নের ঐক্যের জন্য হুমকি। 

তবে জার্মান চ্যান্সেলর, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জর্জিয়া মেলোনিকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তারা বলছেন, তাদের আশা ইতালির সঙ্গে একসঙ্গে কাজ করবেন তারা। 

সূত্র: নিউইয়র্ক টাইমস, ফ্রান্স ২৪

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন