আকাশসীমা লঙ্ঘনকে ‘আক্রমণ’ হিসেবে দেখবে তাইওয়ান
jugantor
আকাশসীমা লঙ্ঘনকে ‘আক্রমণ’ হিসেবে দেখবে তাইওয়ান

  অনলাইন ডেস্ক  

০৬ অক্টোবর ২০২২, ২০:১১:১৪  |  অনলাইন সংস্করণ

চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির যুদ্ধবিমান ও ড্রোন তাইওয়ানের আকাশসীমা লঙ্ঘন করলে সেটিকে ‘প্রথম আক্রমণ’ হিসেবে বিবেচনা করবে তাইওয়ান।

বুধবার আইনপ্রণেতাদের সামনে এমন কথা বলেছেন তাইওয়ানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী চিউ কু-চেং।

তবে তাইওয়ানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জানাননি, যদি চীন আকাশসীমা লঙ্ঘন করে তাহলে তারা কি ধরনের পদক্ষেপ নেবে।

প্রতিরক্ষামন্ত্রী চিউ কু-চেং বলেছেন, অতীতে, আমরা বলেছি আমরা প্রথম আক্রমণ করব না, যার মানে আমরা প্রথমে গুলি ছুড়ব না, যদি না চীন গোলা বা মিসাইল না ছুড়ে।

কিন্তু সেটি অবশ্যই পরিবর্তন হয়ে গেছে। কারণ চীন ড্রোন ব্যবহার করেছে। আমরা বিষয়টি সংশোধন করে নিয়েছি। তাইওয়ানের আকাশসীমার প্রত্যেকটি লঙ্ঘনকে আমরা প্রথম আক্রমণ হিসেবে বিবেচনা করব।

এ বছরের শুরুতে তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট জানিয়েছিলেন, চীনের উস্কানির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ও সঠিক ব্যবস্থা নেবেন তারা।
তবে তিনি সঙ্গে এও জানিয়েছিলেন, চীনকে কোনো ধরনের যুদ্ধ শুরু করার উসিলা আমরা দেব না। আমরা উত্তেজনায় উস্কানি দেব না এবং বিরত থাকব। কিন্তু তার মানে এই নয় যে আমরা পাল্টা ব্যবস্থা নেব না।

সাম্প্রতিক সময়ে চীন বার বার তাইওয়ানের আকাশ সীমা লঙ্ঘন করছে এবং এটি অব্যাহত রেখেছে এর ব্যাখা চাইলে তাইওয়ানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, তাইওয়ানের সেনাবাহিনীর অবশ্যই রেড লাইন রয়েছে। যখন রেড লাইন পার হয়ে যাবে তখন সেনাবাহিনী অবশ্যই পাল্টা পদক্ষেপ নেবে।

তবে তিনি পরিস্কার করে জানাননি, তাইওয়ানের রেড লাইন কি এবং তারা কি ধরনের ব্যবস্থা নেবেন।

এদিকে কয়েকদিন আগে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং জানান, তাইওয়ানকে অবশ্যই চীনের সঙ্গে যুক্ত করা হবে। প্রয়োজনে বল প্রয়োগ করা হবে।

সূত্র: সিএনএন

আকাশসীমা লঙ্ঘনকে ‘আক্রমণ’ হিসেবে দেখবে তাইওয়ান

 অনলাইন ডেস্ক 
০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৮:১১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির যুদ্ধবিমান ও ড্রোন তাইওয়ানের আকাশসীমা লঙ্ঘন করলে সেটিকে ‘প্রথম আক্রমণ’ হিসেবে বিবেচনা করবে তাইওয়ান। 

বুধবার আইনপ্রণেতাদের সামনে এমন কথা বলেছেন তাইওয়ানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী চিউ কু-চেং। 

তবে তাইওয়ানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জানাননি, যদি চীন আকাশসীমা লঙ্ঘন করে তাহলে তারা কি ধরনের পদক্ষেপ নেবে। 

প্রতিরক্ষামন্ত্রী চিউ কু-চেং বলেছেন, অতীতে, আমরা বলেছি আমরা প্রথম আক্রমণ করব না, যার মানে আমরা প্রথমে গুলি ছুড়ব না, যদি না চীন গোলা বা মিসাইল না ছুড়ে। 

কিন্তু সেটি অবশ্যই পরিবর্তন হয়ে গেছে। কারণ চীন ড্রোন ব্যবহার করেছে। আমরা বিষয়টি সংশোধন করে নিয়েছি। তাইওয়ানের আকাশসীমার প্রত্যেকটি লঙ্ঘনকে আমরা প্রথম আক্রমণ হিসেবে বিবেচনা করব। 

এ বছরের শুরুতে তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট জানিয়েছিলেন, চীনের উস্কানির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ও সঠিক ব্যবস্থা নেবেন তারা। 
তবে তিনি সঙ্গে এও জানিয়েছিলেন, চীনকে কোনো ধরনের যুদ্ধ শুরু করার উসিলা আমরা দেব না। আমরা উত্তেজনায় উস্কানি দেব না এবং বিরত থাকব। কিন্তু তার মানে এই নয় যে আমরা পাল্টা ব্যবস্থা নেব না। 

সাম্প্রতিক সময়ে চীন বার বার তাইওয়ানের আকাশ সীমা লঙ্ঘন করছে এবং এটি অব্যাহত রেখেছে এর ব্যাখা চাইলে তাইওয়ানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী বলেন, তাইওয়ানের সেনাবাহিনীর অবশ্যই রেড লাইন রয়েছে। যখন রেড লাইন পার হয়ে যাবে তখন সেনাবাহিনী অবশ্যই পাল্টা পদক্ষেপ নেবে। 

তবে তিনি পরিস্কার করে জানাননি, তাইওয়ানের রেড লাইন কি এবং তারা কি ধরনের ব্যবস্থা নেবেন। 

এদিকে কয়েকদিন আগে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং জানান, তাইওয়ানকে অবশ্যই চীনের সঙ্গে যুক্ত করা হবে। প্রয়োজনে বল প্রয়োগ করা হবে। 

সূত্র: সিএনএন

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন