চীনের সঙ্গে কাজ করতে চান তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট
jugantor
চীনের সঙ্গে কাজ করতে চান তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট

  অনলাইন ডেস্ক  

১০ অক্টোবর ২০২২, ২৩:০০:৩৯  |  অনলাইন সংস্করণ

তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাং ইং-ওয়েন সোমবার বলেছেন, তাইওয়ানের সার্বভৌমতা নিয়ে আপসের কোনো সুযোগ নেই। কিন্তু ‘শান্তি-স্থিতিশীলতা’ বজায় রাখতে ও ‘দুই পক্ষই মেনে নেবে’ এমন উপায় খুঁজে পেতে চীনের সঙ্গে কাজ করতে চান তিনি। খবর সিএনএনের।

তাইওয়ানের জাতীয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রেসিডেন্ট সাং ইং-ওয়েন বলেছেন, তাইওয়ানের জনগণের সর্বসম্মতি হলো...আমাদের সার্বভৌমতা, স্বাধীন ও গণতান্ত্রিক জীবনকে রক্ষা করা। এ নিয়ে আপসের কোনো সুযোগ নেই।

এদিকে গত কয়েক যুগের মধ্যে বর্তমানে চীন-তাইওয়ানের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উত্তেজনা চলছে।

২৩ লাখ মানুষের তাইওয়ান চীনের উপকূল থেকে ১৭৭ কি.মি দূরে অবস্থিত। ৭০ বছরেরও বেশি সময় ধরে দুই দেশই আলাদাভাবে শাসিত হয়েছে, তবে এরপরও চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি দাবি করে তাইওয়ান তাদের নিজেদের অঞ্চল, যদিও তাইওয়ানকে কখনো শাসন করেনি চীন।

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বলেছেন, চীনের সঙ্গে তাইওয়ানের অন্তর্ভুক্তি অত্যাসন্ন। চীনের মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে তাইওয়ানকে যুক্ত করতে প্রয়োজনে সামরিক অভিযানও (যুদ্ধ) চালানো হবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

চীন যেন যুদ্ধের বিষয়টি চিন্তা না করে সে আহ্বান জানিয়েছেন তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট। তিনি বলেছেন, আমি বেইজিংয়ের সরকারের প্রতি বলব, দুই দেশের সম্পর্কে যেন অবশ্যই যুদ্ধ অবলম্বনের সুযোগ না থাকে। শুধুমাত্র তাইওয়ানের জনগণনের সার্বভৌমতার প্রতি দৃঢ়তা, স্বাধীনতা এবং গণতন্ত্রকে সম্মান জানানোর মাধ্যমে আমরা তাইওয়ান প্রণালীতে ইতিবাচক যোগাযোগ করতে পারি।

সূত্র: সিএনএন

চীনের সঙ্গে কাজ করতে চান তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট

 অনলাইন ডেস্ক 
১০ অক্টোবর ২০২২, ১১:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট সাং ইং-ওয়েন সোমবার বলেছেন, তাইওয়ানের সার্বভৌমতা নিয়ে আপসের কোনো সুযোগ নেই। কিন্তু ‘শান্তি-স্থিতিশীলতা’ বজায় রাখতে ও ‘দুই পক্ষই মেনে নেবে’ এমন উপায় খুঁজে পেতে চীনের সঙ্গে কাজ করতে চান তিনি। খবর সিএনএনের। 

তাইওয়ানের জাতীয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রেসিডেন্ট সাং ইং-ওয়েন বলেছেন, তাইওয়ানের জনগণের সর্বসম্মতি হলো...আমাদের সার্বভৌমতা, স্বাধীন ও গণতান্ত্রিক জীবনকে রক্ষা করা। এ নিয়ে আপসের কোনো সুযোগ নেই।

এদিকে গত কয়েক যুগের মধ্যে বর্তমানে চীন-তাইওয়ানের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উত্তেজনা চলছে। 

২৩ লাখ মানুষের তাইওয়ান চীনের উপকূল থেকে ১৭৭ কি.মি দূরে অবস্থিত। ৭০ বছরেরও বেশি সময় ধরে দুই দেশই আলাদাভাবে শাসিত হয়েছে, তবে এরপরও চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টি দাবি করে তাইওয়ান তাদের নিজেদের অঞ্চল, যদিও তাইওয়ানকে কখনো শাসন করেনি চীন।

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বলেছেন, চীনের সঙ্গে তাইওয়ানের অন্তর্ভুক্তি অত্যাসন্ন। চীনের মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে তাইওয়ানকে যুক্ত করতে প্রয়োজনে সামরিক অভিযানও (যুদ্ধ) চালানো হবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। 

চীন যেন যুদ্ধের বিষয়টি চিন্তা না করে সে আহ্বান জানিয়েছেন তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট। তিনি বলেছেন, আমি বেইজিংয়ের সরকারের প্রতি বলব, দুই দেশের সম্পর্কে যেন অবশ্যই যুদ্ধ অবলম্বনের সুযোগ না থাকে। শুধুমাত্র তাইওয়ানের জনগণনের সার্বভৌমতার প্রতি দৃঢ়তা, স্বাধীনতা এবং গণতন্ত্রকে সম্মান জানানোর মাধ্যমে আমরা তাইওয়ান প্রণালীতে ইতিবাচক যোগাযোগ করতে পারি। 

সূত্র: সিএনএন

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন