পবিত্র রমজানে আমরা যেন করোনাযুদ্ধে জয়ী হই: নরেন্দ্র মোদি
jugantor
পবিত্র রমজানে আমরা যেন করোনাযুদ্ধে জয়ী হই: নরেন্দ্র মোদি

   

২৫ এপ্রিল ২০২০, ২৩:২১:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ফাইল ছবি

মুসলিম বিশ্বকে পবিত্র রমজান মাসের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ শুক্রবার এক টুইটবার্তায় রমজানে সবার সুস্বাস্থ্য ও নিরাপত্তার পাশাপাশি করোনাভাইরাস মহামারি নিয়ন্ত্রণের আশাপ্রকাশ করেছেন তিনি।

টুইটে নরেন্দ্র মোদি লেখেন, 'রমজান মুবারক! আমি সবার নিরাপত্তা, সুস্থতা ও উন্নতি কামনা করি। পবিত্র এই মাসে মহানুভবতা, সম্প্রীতি ভ্রাতৃত্ববোধের প্রাচুর্য নেমে আসুক। আমরা যেন করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে চলমান যুদ্ধে জয়ী হই এবং একটি স্বাস্থ্যকর বিশ্ব গড়ে তুলতে পারি।’

ভারতের কেরালা ও কর্ণাটকের উপকূলীয় এলাকাগুলোতে শুক্রবার থেকেই রোজা পালন শুরু করেছেন স্থানীয় মুসলিমরা। শনিবার থেকে শুরু হয়েছে দেশটির বাকি অংশেও।

হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, ভারতীয় সরকার, আলেম ও মুসলিম নেতারা এবারের রমজানে সবাইকে বাড়িতেই নামাজ ও ইফতারি আয়োজনের অনুরোধ জানিয়েছেন। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

দিল্লি জামে মসজিদের ইমাম সৈয়দ আহমেদ বুখারি আপাতত কাউকে ইফতারিতে আমন্ত্রণ না জানানো এবং বাড়িতে নামাজের সময়ও এক রুমে তিনজনের বেশি না দাঁড়ানোর অনুরোধ জানিয়েছেন।

ইতোমধ্যেই মসজিদের বাইরে জনসচেতনতামূলক পোস্টার লাগানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ‘করোনাভাইরাসের কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা বাধ্যতামূলক। এ কারণে মসজিদের পরিবর্তে বাড়িতেই নামাজ আদায় করুন।’

দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে, জাতীয় নির্দেশনা মোতাবেক মসজিদে নামাজ আদায় বন্ধ থাকলেও যথারীতি আজান দেয়া হবে। রমজান মাসে সবাইকে লকডাউনের নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ জানিয়েছে তারা।

পবিত্র রমজানে আমরা যেন করোনাযুদ্ধে জয়ী হই: নরেন্দ্র মোদি

  
২৫ এপ্রিল ২০২০, ১১:২১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ফাইল ছবি
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ফাইল ছবি

মুসলিম বিশ্বকে পবিত্র রমজান মাসের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ শুক্রবার এক টুইটবার্তায় রমজানে সবার সুস্বাস্থ্য ও নিরাপত্তার পাশাপাশি করোনাভাইরাস মহামারি নিয়ন্ত্রণের আশাপ্রকাশ করেছেন তিনি।

টুইটে নরেন্দ্র মোদি লেখেন, 'রমজান মুবারক! আমি সবার নিরাপত্তা, সুস্থতা ও উন্নতি কামনা করি। পবিত্র এই মাসে মহানুভবতা, সম্প্রীতি ভ্রাতৃত্ববোধের প্রাচুর্য নেমে আসুক। আমরা যেন করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে চলমান যুদ্ধে জয়ী হই এবং একটি স্বাস্থ্যকর বিশ্ব গড়ে তুলতে পারি।’

ভারতের কেরালা ও কর্ণাটকের উপকূলীয় এলাকাগুলোতে শুক্রবার থেকেই রোজা পালন শুরু করেছেন স্থানীয় মুসলিমরা। শনিবার থেকে শুরু হয়েছে দেশটির বাকি অংশেও।

হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, ভারতীয় সরকার, আলেম ও মুসলিম নেতারা এবারের রমজানে সবাইকে বাড়িতেই নামাজ ও ইফতারি আয়োজনের অনুরোধ জানিয়েছেন। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

দিল্লি জামে মসজিদের ইমাম সৈয়দ আহমেদ বুখারি আপাতত কাউকে ইফতারিতে আমন্ত্রণ না জানানো এবং বাড়িতে নামাজের সময়ও এক রুমে তিনজনের বেশি না দাঁড়ানোর অনুরোধ জানিয়েছেন।

ইতোমধ্যেই মসজিদের বাইরে জনসচেতনতামূলক পোস্টার লাগানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ‘করোনাভাইরাসের কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা বাধ্যতামূলক। এ কারণে মসজিদের পরিবর্তে বাড়িতেই নামাজ আদায় করুন।’

দিল্লি পুলিশ জানিয়েছে, জাতীয় নির্দেশনা মোতাবেক মসজিদে নামাজ আদায় বন্ধ থাকলেও যথারীতি আজান দেয়া হবে। রমজান মাসে সবাইকে লকডাউনের নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ জানিয়েছে তারা।

 

 

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস