ভারতে ‘করোনার ইঞ্জেকশন’ বহনকারী বিমানের 'ক্র্যাশ ল্যান্ডিং'
jugantor
ভারতে ‘করোনার ইঞ্জেকশন’ বহনকারী বিমানের 'ক্র্যাশ ল্যান্ডিং'

  অনলাইন ডেস্ক  

০৭ মে ২০২১, ১০:৫৪:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রতীকী ছবি (সৌজন্যে এএনআই)

করোনা পরিস্থিতিতে জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহার হওয়া রেমডেসিভির ইনজেকশন বহনকারী একটি সরকারি বিমানের ক্রাশ ল্যান্ডিংয়ের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিহার রাত ১০টা ১০ মিনিটে ঘটনাটি ঘটে। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের।

খবরে বলা হয়, বিমানটি ইন্দোর থেকে টেক অফ করেছিল। বিমানটি মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়র বিমান বন্দরে জরুরি অবতরণ করে।

গোয়ালিয়রের জেলা প্রশাসক কৌশেলন্দ্র বিক্রম সিং বলেন, বিমানের পাইলট ক্যাপ্টেন মাজিদ আখতার, সহ-পাইলট শিব জয়সওয়াল ও দিলীপ কুমার সেই বিমানে ছিলেন। দুর্ঘটনায় তারা সামান্য আহত হয়েছেন। তাদেরকে বিমানবাহিনীর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, 'রেমডেসিভির ইনজেকশন নিয়ে বিমানটি ইন্দোর থেকে টেক অফ করে। তবে মাঝ আকাশে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা যায়। তবে এখনও পর্যন্ত ক্র্যাশ ল্যান্ডিংয়ের মূল কারণ জানা যায়নি। তবে বিমানে থাকা রেমডেসিভির ইনজেকশনগুলো নিরাপদে রয়েছে। ঘটনাস্থলে বিমানবাহিনীর কর্মকর্তারা পৌঁছে পাইলট এবং বাকিদের সেখান থেকে উদ্ধার করে।'

এদিকে ঘটনার প্রেক্ষিতে গোয়ালিরের পুলিশ সুপার বলেন, 'প্রাথমিক তদন্তের পর জানা গিয়েছে যে বিমানের অ্যারেস্টর গিয়ারে গোলমাল দেখা যায়। এই গিয়ার অবতরণের সময় রানওয়েতে বিমানকে আস্তে করতে সাহায্য করে। তবে এই দুর্ঘটনার মূল কারণ পাইলট জানাবেন। তবে ঘটনার আকস্মিকতায় পাইলট শকে রয়েছেন।'
উল্লেখ্য, ক্র্যাশ ল্যান্ড করা বিমানটি মধ্যপ্রদেশ সরকার ২০২০ সালে ৬৫ কোটি টাকা দিয়ে কিনেছিল।

ভারতে ‘করোনার ইঞ্জেকশন’ বহনকারী বিমানের 'ক্র্যাশ ল্যান্ডিং'

 অনলাইন ডেস্ক 
০৭ মে ২০২১, ১০:৫৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
প্রতীকী ছবি (সৌজন্যে এএনআই)
প্রতীকী ছবি (সৌজন্যে এএনআই)

করোনা পরিস্থিতিতে জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহার হওয়া রেমডেসিভির ইনজেকশন বহনকারী একটি সরকারি বিমানের ক্রাশ ল্যান্ডিংয়ের ঘটনা ঘটেছে।  বৃহস্পতিহার রাত ১০টা ১০ মিনিটে ঘটনাটি ঘটে।  খবর হিন্দুস্তান টাইমসের।

খবরে বলা হয়, বিমানটি ইন্দোর থেকে টেক অফ করেছিল।  বিমানটি মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়র বিমান বন্দরে জরুরি অবতরণ করে।

গোয়ালিয়রের জেলা প্রশাসক কৌশেলন্দ্র বিক্রম সিং বলেন, বিমানের পাইলট ক্যাপ্টেন মাজিদ আখতার, সহ-পাইলট শিব জয়সওয়াল ও দিলীপ কুমার সেই বিমানে ছিলেন।  দুর্ঘটনায় তারা সামান্য আহত হয়েছেন।  তাদেরকে বিমানবাহিনীর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, 'রেমডেসিভির ইনজেকশন নিয়ে বিমানটি ইন্দোর থেকে টেক অফ করে।  তবে মাঝ আকাশে যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা যায়। তবে এখনও পর্যন্ত ক্র্যাশ ল্যান্ডিংয়ের মূল কারণ জানা যায়নি। তবে বিমানে থাকা রেমডেসিভির ইনজেকশনগুলো নিরাপদে রয়েছে।  ঘটনাস্থলে বিমানবাহিনীর কর্মকর্তারা পৌঁছে পাইলট এবং বাকিদের সেখান থেকে উদ্ধার করে।'

এদিকে ঘটনার প্রেক্ষিতে গোয়ালিরের পুলিশ সুপার বলেন, 'প্রাথমিক তদন্তের পর জানা গিয়েছে যে বিমানের অ্যারেস্টর গিয়ারে গোলমাল দেখা যায়। এই গিয়ার অবতরণের সময় রানওয়েতে বিমানকে আস্তে করতে সাহায্য করে। তবে এই দুর্ঘটনার মূল কারণ পাইলট জানাবেন। তবে ঘটনার আকস্মিকতায় পাইলট শকে রয়েছেন।'
উল্লেখ্য, ক্র্যাশ ল্যান্ড করা বিমানটি মধ্যপ্রদেশ সরকার ২০২০ সালে ৬৫ কোটি টাকা দিয়ে কিনেছিল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস