১৭তম তারাবিতে পঠিতব্য আয়াতের সারাংশ

  আল ফাতাহ মামুন ২২ মে ২০১৯, ১৭:৩৬ | অনলাইন সংস্করণ

১৭তম তারাবিতে পঠিতব্য আয়াতের সারাংশ
ছবি: সংগৃহীত

আজ ১৭তম তারাবিতে সূরা নামলের পঞ্চম রুকুর দ্বিতীয় আয়াত থেকে শেষ পর্যন্ত পড়া হবে। সঙ্গে সূরা কাসাস এবং সূরা আনকাবুতের চতুর্থ রুকুও পঠিত হবে। পারা হিসেবে আজ পড়া হবে ২০তম পারা।

পাঠকদের জন্য আজকের তারাবিতে পঠিত অংশের মূলবিষয়বস্তু তুলে ধরা হল।

২৭. সূরা নামল : ৬০-৯৩

পঞ্চম রুকুর দ্বিতীয় আয়াত থেকে রুকুর শেষ পর্যন্ত, ৬০ থেকে ৬৬ নম্বর আয়াতে কাফেরদের উদ্দেশ্য করে আল্লাহ তায়ালা বিভিন্ন প্রশ্ন করেছেন আবার আল্লাহ নিজেই তার উত্তর দিয়ে তাদের ঘুমন্ত বিবেককে জাগানোর চেষ্টা করেছেন।

ষষ্ঠ রুকু। ৬৭ থেকে ৮২ নম্বর আয়াতে কাফেররা বিভিন্ন আপত্তি তুলেছে তার জবাব দেয়া হয়েছে। এরপর বলা হয়েছে, ‘নবী আপনি মৃত আত্মার কোন মানুষকে কোরআনের আহ্বান শোনাতে পারবেন না।’

সপ্তম তথা শেষ রুকু। ৮৩ থেকে ৯৩ নম্বর আয়াতে যারা হেদায়াতের আহ্বানে সাড়া দেবে না তাদের জন্য কেয়ামতের দিনে কেমন আজাব রয়েছে তা বলা হয়েছে। তাই ওই পর্যন্ত বিশ্বাসীরা সৎকাজ করতে থাকুক- এ হেদায়াতের মাধ্যমেই সূরা নামল শেষ করা হয়েছে।

২৮. সূরা কাসাস : ১-৮৮

মক্কায় অবতীর্ণ সূরা কাসাসের আয়াত সংখ্যা ৮৮ এবং রুকু সংখ্যা ৯টি। আজকের তারাবিতে পুরো সূরাই পঠিত হবে।

প্রথম রুকু। ১ থেকে ১৩ নম্বর আয়াতে হজরত মুসা (আ.) এর ঘটনা বলা হয়েছে। শৈশবে কীভাবে আল্লাহ তায়ালা তাকে হেফাজত করেছেন তার বর্ণনা রয়েছে এই রুকুতে।

দ্বিতীয় রুকু। ১৪ থেকে ২২ নম্বর আয়াতে হজরত মুসা (আ.) এর যৌবনের প্রারম্ভের কথা বর্ণনা করা হয়েছে। এ সময় তিনি একটি গুরুতর অপরাধ করে ফেলেন। আল্লাহ তায়ালা কীভাবে তাকে রক্ষা করেছেন সে ঘটনার বর্ণনা রয়েছে।

তৃতীয় ও চতুর্থ রুকু। ২২ থেকে ৪৩ নম্বর আয়াতে হজরত মুসা (আ.) এর বৈবাহিক জীবন আলোচনা করা হয়েছে। আল্লাহর নবী শোআইব (আ.) এর সঙ্গে সম্পর্ক ও চুক্তির কথাও বলা হয়েছে। বলা হয়েছে মুসা (আ.) এর নবুয়াত লাভের ঐতিহাসিক ঘটনাও।

ষষ্ঠ রুকু। ৪৩ থেকে ৫০ নম্বর আয়াতে নবুয়ত লাভের পর মুসা (আ.) দাওয়াতী কৌশল কী ছিল তা বর্ণনা করা হয়েছে।

ষষ্ঠ ও সপ্তম রুকু। ৫১ থেকে ৭৫ নম্বর আয়াতে উম্মতে মুহাম্মাদীকে উদ্দেশ্যে করে বিভিন্ন নসিহত এবং উপদেশ দেওয়া হয়েছে। যারা এ উপদেশ প্রত্যাখ্যান করবে তাদের জন্য কঠোর আজাবের হুশিয়ারী দেওয়া হয়েছে।

অষ্টম ও নবম তথা শেষ রুকু। ৭৬ থেকে ৮৮ নম্বর আয়াতে আবার মুসা (আ.) এর প্রসঙ্গ আলোচনা করা হয়েছে। তারপর উম্মাতে মুহাম্মাদীর উদ্দেশ্যে গুরুত্বপূর্ণ নসিহতের মাধ্যমে সূরার ইতি টানা হয়েছে।

২৯. সূরা আনকাবুত : ১-৪৪

সূরা আনকাবুত। নাজিল হয়েছে মক্কায়। আয়াত সংখ্যা ৬৯। রুকু সংখ্যা সাত। আজ পঠিত হবে চতুর্থ রুকু পর্যন্ত।

প্রথম রুকু। ১ থেকে ১৩ নম্বর আয়াতে মানুষের মনে ধর্ম এবং আল্লাহ সম্পর্কে যে সব ভুল ধারণা রয়েছে তার ছাফ ছাফ জবাব দেয়া হয়েছে।

দ্বিতীয় থেকে চতুর্থ রুকু। ১৪ থেকে ৪৩ নম্বর আয়াতে পূর্ববর্তী নবীদের নাম ধরে ধরে তাদের ঘটনা বলা হয়েছে। এটা এজন্যই বলা হয়েছে মানুষ যাতে বুঝতে পারে এবং আল্লাহর দিকে ফিরে আসে।

ঘটনাপ্রবাহ : তারাবিতে পঠিত আয়াতসমূহের সারাংশ

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×